ঢাকা ০৮:৫৮ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৮ নভেম্বর ২০২২, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মধ্যনগরে ‘পাগল মহিলার কোলে ছেলে সন্তান’ প্রশংসায় ভাসছে ওসি

মধ্যনগর (সুনামগঞ্জ) প্রতিনিধি : পাগলিটাও মা হয়েছে, তবে বাবা হয়নি কেউ; পাগলি বলে যায়নি ছেড়ে প্রসব ব্যথার ঢেউ” জনপ্রিয় কবিতার কয়েকটি লাইনের বাস্তবায়ন হয়েছে সুনামগঞ্জের মধ্যনগর উপজেলায়। মানসিক ভারসাম্যহীন এক নারী গত রাতে পুত্র সন্তানের জন্ম হলে মধ্যনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি জাহিদুল হক তাঁর ভেরিফাইড ফেইসবুক আইডিতে একটি পোস্ট দেন।ওই পোস্ট তাৎক্ষণিক সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়। এখন প্রশংসায় ভাসছেন তিনি। পোস্টটি হুবহু তুলে ধরা হলো।
“ব্যতিক্রমী পোষ্ট।”পাগল মহিলার কোলে ছেলে সন্তান”
মধ্যনগর বাজারের পাহারাদার রাশেন্দ্র মালাকার রাত্র ১১.১৫ ঘটিকায় থানায় হাজির হয়ে জানান মধ্যনগর বাজারে শহীদ মিনারের সামনে পাগল মহিলার বাচ্চা প্রসব হয়েছে এবং নবজাতক বাচ্চা কান্না করছে। বাচ্চার আশেপাশে কুকুর ঘোরাফেরা করছে। সংবাদ পাওয়ার সাথে সাথে আমি অফিসার ইনচার্জ মোঃজাহিদুল হক মধ্যনগর থানা, সুনামগঞ্জ সঙ্গীয় এসঅাই শামীম আল মামুন, এএসআই আব্দুল আজিম সহ তথায় উপস্থিত হয়ে পাগল মহিলাকে অচেতন অবস্থায় ও তাহার গর্ভের প্রসবকৃত বাচ্চার কান্না দেখে এসআই শামীম নবজাতক ছেলে বাচ্চাকে তাহার দুই হাতে রাখে। বাচ্চার প্রসব হওয়ার পর বাকী কাজ সমাপ্ত করার জন্য আশপাশে কোন মহিলা না পেয়ে মটরসাইকেল যোগে দ্রুত চলে যায় মধ্যনগর মা ও শিশু হাসপাতালে গিয়ে নার্স প্রিয়াংকা ভৌমিক নিয়ে আসি ও বাচা প্রসবের পর বাকী কার্যক্রম নার্স সম্পন্ন করেন। এক পর্যায়ে আশেপাশের অনেকে প্রসব কৃত নবজাতক ও পাগল মহিলার জন্য কাপড় নিয়ে আশে।রাতের বেলা কোন বাহন না থাকায় নবজাতক বাচ্চা ও নবজাতকের গর্ভধারনী মা পাগল মহিলাকে ঠেলা গাড়ী ও মটর সাইকেল যোগে মধ্যনগর মা ও শিশু কল্যান কেন্দ্রে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়া হয়। নবজাতক ছেলে বাচ্চা ও নবজাতকের পাগল মা সুস্হ আছে। সবাই নবজাতক ও তার গর্ভধারনী মায়ের জন্য দোয়া করবেন। উক্ত মানবিক কাজে যারা সহযোগিতা করেছেন তাদের ধন্যবাদ। বিশেষ ভাবে ধন্যবাদ জানাচ্ছি এসঅাই শামীম আল মামুন ও নার্স প্রিয়াংকা দিদিকে। তাদের মানবিকতা আমাকে অভিভুত করেছে।
মধ্যনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাহিদুল হক ফেইসবুক পোস্টের বিষয়ে আজকের পত্রিকাকে বলেন, মানুষ মানুষের জন্য এই দৃষ্টিভঙ্গি থেকেই মেয়েটির পাশে দাঁড়ানো। সে মানসিক ভারসাম্যহীন, মানুষ হিসেবে যেটুকু করার সেটুকুই করেছি। আমার সাথে যারা ছিলেন সবাই সহযোগিতা করেছেন।

Tag :
জনপ্রিয়

নির্বাচিত হলে ১৩নং ওয়ার্ড বাসীর জন্য এ্যাম্বুলেন্স উপহার দিব; রসিকের কাউন্সিলর প্রার্থী তুহিন

