ঢাকা ১১:১৫ অপরাহ্ন, সোমবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২২, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

এই সরকার এখন জাতির জন্য একটা বোঝা হয়ে দাঁড়িয়েছে: মির্জা ফখরুল।

সরকারের দুর্নীতির তথ্য দেশের মানুষের কাছে গোপন রাখতে ২৯ বিভাগে সার্কুলার জারি করেছে বলে দাবি করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

তিনি বলেন, দেশের মানুষ যেন সত্য ও সঠিক তথ্য জানতে না পারে, গণমাধ্যম যাতে সরকারের দুর্নীতির তথ্য প্রচার করতে না পারে এজন্য ২৯টি বিভাগ সার্কুলার দিয়েছে যে, তাদের কাছ থেকে কোনো তথ্য নেওয়া যাবে না, তারা কাউকে কোনো তথ্য দেবে না।

দলীয় কর্মসূচি পালনকালে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে নিহত কর্মীদের স্মরণে বৃহস্পতিবার (৬ অক্টোবর) বিকেলে নয়াপল্টন বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে শোক র‌্যালি করে দলটি। এ সময় সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে মির্জা ফখরুল এসব কথা বলেন।

নিজের স্বেচ্ছাচারিতা ঢেকে রাখার জন্য সরকার আজকে সমগ্র জাতিকে সঠিক খবর থেকে বঞ্চিত করে রাখতে চায় বলে দাবি করেন মির্জা ফখরুল। বলেন, দেশ এমন একটা কর্তৃত্ববাদী রাষ্ট্রে পরিণত হয়েছে। ফ্যাসিবাদী রাষ্ট্রে পরিণত করেছে এই সরকার।

তিনি আরও বলেন, ক্ষমতায় টিকে থাকতে সরকারকে আর কোনো সময় দেওয়া যায় না। এই সরকার এখন জাতির জন্য একটা বোঝা হয়ে দাঁড়িয়েছে। তাকে অবিলম্বে অপসারণ করতে হবে। এজন্য দেশের মানুষ জেগে উঠেছে। জেগে উঠেছে আমাদের তরুণ-যুবকরা। নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর করতে এই সরকারকে পদত্যাগে বাধ্য করতে হবে।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, প্রতিদিন এই স্বৈরাচার সরকারের পতন মিছিলে মানুষ বাড়ছে। আজকে সরকার এত ভয়াবহ রূপ নিয়েছে যে, তাদের পুলিশ ঘরে-ঘরে গিয়ে আমাদের নাম নিচ্ছে।

মির্জা ফখরুল বলেন, জনগণ এই সরকারের হাত থেকে দেশকে মুক্ত করতে চান, তাই তারা মিছিলে পুলিশের গুলিতে নিহত হয়েছে। আরও অসংখ্য মানুষ আহত হয়েছে। অসংখ্য মামলা হয়েছে। অনেক নেতা-কর্মীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তবুও আমাদের আন্দোলন থেমে থাকেনি।

Tag :
জনপ্রিয়

সামনে অস্তিত্ব রক্ষার লড়াই”যেকোনো মূল্যে সমাবেশ সফল করতে হবে: ফখরুল।

এই সরকার এখন জাতির জন্য একটা বোঝা হয়ে দাঁড়িয়েছে: মির্জা ফখরুল।

প্রকাশের সময় : ১২:০৮:৪৮ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৬ অক্টোবর ২০২২

সরকারের দুর্নীতির তথ্য দেশের মানুষের কাছে গোপন রাখতে ২৯ বিভাগে সার্কুলার জারি করেছে বলে দাবি করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

তিনি বলেন, দেশের মানুষ যেন সত্য ও সঠিক তথ্য জানতে না পারে, গণমাধ্যম যাতে সরকারের দুর্নীতির তথ্য প্রচার করতে না পারে এজন্য ২৯টি বিভাগ সার্কুলার দিয়েছে যে, তাদের কাছ থেকে কোনো তথ্য নেওয়া যাবে না, তারা কাউকে কোনো তথ্য দেবে না।

দলীয় কর্মসূচি পালনকালে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে নিহত কর্মীদের স্মরণে বৃহস্পতিবার (৬ অক্টোবর) বিকেলে নয়াপল্টন বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে শোক র‌্যালি করে দলটি। এ সময় সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে মির্জা ফখরুল এসব কথা বলেন।

নিজের স্বেচ্ছাচারিতা ঢেকে রাখার জন্য সরকার আজকে সমগ্র জাতিকে সঠিক খবর থেকে বঞ্চিত করে রাখতে চায় বলে দাবি করেন মির্জা ফখরুল। বলেন, দেশ এমন একটা কর্তৃত্ববাদী রাষ্ট্রে পরিণত হয়েছে। ফ্যাসিবাদী রাষ্ট্রে পরিণত করেছে এই সরকার।

তিনি আরও বলেন, ক্ষমতায় টিকে থাকতে সরকারকে আর কোনো সময় দেওয়া যায় না। এই সরকার এখন জাতির জন্য একটা বোঝা হয়ে দাঁড়িয়েছে। তাকে অবিলম্বে অপসারণ করতে হবে। এজন্য দেশের মানুষ জেগে উঠেছে। জেগে উঠেছে আমাদের তরুণ-যুবকরা। নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর করতে এই সরকারকে পদত্যাগে বাধ্য করতে হবে।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, প্রতিদিন এই স্বৈরাচার সরকারের পতন মিছিলে মানুষ বাড়ছে। আজকে সরকার এত ভয়াবহ রূপ নিয়েছে যে, তাদের পুলিশ ঘরে-ঘরে গিয়ে আমাদের নাম নিচ্ছে।

মির্জা ফখরুল বলেন, জনগণ এই সরকারের হাত থেকে দেশকে মুক্ত করতে চান, তাই তারা মিছিলে পুলিশের গুলিতে নিহত হয়েছে। আরও অসংখ্য মানুষ আহত হয়েছে। অসংখ্য মামলা হয়েছে। অনেক নেতা-কর্মীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তবুও আমাদের আন্দোলন থেমে থাকেনি।