Alokito Sakal
নবীগঞ্জে সাংবাদিক জুনাইদ হত্যা মামলায় ৩ জনের যাবজ্জীবন কারাদন্ড
সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ১০:০৬ PM
Alokito Sakal Alokito Sakal :

নবীগঞ্জ উপজেলার তরুন সাংবাদিক জুনাইদ আহমেদ হত্যা মামলায় ৩ জনকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড দিয়েছে আদালত। পাশাপাশি প্রত্যেককে ১০ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়। অনাদায়ে আরো ২ বছরের দন্ডাদেশ প্রদান করা হবে। সোমবার (২৩ সেপ্টেম্বর) দুপুরে রায় ঘোষণা করেন হবিগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ মোঃ নাসিম রেজা। দন্ডপ্রাপ্তরা হলেন- উপজেলার সাতাইল গ্রামের বাবুল মিয়ার ছেলে বাদশাহ মিয়া (৪০), দেবপাড়া গ্রামের হাছিল মিয়ার ছেলে রাহুল মিয়া (৩৫) ও সাতাইহাল মাজপাড়া গ্রামের আব্দুল রেজাকের ছেলে লন্ডনের ওল্ডহামের হাল শহরে বর্তমানে অবস্থান ফরিদ মিয়া (৩৮)।

রায় ঘোষণাকালে আদালতে উপস্থিত ছিলেন বাদশাহ ও রাহুল। রায় শেষে তাদের কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে। এছাড়া যুক্তরাজ্যে পলাতক রয়েছেন ফরিদ মিয়া। মামলার অপর আসামী মাদক ব্যবসায়ী আব্দুল হামিদ জনতার গণপিঠুনিতে নিহত হয়। সূত্রে জানা যায়, ২০ জনের স্বাক্ষ্য গ্রহণ ও দুইদিন দীর্ঘ যুক্তিতর্ক শেষে সোমবার বিচারক রায় ঘোষনা করেন। এ সময় মামলার বাদী মোজাহিদ আহমেদ আদালতে উপস্থিত ছিলেন। তিনি এই রায়ে সন্তুষ্ঠী প্রকাশ করেন এবং লন্ডনে পলাতক থাকা ফরিদ মিয়াকে দেশে এনে রায় বাস্তবায়নের দাবী জানান। উল্লেখ্য, ২০১২ সনের ১০ জুলাই সাংবাদিক জুনাইদ আহমদ বাড়ি থেকে বের হয়ে নিখোঁজ হন।

ওই রাতেই দুর্বৃত্তরা তাকে হত্যা করে লাশের আলামত নষ্ট করার জন্য শায়েস্তাগঞ্জ রেল লাইনে ফেলে যায়। পরদিন ১১ জুলাই সকালে সাংবাদিক জুনাইদ আহমদের মৃতদেহ প্রায় ২০ টুকরা অবস্থায় রেলওয়ে পুলিশ উদ্ধার করে। ঘটনার শুরুতেই জুনাইদ আহমেদের পরিবার এটাকে পরিকল্পিত হত্যাকান্ড বলে দাবি করে আসছিল। এক পর্যায়ে জুনাইদের ভাই মোজাহিদ আহমদ বাদী হয়ে হবিগঞ্জের আদালতে একই গ্রামের ফরিদ মিয়াকে প্রধান আসামী করে ৪ জনের বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা দায়ের করলে আদালত মামলাটি এফআইআর গণ্যে রুজু করার জন্য জিআরপি থানা পুলিশকে নির্দেশ দেয়। মামলার খবর পেয়েই প্রধান আসামী ফরিদ ইংল্যান্ডে পালিয়ে যায়। অপর আসামীরাও আত্মগোপন করে।