ঢাকা ০১:১৪ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২২, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সংকটে আওয়ামী লীগের ৫ হেভিওয়েটের আসন

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আওয়ামী লীগের দ্বিতীয় ক্ষমতাধর ব্যক্তি। একাধারে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী এবং দলের সাধারণ সম্পাদক। কিন্তু তার নিজের আসনই টলটলায়মান। দলের অভ্যন্তরীণ কোন্দলের নির্মম শিকার তার জনপ্রিয়তা। নোয়াখালীর-৫ আসন থেকে পরপর তিনটি নির্বাচনে তিনি বিজয়ী হয়েছিলেন। ২০০৮ সালের নির্বাচনে তিনি প্রয়াত ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদকে হারিয়েছিলেন সামান্য ভোটের ব্যবধানে। কিন্তু এবারের নির্বাচনে বিএনপি নয়, তার প্রতিপক্ষ যেন আওয়ামী লীগ। নোয়াখালীর প্রভাবশালী নেতা একরাম চৌধুরী সাথে এখন তার প্রকাশ্য বিরোধ এবং কদিন আগে একরাম চৌধুরী সেখানে বড় ধরনের শোডাউনের করেছেন। অনেক আওয়ামী লীগের নেতা মনে করছেন, একরাম চৌধুরীর সাথে শেষ পর্যন্ত ওবায়দুল কাদেরের সমঝোতা না হলে এই আসন ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়বে। দলের সাধারণ সম্পাদকের নিয়ন্ত্রণে নেই নোয়াখালীর ৫ আসন। বরং নোয়াখালীর নিয়ন্ত্রক এখন একরাম চৌধুরী, এমন কথা বলেন অনেকে। যদিও ওবায়দুল কাদেরপন্থীরা মনে করছেন যে, এসব বক্তব্য অতিরঞ্জিত, একরাম চৌধুরীর প্রভাব আছে বটে তবে নোয়াখালী-৫ আসনে এখনও ওবায়দুল কাদের অপ্রতিদ্বন্দ্বী।

ডা. দীপু মনি: চাঁদপুর-৩ আসন থেকে ডা. দীপু মনি নির্বাচিত হয়েছেন। তিনিও ওবায়দুল কাদেরের মত ভাগ্যবান। একাধারে আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক এবং শিক্ষামন্ত্রী। দলের এই কেন্দ্রীয় নেতা জাতীয়ভাবে যত আলোচিত হন নিজের এলাকায় তিনি বেশ কোণঠাসা হয়ে পড়েছেন। একদিকে আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরীণ কোন্দল, অন্যদিকে তার ঘনিষ্ঠজনদের বাড়াবাড়ি রকমের অনিয়ম তাকে কোণঠাসা করে ফেলেছে। আগামী নির্বাচনে তার শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বী দাঁড়িয়ে গেছে খোদ আওয়ামী লীগে। এছাড়াও চাঁদপুরের আরও দুটি আসনের এমপিরাও যেন তার বিরুদ্ধে আদাজল খেয়ে লেগেছে। তাদের মূল লক্ষ্য হলো দীপু মনিকে কোণঠাসা করে ফেলা। এরকম একটি অভ্যন্তরীণ কোন্দলের মধ্যে আগামী নির্বাচনে তার অবস্থানও সংকটাপন্ন।

টিপু মুনশি: একসময় আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতা ছিলেন। এখন বাণিজ্যমন্ত্রীর মত গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রী। রংপুর-৪ আসন থেকে তিনি নির্বাচিত হয়েছেন। রংপুর জাতীয় পার্টি অধ্যুষিত এলাকা। আওয়ামী লীগ জাতীয় পার্টির সাথে মহাজোট করে সমঝোতার মাধ্যমে এই আসনগুলোতে জয়ী হয়। এবার জাতীয় পার্টি যদি শেষ পর্যন্ত আওয়ামী লীগের সঙ্গে ঐক্য না করে তাহলে টিপু মুনশির কি হবে, এ নিয়ে আওয়ামী লীগের মধ্যেই নানা রকম চিন্তাভাবনা চলছে। তাছাড়া টিপু মুনশির নেতৃত্বে সেখানের সংগঠনও দুর্বল হয়ে পড়েছে। ফলে আগামী নির্বাচনে জাতীয়ভাবে কি হবে না হবে সেটা পরের বিষয়, কিন্তু টিপু মুনশির আসনের জন্য তাকে জাতীয় পার্টির দিকে তাকিয়ে থাকতে হবে।

