ঢাকা ১২:২০ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২২, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শুধু নিজের কথা ভাবলে চলে না, মানুষের কথাও ভাবতে হয়: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

করোনা মহামারির পর রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের প্রভাবে বিশ্ব যে সংকটে পড়েছে বা আগামীতে যে সংকটের আশঙ্কা আছে তাতে বাংলাদেশের মানুষের যেন কষ্ট না হয় সেজন্য যতটুকু প্রস্তুতি নেওয়ার দরকার সরকার তা নিচ্ছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বৃহস্পতিবার (৬ অক্টোবর) যুক্তরাজ্য-যুক্তরাষ্ট্র সফর নিয়ে গণভবনে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে এক প্রশ্নের জবাবে এ কথা জানান প্রধানমন্ত্রী।

শেখ হাসিনা বলেন, সারা বিশ্ব এখন অশান্তিতে ভুগছে। করোনা মহামারি যেতে না যেতেই ইউক্রেন-রাশিয়ার যুদ্ধ। সেখানে আমরা শান্তিতে থাকব কি থাকব না সেটা অনেকটা আমাদের নিজেদেরও ব্যাপার। কারণ, আমরা নিজেরা যদি আমাদের উৎপাদন বাড়াতে পারি, খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পারি, তাহলে অন্তত সেদিক থেকে আমাদের কোনো কষ্ট হবে না।

সরকার প্রধান বলেন, কিন্তু সারা বিশ্বের মানুষ যখন কষ্টে থাকে, তখন কি চাইলেই শান্তিতে থাকা যায়? শুধু নিজের কথা ভাবলে চলে না, মানুষের কথাও ভাবতে হয়। উন্নত দেশের মানুষগুলোও কষ্ট পাচ্ছে। আর আমাদের দেশে তো আছেই। তাছাড়া আরও অনেক দেশ আছে। আমার দেশের মানুষের যেন কষ্ট না হয়, তার জন্য যতটুকু যা প্রস্তুতি নেওয়া দরকার আমি কিন্তু সেটা নিচ্ছি।

 

প্রধানমন্ত্রী জানান, কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধি, খাদ্য উৎপাদন বৃদ্ধির জন্য বাজেট ছাড়াও কিন্তু আলাদা একটা তহবিল আমি রেখেছি। সেটা নিয়ে আমরা কী কী করব তার পরিকল্পনা করার নির্দেশ ইতোমধ্যে আমি দিয়েছি। অন্তত আমার দেশের মানুষ যেন ভালো থাকে। আর যদি উদ্বৃত্ত কিছু হয় আমরা অন্যকেও দিতে পারব।

খাদ্য যথেষ্ট মজুত আছে জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, রিজার্ভ খাদ্য যথেষ্ট আছে। জাতিসংঘে কম্বোডিয়ার প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেছি, সেখান থেকে আমরা চাল আনতে পারব। ভিয়েতনাম, মিয়ানমার থেকে শুরু করে ভারত তো আছেই। যদি কোনো সংকট হয় আমরা আনতে পারব, সে ব্যবস্থা আমাদের আছে।

যুক্তরাজ্য ও যুক্তরাষ্ট্রে টানা ১৮ দিনের সফর শেষে গত ৩ অক্টোবর দেশে ফেরেন প্রধানমন্ত্রী।

যুক্তরাজ্য সফরে তিনি ব্রিটেনের রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের রাষ্ট্রীয় অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া এবং রাজা তৃতীয় চার্লসের সিংহাসনে আরোহণ উপলক্ষে আয়োজিত সংবর্ধনায় অংশ নেন।

এরপর তিনি যুক্তরাষ্ট্র সফরে যান। সেখানে গত ২৩ সেপ্টেম্বর জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের ৭৭তম অধিবেশনে ভাষণ দেন তিনি। পাশাপাশি তিনি বিভিন্ন অনুষ্ঠানে অংশ নেন।

