ঢাকা ০২:৪৫ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২২, ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

গহনার অ্যালার্জি

প্রাচীনকাল থেকেই সাজগোজের অন্যতম অনুষঙ্গ হিসেবে গহনাকেই প্রাধান্য দেন নারীরা। কোথাও গেলে হরেক ডিজাইনের, হরেক রঙের মেটাল, মাটি ইত্যাদির তৈরি গহনা তার কেনা চাই-ই চাই। কিন্তু মন্দ কপাল। শখ করে যে গহনাগুলো পরবে তার কোনো উপায় নেই। গহনা পরলেই অ্যালার্জির আক্রমণ। হাত, গলা, কান- যেখানেই গহনা পরুক চুলকানি তার হবেই। গহনায় যে অ্যালার্জি হয়, এতে অবাক হওয়ার কিছু নেই। এমন অনেক নারী আছেন এই অ্যালার্জির ভুক্তভোগী। একে নিকেল অ্যালার্জি বলা হয়। পিওর গোল্ড বা সিলভারের সঙ্গে নিকেল বা অন্যান্য ধাতু মিশিয়ে বা প্রলেপ দিয়ে এসব গহনা তৈরি করা হয়।

লক্ষণ
জুয়েলারি বা নিকেল অ্যালার্জি হলে জুয়েলারির সংস্পর্শ পাওয়া জায়গায় জুয়েলারি পরার সঙ্গে সঙ্গে না হলেও ১৫-২০ মিনিট পরে বা দুই-এক দিনের মধ্যে অ্যালার্জি হয়ে থাকে। সেখানে র‌্যাশ উঠে চুলকানি, পানি ফোঁটা বা ত্বক চাকা হয়ে ফুলে যেতে পারে। অনেক সময় ভয়াবহভাবে ইনফেকশন হতে পারে।

প্রতিকার
জুয়েলারি বা নিকেল অ্যালার্জি থেকে দূরে থাকতে ১৪ ক্যারেট বা এর চেয়ে বেশি ক্যারেটের সোনা ব্যবহার করতে পারেন। এগুলোতে সাধারণত মেটাল থাকে না। তাই আপনার ত্বকেরও সমস্যা হবে না। রোজ গোল্ড ব্যবহার না করাই ভালো। কারণ এতে নিকেল আছে। বেশিরভাগ নারীর ত্বকে গহনা অ্যালার্জির সূত্রপাত হয় যখন তারা কান বা নাক ফোঁড়ান। তাই নাক বা কান ফোঁড়ানোর পর নিকেলবিহীন গহনা বা সোনার গহনা পরতে চেষ্টা করুন। এত কিছুর পরেও যদি আপনি মেটালের গহনা পরতেই চান তবে অ্যালার্জি থেকে মুক্তি পাওয়া যায় এমন ক্রিম ব্যবহার করুন। গায়ে ক্রিম মেখে তারপর গহনা পরুন। মেটালের গহনা ছাড়াও কিন্তু সুন্দর সুন্দর গহনা পাওয়া যায়। মাটি, পুঁতি কিংবা কাপড়ের তৈরি গহনাও আজকাল বেশ ফ্যাশনেবল হিসেবে পরিচিত। তাই মেটালের গহনা আপনার ত্বকের খুব বেশি ক্ষতি করলে সেগুলো বাদ দিয়ে এসব গহনা পরতে পারেন।

Tag :
জনপ্রিয়

সাটুরিয়ায় নিয়োগ বাতিলের দাবীতে মানববন্ধন

গহনার অ্যালার্জি

প্রকাশের সময় : ০৭:১৪:০৯ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১ অক্টোবর ২০২২

প্রাচীনকাল থেকেই সাজগোজের অন্যতম অনুষঙ্গ হিসেবে গহনাকেই প্রাধান্য দেন নারীরা। কোথাও গেলে হরেক ডিজাইনের, হরেক রঙের মেটাল, মাটি ইত্যাদির তৈরি গহনা তার কেনা চাই-ই চাই। কিন্তু মন্দ কপাল। শখ করে যে গহনাগুলো পরবে তার কোনো উপায় নেই। গহনা পরলেই অ্যালার্জির আক্রমণ। হাত, গলা, কান- যেখানেই গহনা পরুক চুলকানি তার হবেই। গহনায় যে অ্যালার্জি হয়, এতে অবাক হওয়ার কিছু নেই। এমন অনেক নারী আছেন এই অ্যালার্জির ভুক্তভোগী। একে নিকেল অ্যালার্জি বলা হয়। পিওর গোল্ড বা সিলভারের সঙ্গে নিকেল বা অন্যান্য ধাতু মিশিয়ে বা প্রলেপ দিয়ে এসব গহনা তৈরি করা হয়।

লক্ষণ
জুয়েলারি বা নিকেল অ্যালার্জি হলে জুয়েলারির সংস্পর্শ পাওয়া জায়গায় জুয়েলারি পরার সঙ্গে সঙ্গে না হলেও ১৫-২০ মিনিট পরে বা দুই-এক দিনের মধ্যে অ্যালার্জি হয়ে থাকে। সেখানে র‌্যাশ উঠে চুলকানি, পানি ফোঁটা বা ত্বক চাকা হয়ে ফুলে যেতে পারে। অনেক সময় ভয়াবহভাবে ইনফেকশন হতে পারে।

প্রতিকার
জুয়েলারি বা নিকেল অ্যালার্জি থেকে দূরে থাকতে ১৪ ক্যারেট বা এর চেয়ে বেশি ক্যারেটের সোনা ব্যবহার করতে পারেন। এগুলোতে সাধারণত মেটাল থাকে না। তাই আপনার ত্বকেরও সমস্যা হবে না। রোজ গোল্ড ব্যবহার না করাই ভালো। কারণ এতে নিকেল আছে। বেশিরভাগ নারীর ত্বকে গহনা অ্যালার্জির সূত্রপাত হয় যখন তারা কান বা নাক ফোঁড়ান। তাই নাক বা কান ফোঁড়ানোর পর নিকেলবিহীন গহনা বা সোনার গহনা পরতে চেষ্টা করুন। এত কিছুর পরেও যদি আপনি মেটালের গহনা পরতেই চান তবে অ্যালার্জি থেকে মুক্তি পাওয়া যায় এমন ক্রিম ব্যবহার করুন। গায়ে ক্রিম মেখে তারপর গহনা পরুন। মেটালের গহনা ছাড়াও কিন্তু সুন্দর সুন্দর গহনা পাওয়া যায়। মাটি, পুঁতি কিংবা কাপড়ের তৈরি গহনাও আজকাল বেশ ফ্যাশনেবল হিসেবে পরিচিত। তাই মেটালের গহনা আপনার ত্বকের খুব বেশি ক্ষতি করলে সেগুলো বাদ দিয়ে এসব গহনা পরতে পারেন।