আ.ক.ম মোজাম্মেল হক: আ.ক.ম মোজাম্মেল হক বর্তমান মন্ত্রীসভায় প্রধানমন্ত্রীর পর জ্যেষ্ঠতম মন্ত্রী। মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক এই মন্ত্রী এক সময় এলাকায় ব্যাপক জনপ্রিয় ছিলেন। কিন্তু এখন গাজীপুর-১ আসন থেকে নির্বাচিত এই বর্ষীয়ান নেতা সংকটের মধ্যে রয়েছেন। গাজীপুর আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরীণ সংকটের ঢেউ এসে লেগেছে তার আসনেও। এখানে নানামুখী মেরুকরণ চলছে। আর একারণেই আ.ক.ম মোজাম্মেল হকের আসন সংকটাপন্ন বলে কোনো কোনো মহল মনে করছেন। তবে বিভিন্ন মহল বলছেন, সামনে যদি জাহাঙ্গীরকে ফিরিয়ে নিয়ে আসা হয় এবং শেষ পর্যন্ত আ.ক.ম মোজাম্মেল হকের সঙ্গে যদি সাবেক মেয়রের সমঝোতা হয় তাহলে এই আসনে আওয়ামী লীগের সংকট দূর হবে।

গোলাম দস্তগীর গাজী: গোলাম দস্তগীর গাজী নারায়ণগঞ্জ-১ আসন থেকে নির্বাচিত। তার নির্বাচনী এলাকায় সমস্যার অন্ত নেই। তার নিজস্ব লোকজনের বিরুদ্ধে অভিযোগও সীমাহীন। বিশেষ করে সরকারি ভূমি দখল, অন্যের ভূমি দখলসহ নানা অভিযোগে আক্রান্ত পাটমন্ত্রী। আগামী নির্বাচনে তিনি মনোনয়ন পাবেন কিনা, সেটি নিয়েই এখন সংশয় দেখা দিয়েছে বলে অনেকে মনে করছেন।

এরকম পাঁচজন হেভিওয়েট নেতার আসন যখন সংকটে তখন অন্যদের কি অবস্থা সে নিয়ে আওয়ামী লীগের মধ্যে নানামুখী আলোচনা চলছে।

Tag :
জনপ্রিয়

সামনে অস্তিত্ব রক্ষার লড়াই”যেকোনো মূল্যে সমাবেশ সফল করতে হবে: ফখরুল।

সংকটে আওয়ামী লীগের ৫ হেভিওয়েটের আসন

প্রকাশের সময় : ০৭:৫৬:২৮ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১ অক্টোবর ২০২২

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আওয়ামী লীগের দ্বিতীয় ক্ষমতাধর ব্যক্তি। একাধারে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী এবং দলের সাধারণ সম্পাদক। কিন্তু তার নিজের আসনই টলটলায়মান। দলের অভ্যন্তরীণ কোন্দলের নির্মম শিকার তার জনপ্রিয়তা। নোয়াখালীর-৫ আসন থেকে পরপর তিনটি নির্বাচনে তিনি বিজয়ী হয়েছিলেন। ২০০৮ সালের নির্বাচনে তিনি প্রয়াত ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদকে হারিয়েছিলেন সামান্য ভোটের ব্যবধানে। কিন্তু এবারের নির্বাচনে বিএনপি নয়, তার প্রতিপক্ষ যেন আওয়ামী লীগ। নোয়াখালীর প্রভাবশালী নেতা একরাম চৌধুরী সাথে এখন তার প্রকাশ্য বিরোধ এবং কদিন আগে একরাম চৌধুরী সেখানে বড় ধরনের শোডাউনের করেছেন। অনেক আওয়ামী লীগের নেতা মনে করছেন, একরাম চৌধুরীর সাথে শেষ পর্যন্ত ওবায়দুল কাদেরের সমঝোতা না হলে এই আসন ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়বে। দলের সাধারণ সম্পাদকের নিয়ন্ত্রণে নেই নোয়াখালীর ৫ আসন। বরং নোয়াখালীর নিয়ন্ত্রক এখন একরাম চৌধুরী, এমন কথা বলেন অনেকে। যদিও ওবায়দুল কাদেরপন্থীরা মনে করছেন যে, এসব বক্তব্য অতিরঞ্জিত, একরাম চৌধুরীর প্রভাব আছে বটে তবে নোয়াখালী-৫ আসনে এখনও ওবায়দুল কাদের অপ্রতিদ্বন্দ্বী।

