ঢাকা ০২:৪৪ অপরাহ্ন, রবিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২২, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সিঙ্গাইরে পুলিশের অভিযানে ৭ডাকাত গ্রেপ্তার

একটি ডাকাতির ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে ৭ ডাকাতকে গ্রেফতার করেছে মানিকগঞ্জের সিঙ্গাইর থানা পুলিশ।

গত বুধবার ও বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে সাভারের আশুলিয়া ও সিঙ্গাইর উপজেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে এসব ডাকাত গ্রেফতার করা হয়।

শুক্রবার (৩০ সেপ্টেম্বর) দুপুরে এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে স্থানীয় গণমাধ্যমকর্মীদের এই তথ্য জানান থানার পুলিশ পরিদর্শক (ওসি) সফিকুল ইসলাম মোল্লা।

গ্রেফতারকৃত ডাকাতরা হলো-সিঙ্গাইর উপজেলার খৈয়ামুরি গ্রামের সোনা মিয়ার ছেলে মহিদুর ওরফে শামীম (৩০), একই উপজেলার সোনাটেংরা গ্রামের আদম আলীর ছেলে মো. মোশারফ মোল্লা ওরফে মোসা (২৭), ওয়াইজনগর গ্রামের মৃত সাদেক খানের ছেলে মো. কুদ্দুস খা (৫০), বকচর গ্রামের তমেজ উদ্দিনের ছেলে ইসমাইল দেওয়ান (২৮), ঢাকার সাভার উপজেলার চকবাড়ি গ্রামের মেজবানের ছেলে মো. আরমান (৩৫), ব্রাহ্মবাড়ীয়া জেলার নবীনগর উপজেলার ছলিমগঞ্জ বাড়াইল গ্রামের মৃত ইদন মিয়ার ছেলে মো. মোমেন মিয়া (২৮) ও ঝালকাঠি গ্রামের রাজাপুর উপজেলার সাংগুর গ্রামের মৃত আজাহার সরদারের ছেলে মো. মিরাজ সরদার (৩৬)।

প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে ওসি সফিকুল ইসলাম মোল্যা আরো জানান, গত ২২ সেপ্টেম্বর রাতে সিঙ্গাইর উপজেলার গোবিন্দল গ্রামের মহিবুর রহমান, আঃ কাদের, আবু ছাহেদ ও আবু জরের বাড়িতে ডাকাতি হয়। ডাকাতরা নগদ টাকা, স্বর্ণালংকার ও তিনটি মুঠোফোন সেটসহ মোট ৬ লক্ষাধিক টাকার মালামাল লুট করে নিয়ে যায়।

এঘটনায় ওই দিনই অজ্ঞাত পরিচয়ের ১০-১২ জনকে আসামি করে থানায় একটি ডাকাতি মামলা করেন মহিবুর রহমান। এই মামলার ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে মহিদুর ওরফে শামীমকে গ্রেফতার করে ২৯ সেপ্টেম্বর আদালতে পাঠায় পুলিশ।

মহিদুর ওই ডাকাতির ঘটনার সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। সেই সঙ্গে সে ডাকাতির সাথে জড়িত তার আরো ৮ সহযোগীর নাম প্রকাশ করে। তার দেওয়া তথ্যমতে এদের মধ্যে ৬ ডাকাতকে গ্রেফতার করা হয়। তাদের কাছ থেকে উদ্ধার করা হয় নগদ টাকাসহ লুন্ঠিত মালামালের কিছু অংশ।

থানার পুলিশ পরিদর্শক (ওসি) সফিকুল ইসলাম মোল্যা বলেন, গ্রেফতারকৃত ডাকাতদের বিরুদ্ধে দেশের বিভিন্ন থানায় একাধিক মামলা রয়েছে। ১০ দিনের রিমা- চেয়ে তাদের শুক্রবার দুপুরে আদালতে পাঠানো হয়। অন্যান্য চোর-ডাকাতদের ধরতে সাড়াশি অভিযান চলছে বলে জানান তিনি।

