ঢাকা ০৩:৫১ অপরাহ্ন, রবিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২২, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মাওলানা মামুনুল হকের মুক্তি চেয়েছেন আলেমরা।

শায়খুল হাদিস আল্লামা আজিজুল হকের স্মরণসভায় তার ছেলে মাওলানা মামুনুল হকের মুক্তি চেয়েছেন আলেমরা।

শুক্রবার (৩০ সেপ্টেম্বর) দুপুরে রাজধানীর গুলিস্তানে কাজি বশির উদ্দিন মিলনায়তনে ‘শাইখুল হাদীস আল্লামা আজিজুল হকের জীবন ও কর্ম’ শীর্ষক আলোচনা সভায় এ দাবি করা হয়। সভার আয়োজন করে শাইখুল হাদীস পরিষদ।

অনুষ্ঠানে খেলাফত মজলিসের মহাসচিব আহমদ আব্দুল কাদের বলেন, ‘শাইখুল হাদিস বলতে বাংলাদেশে একমাত্র শাইখুল হাদিস আল্লামা আজিজুল হককেই বোঝায়। তার জীবনের খেদমতের জন্য যেন আল্লাহ তাকে বেহেশত নসিব করে। বর্তমান পরিস্থিতিতে তার মতো মানুষের প্রয়োজন হচ্ছে। আমরা যদি এক হতে পারি তাহলে কোনো বাধাই আমাদের বাধা হতে পারে না। আসুন আমরা এক হই।

ইত্তেফাকুল উলামা বৃহত্তর মোমেনশাহির সেক্রেটারি হযরত মাওলানা মুহিব্বুল্লাহ বলেন, আমি আজ কিছু কথা ইঙ্গিতে বলতে চাই। আপনারা যারা বুদ্ধিমান আছেন তারা বুঝবেন। শাইখুল হাদীসের ওপর যে ঝড় এসেছে তা উপেক্ষা করে শাইখুল হাদীস এখন অনেক শক্ত অবস্থানে আছে। শাইখুল হাদীস কখনও কোনো অন্যায়ের সাথে আপস করেননি। আমরা যারা তার অনুসারী আছি আমরাও তা করব না।

ইসলামী বক্তা আবুল হাসানাত বলেন, শায়খুল হাদিস আল্লামা আজিজুল হক যেমন বারবার কারাবরণ করেছেন, তেমনি মামুনুল হককেও বার বার কারাগারে যেতে হচ্ছে। অন্তরে কষ্ট নিয়ে আমরা দিনাতিপাত করছি। এ অবস্থা থেকে উত্তরনের জন্য সরকার যেন দ্রুত মামুনুল হককে মুক্তি দেন।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ কওমী মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডের (বেফাক) মহাসচিব মাওলানা মাহফুজুল হক।

অনুষ্ঠানের শুরুতে কুরআন তেলাওয়াত করেন হাফেজ নাহিদুর রহমান এবং স্বাগত বক্তব্য রাখেন মাওলানা তাফাজুল হক আজিজ।

আলোচনায় অংশ নেন- হেফাজত আমীর আল্লামা মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী (প্রতিনিধির মাধ্যমে বক্তব্য), বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মাওলানা জালালুদ্দীন আহমাদ, বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের নায়েবে আমীর মাওলানা রেজাউল করীম জালালী, হাটহাজারী মাদরাসার মহাপরিচালক আল্লামা ইয়াহইয়া, জমিয়তে উলামা ইসলামের সভাপতি জিয়া উদ্দিন, খেলাফত মজলিসের মহাসচিব, ড. আহমদ আব্দুল কাদের, খেলাফত আন্দোলনের আমীর আতাউল্লাহ হাফেজ্জী, মধুপুরের পীর সাহেব আব্দুল হামিদ, হেফাজতে ইসলামের মহাসচিব মাওলানা সাজিদুর রহমান প্রমুখ।