ডা. দীপু মনি: চাঁদপুর-৩ আসন থেকে ডা. দীপু মনি নির্বাচিত হয়েছেন। তিনিও ওবায়দুল কাদেরের মত ভাগ্যবান। একাধারে আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক এবং শিক্ষামন্ত্রী। দলের এই কেন্দ্রীয় নেতা জাতীয়ভাবে যত আলোচিত হন নিজের এলাকায় তিনি বেশ কোণঠাসা হয়ে পড়েছেন। একদিকে আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরীণ কোন্দল, অন্যদিকে তার ঘনিষ্ঠজনদের বাড়াবাড়ি রকমের অনিয়ম তাকে কোণঠাসা করে ফেলেছে। আগামী নির্বাচনে তার শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বী দাঁড়িয়ে গেছে খোদ আওয়ামী লীগে। এছাড়াও চাঁদপুরের আরও দুটি আসনের এমপিরাও যেন তার বিরুদ্ধে আদাজল খেয়ে লেগেছে। তাদের মূল লক্ষ্য হলো দীপু মনিকে কোণঠাসা করে ফেলা। এরকম একটি অভ্যন্তরীণ কোন্দলের মধ্যে আগামী নির্বাচনে তার অবস্থানও সংকটাপন্ন।

টিপু মুনশি: একসময় আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতা ছিলেন। এখন বাণিজ্যমন্ত্রীর মত গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রী। রংপুর-৪ আসন থেকে তিনি নির্বাচিত হয়েছেন। রংপুর জাতীয় পার্টি অধ্যুষিত এলাকা। আওয়ামী লীগ জাতীয় পার্টির সাথে মহাজোট করে সমঝোতার মাধ্যমে এই আসনগুলোতে জয়ী হয়। এবার জাতীয় পার্টি যদি শেষ পর্যন্ত আওয়ামী লীগের সঙ্গে ঐক্য না করে তাহলে টিপু মুনশির কি হবে, এ নিয়ে আওয়ামী লীগের মধ্যেই নানা রকম চিন্তাভাবনা চলছে। তাছাড়া টিপু মুনশির নেতৃত্বে সেখানের সংগঠনও দুর্বল হয়ে পড়েছে। ফলে আগামী নির্বাচনে জাতীয়ভাবে কি হবে না হবে সেটা পরের বিষয়, কিন্তু টিপু মুনশির আসনের জন্য তাকে জাতীয় পার্টির দিকে তাকিয়ে থাকতে হবে।

আ.ক.ম মোজাম্মেল হক: আ.ক.ম মোজাম্মেল হক বর্তমান মন্ত্রীসভায় প্রধানমন্ত্রীর পর জ্যেষ্ঠতম মন্ত্রী। মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক এই মন্ত্রী এক সময় এলাকায় ব্যাপক জনপ্রিয় ছিলেন। কিন্তু এখন গাজীপুর-১ আসন থেকে নির্বাচিত এই বর্ষীয়ান নেতা সংকটের মধ্যে রয়েছেন। গাজীপুর আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরীণ সংকটের ঢেউ এসে লেগেছে তার আসনেও। এখানে নানামুখী মেরুকরণ চলছে। আর একারণেই আ.ক.ম মোজাম্মেল হকের আসন সংকটাপন্ন বলে কোনো কোনো মহল মনে করছেন। তবে বিভিন্ন মহল বলছেন, সামনে যদি জাহাঙ্গীরকে ফিরিয়ে নিয়ে আসা হয় এবং শেষ পর্যন্ত আ.ক.ম মোজাম্মেল হকের সঙ্গে যদি সাবেক মেয়রের সমঝোতা হয় তাহলে এই আসনে আওয়ামী লীগের সংকট দূর হবে।

গোলাম দস্তগীর গাজী: গোলাম দস্তগীর গাজী নারায়ণগঞ্জ-১ আসন থেকে নির্বাচিত। তার নির্বাচনী এলাকায় সমস্যার অন্ত নেই। তার নিজস্ব লোকজনের বিরুদ্ধে অভিযোগও সীমাহীন। বিশেষ করে সরকারি ভূমি দখল, অন্যের ভূমি দখলসহ নানা অভিযোগে আক্রান্ত পাটমন্ত্রী। আগামী নির্বাচনে তিনি মনোনয়ন পাবেন কিনা, সেটি নিয়েই এখন সংশয় দেখা দিয়েছে বলে অনেকে মনে করছেন।

এরকম পাঁচজন হেভিওয়েট নেতার আসন যখন সংকটে তখন অন্যদের কি অবস্থা সে নিয়ে আওয়ামী লীগের মধ্যে নানামুখী আলোচনা চলছে।