Tag :
জনপ্রিয়

গোমস্তাপুরে অধ্যক্ষের অফিস ভাংচুর আহত-৪

সিঙ্গাইরে পুলিশের অভিযানে ৭ডাকাত গ্রেপ্তার

প্রকাশের সময় : ০১:৫৮:১৬ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২

একটি ডাকাতির ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে ৭ ডাকাতকে গ্রেফতার করেছে মানিকগঞ্জের সিঙ্গাইর থানা পুলিশ।

গত বুধবার ও বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে সাভারের আশুলিয়া ও সিঙ্গাইর উপজেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে এসব ডাকাত গ্রেফতার করা হয়।

শুক্রবার (৩০ সেপ্টেম্বর) দুপুরে এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে স্থানীয় গণমাধ্যমকর্মীদের এই তথ্য জানান থানার পুলিশ পরিদর্শক (ওসি) সফিকুল ইসলাম মোল্লা।

গ্রেফতারকৃত ডাকাতরা হলো-সিঙ্গাইর উপজেলার খৈয়ামুরি গ্রামের সোনা মিয়ার ছেলে মহিদুর ওরফে শামীম (৩০), একই উপজেলার সোনাটেংরা গ্রামের আদম আলীর ছেলে মো. মোশারফ মোল্লা ওরফে মোসা (২৭), ওয়াইজনগর গ্রামের মৃত সাদেক খানের ছেলে মো. কুদ্দুস খা (৫০), বকচর গ্রামের তমেজ উদ্দিনের ছেলে ইসমাইল দেওয়ান (২৮), ঢাকার সাভার উপজেলার চকবাড়ি গ্রামের মেজবানের ছেলে মো. আরমান (৩৫), ব্রাহ্মবাড়ীয়া জেলার নবীনগর উপজেলার ছলিমগঞ্জ বাড়াইল গ্রামের মৃত ইদন মিয়ার ছেলে মো. মোমেন মিয়া (২৮) ও ঝালকাঠি গ্রামের রাজাপুর উপজেলার সাংগুর গ্রামের মৃত আজাহার সরদারের ছেলে মো. মিরাজ সরদার (৩৬)।

প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে ওসি সফিকুল ইসলাম মোল্যা আরো জানান, গত ২২ সেপ্টেম্বর রাতে সিঙ্গাইর উপজেলার গোবিন্দল গ্রামের মহিবুর রহমান, আঃ কাদের, আবু ছাহেদ ও আবু জরের বাড়িতে ডাকাতি হয়। ডাকাতরা নগদ টাকা, স্বর্ণালংকার ও তিনটি মুঠোফোন সেটসহ মোট ৬ লক্ষাধিক টাকার মালামাল লুট করে নিয়ে যায়।

এঘটনায় ওই দিনই অজ্ঞাত পরিচয়ের ১০-১২ জনকে আসামি করে থানায় একটি ডাকাতি মামলা করেন মহিবুর রহমান। এই মামলার ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে মহিদুর ওরফে শামীমকে গ্রেফতার করে ২৯ সেপ্টেম্বর আদালতে পাঠায় পুলিশ।

মহিদুর ওই ডাকাতির ঘটনার সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। সেই সঙ্গে সে ডাকাতির সাথে জড়িত তার আরো ৮ সহযোগীর নাম প্রকাশ করে। তার দেওয়া তথ্যমতে এদের মধ্যে ৬ ডাকাতকে গ্রেফতার করা হয়। তাদের কাছ থেকে উদ্ধার করা হয় নগদ টাকাসহ লুন্ঠিত মালামালের কিছু অংশ।

থানার পুলিশ পরিদর্শক (ওসি) সফিকুল ইসলাম মোল্যা বলেন, গ্রেফতারকৃত ডাকাতদের বিরুদ্ধে দেশের বিভিন্ন থানায় একাধিক মামলা রয়েছে। ১০ দিনের রিমা- চেয়ে তাদের শুক্রবার দুপুরে আদালতে পাঠানো হয়। অন্যান্য চোর-ডাকাতদের ধরতে সাড়াশি অভিযান চলছে বলে জানান তিনি।