Tag :
জনপ্রিয়

সামনে অস্তিত্ব রক্ষার লড়াই”যেকোনো মূল্যে সমাবেশ সফল করতে হবে: ফখরুল।

শুধু নিজের কথা ভাবলে চলে না, মানুষের কথাও ভাবতে হয়: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রকাশের সময় : ০৩:২৭:৪৭ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৬ অক্টোবর ২০২২

করোনা মহামারির পর রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের প্রভাবে বিশ্ব যে সংকটে পড়েছে বা আগামীতে যে সংকটের আশঙ্কা আছে তাতে বাংলাদেশের মানুষের যেন কষ্ট না হয় সেজন্য যতটুকু প্রস্তুতি নেওয়ার দরকার সরকার তা নিচ্ছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বৃহস্পতিবার (৬ অক্টোবর) যুক্তরাজ্য-যুক্তরাষ্ট্র সফর নিয়ে গণভবনে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে এক প্রশ্নের জবাবে এ কথা জানান প্রধানমন্ত্রী।

শেখ হাসিনা বলেন, সারা বিশ্ব এখন অশান্তিতে ভুগছে। করোনা মহামারি যেতে না যেতেই ইউক্রেন-রাশিয়ার যুদ্ধ। সেখানে আমরা শান্তিতে থাকব কি থাকব না সেটা অনেকটা আমাদের নিজেদেরও ব্যাপার। কারণ, আমরা নিজেরা যদি আমাদের উৎপাদন বাড়াতে পারি, খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পারি, তাহলে অন্তত সেদিক থেকে আমাদের কোনো কষ্ট হবে না।

সরকার প্রধান বলেন, কিন্তু সারা বিশ্বের মানুষ যখন কষ্টে থাকে, তখন কি চাইলেই শান্তিতে থাকা যায়? শুধু নিজের কথা ভাবলে চলে না, মানুষের কথাও ভাবতে হয়। উন্নত দেশের মানুষগুলোও কষ্ট পাচ্ছে। আর আমাদের দেশে তো আছেই। তাছাড়া আরও অনেক দেশ আছে। আমার দেশের মানুষের যেন কষ্ট না হয়, তার জন্য যতটুকু যা প্রস্তুতি নেওয়া দরকার আমি কিন্তু সেটা নিচ্ছি।

 

প্রধানমন্ত্রী জানান, কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধি, খাদ্য উৎপাদন বৃদ্ধির জন্য বাজেট ছাড়াও কিন্তু আলাদা একটা তহবিল আমি রেখেছি। সেটা নিয়ে আমরা কী কী করব তার পরিকল্পনা করার নির্দেশ ইতোমধ্যে আমি দিয়েছি। অন্তত আমার দেশের মানুষ যেন ভালো থাকে। আর যদি উদ্বৃত্ত কিছু হয় আমরা অন্যকেও দিতে পারব।

খাদ্য যথেষ্ট মজুত আছে জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, রিজার্ভ খাদ্য যথেষ্ট আছে। জাতিসংঘে কম্বোডিয়ার প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেছি, সেখান থেকে আমরা চাল আনতে পারব। ভিয়েতনাম, মিয়ানমার থেকে শুরু করে ভারত তো আছেই। যদি কোনো সংকট হয় আমরা আনতে পারব, সে ব্যবস্থা আমাদের আছে।

যুক্তরাজ্য ও যুক্তরাষ্ট্রে টানা ১৮ দিনের সফর শেষে গত ৩ অক্টোবর দেশে ফেরেন প্রধানমন্ত্রী।

যুক্তরাজ্য সফরে তিনি ব্রিটেনের রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের রাষ্ট্রীয় অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া এবং রাজা তৃতীয় চার্লসের সিংহাসনে আরোহণ উপলক্ষে আয়োজিত সংবর্ধনায় অংশ নেন।

এরপর তিনি যুক্তরাষ্ট্র সফরে যান। সেখানে গত ২৩ সেপ্টেম্বর জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের ৭৭তম অধিবেশনে ভাষণ দেন তিনি। পাশাপাশি তিনি বিভিন্ন অনুষ্ঠানে অংশ নেন।