মধ্যনগরে ‘পাগল মহিলার কোলে ছেলে সন্তান’ প্রশংসায় ভাসছে ওসি

প্রকাশের সময় : ০৯:৪৮:৩৪ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২০ নভেম্বর ২০২২

মধ্যনগর (সুনামগঞ্জ) প্রতিনিধি : পাগলিটাও মা হয়েছে, তবে বাবা হয়নি কেউ; পাগলি বলে যায়নি ছেড়ে প্রসব ব্যথার ঢেউ” জনপ্রিয় কবিতার কয়েকটি লাইনের বাস্তবায়ন হয়েছে সুনামগঞ্জের মধ্যনগর উপজেলায়। মানসিক ভারসাম্যহীন এক নারী গত রাতে পুত্র সন্তানের জন্ম হলে মধ্যনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি জাহিদুল হক তাঁর ভেরিফাইড ফেইসবুক আইডিতে একটি পোস্ট দেন।ওই পোস্ট তাৎক্ষণিক সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়। এখন প্রশংসায় ভাসছেন তিনি। পোস্টটি হুবহু তুলে ধরা হলো।
“ব্যতিক্রমী পোষ্ট।”পাগল মহিলার কোলে ছেলে সন্তান”
মধ্যনগর বাজারের পাহারাদার রাশেন্দ্র মালাকার রাত্র ১১.১৫ ঘটিকায় থানায় হাজির হয়ে জানান মধ্যনগর বাজারে শহীদ মিনারের সামনে পাগল মহিলার বাচ্চা প্রসব হয়েছে এবং নবজাতক বাচ্চা কান্না করছে। বাচ্চার আশেপাশে কুকুর ঘোরাফেরা করছে। সংবাদ পাওয়ার সাথে সাথে আমি অফিসার ইনচার্জ মোঃজাহিদুল হক মধ্যনগর থানা, সুনামগঞ্জ সঙ্গীয় এসঅাই শামীম আল মামুন, এএসআই আব্দুল আজিম সহ তথায় উপস্থিত হয়ে পাগল মহিলাকে অচেতন অবস্থায় ও তাহার গর্ভের প্রসবকৃত বাচ্চার কান্না দেখে এসআই শামীম নবজাতক ছেলে বাচ্চাকে তাহার দুই হাতে রাখে। বাচ্চার প্রসব হওয়ার পর বাকী কাজ সমাপ্ত করার জন্য আশপাশে কোন মহিলা না পেয়ে মটরসাইকেল যোগে দ্রুত চলে যায় মধ্যনগর মা ও শিশু হাসপাতালে গিয়ে নার্স প্রিয়াংকা ভৌমিক নিয়ে আসি ও বাচা প্রসবের পর বাকী কার্যক্রম নার্স সম্পন্ন করেন। এক পর্যায়ে আশেপাশের অনেকে প্রসব কৃত নবজাতক ও পাগল মহিলার জন্য কাপড় নিয়ে আশে।রাতের বেলা কোন বাহন না থাকায় নবজাতক বাচ্চা ও নবজাতকের গর্ভধারনী মা পাগল মহিলাকে ঠেলা গাড়ী ও মটর সাইকেল যোগে মধ্যনগর মা ও শিশু কল্যান কেন্দ্রে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়া হয়। নবজাতক ছেলে বাচ্চা ও নবজাতকের পাগল মা সুস্হ আছে। সবাই নবজাতক ও তার গর্ভধারনী মায়ের জন্য দোয়া করবেন। উক্ত মানবিক কাজে যারা সহযোগিতা করেছেন তাদের ধন্যবাদ। বিশেষ ভাবে ধন্যবাদ জানাচ্ছি এসঅাই শামীম আল মামুন ও নার্স প্রিয়াংকা দিদিকে। তাদের মানবিকতা আমাকে অভিভুত করেছে।
মধ্যনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাহিদুল হক ফেইসবুক পোস্টের বিষয়ে আজকের পত্রিকাকে বলেন, মানুষ মানুষের জন্য এই দৃষ্টিভঙ্গি থেকেই মেয়েটির পাশে দাঁড়ানো। সে মানসিক ভারসাম্যহীন, মানুষ হিসেবে যেটুকু করার সেটুকুই করেছি। আমার সাথে যারা ছিলেন সবাই সহযোগিতা করেছেন।