Tag :
জনপ্রিয়

আগামী বছর থেকে বিদ্যুৎ সংকট অনেকটাই কেটে যাবে: জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী।

মাওলানা মামুনুল হকের মুক্তি চেয়েছেন আলেমরা।

প্রকাশের সময় : ০৮:৩৬:১০ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২

শায়খুল হাদিস আল্লামা আজিজুল হকের স্মরণসভায় তার ছেলে মাওলানা মামুনুল হকের মুক্তি চেয়েছেন আলেমরা।

শুক্রবার (৩০ সেপ্টেম্বর) দুপুরে রাজধানীর গুলিস্তানে কাজি বশির উদ্দিন মিলনায়তনে ‘শাইখুল হাদীস আল্লামা আজিজুল হকের জীবন ও কর্ম’ শীর্ষক আলোচনা সভায় এ দাবি করা হয়। সভার আয়োজন করে শাইখুল হাদীস পরিষদ।

অনুষ্ঠানে খেলাফত মজলিসের মহাসচিব আহমদ আব্দুল কাদের বলেন, ‘শাইখুল হাদিস বলতে বাংলাদেশে একমাত্র শাইখুল হাদিস আল্লামা আজিজুল হককেই বোঝায়। তার জীবনের খেদমতের জন্য যেন আল্লাহ তাকে বেহেশত নসিব করে। বর্তমান পরিস্থিতিতে তার মতো মানুষের প্রয়োজন হচ্ছে। আমরা যদি এক হতে পারি তাহলে কোনো বাধাই আমাদের বাধা হতে পারে না। আসুন আমরা এক হই।

ইত্তেফাকুল উলামা বৃহত্তর মোমেনশাহির সেক্রেটারি হযরত মাওলানা মুহিব্বুল্লাহ বলেন, আমি আজ কিছু কথা ইঙ্গিতে বলতে চাই। আপনারা যারা বুদ্ধিমান আছেন তারা বুঝবেন। শাইখুল হাদীসের ওপর যে ঝড় এসেছে তা উপেক্ষা করে শাইখুল হাদীস এখন অনেক শক্ত অবস্থানে আছে। শাইখুল হাদীস কখনও কোনো অন্যায়ের সাথে আপস করেননি। আমরা যারা তার অনুসারী আছি আমরাও তা করব না।

ইসলামী বক্তা আবুল হাসানাত বলেন, শায়খুল হাদিস আল্লামা আজিজুল হক যেমন বারবার কারাবরণ করেছেন, তেমনি মামুনুল হককেও বার বার কারাগারে যেতে হচ্ছে। অন্তরে কষ্ট নিয়ে আমরা দিনাতিপাত করছি। এ অবস্থা থেকে উত্তরনের জন্য সরকার যেন দ্রুত মামুনুল হককে মুক্তি দেন।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ কওমী মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডের (বেফাক) মহাসচিব মাওলানা মাহফুজুল হক।

অনুষ্ঠানের শুরুতে কুরআন তেলাওয়াত করেন হাফেজ নাহিদুর রহমান এবং স্বাগত বক্তব্য রাখেন মাওলানা তাফাজুল হক আজিজ।

আলোচনায় অংশ নেন- হেফাজত আমীর আল্লামা মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী (প্রতিনিধির মাধ্যমে বক্তব্য), বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মাওলানা জালালুদ্দীন আহমাদ, বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের নায়েবে আমীর মাওলানা রেজাউল করীম জালালী, হাটহাজারী মাদরাসার মহাপরিচালক আল্লামা ইয়াহইয়া, জমিয়তে উলামা ইসলামের সভাপতি জিয়া উদ্দিন, খেলাফত মজলিসের মহাসচিব, ড. আহমদ আব্দুল কাদের, খেলাফত আন্দোলনের আমীর আতাউল্লাহ হাফেজ্জী, মধুপুরের পীর সাহেব আব্দুল হামিদ, হেফাজতে ইসলামের মহাসচিব মাওলানা সাজিদুর রহমান প্রমুখ।