ঢাকা ০২:০৬ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২২, ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বৃদ্ধাশ্রমে গিয়ে গান গাইলেন মমতা

দুর্গাপূজার আমেজে সমগ্র ভারত। গলিতে গলিতে ঢাকের শব্দ। জনপ্রতিনিধি থেকে শুরু করে রাজনৈতিক নেতারা ব্যস্ত পূজার মণ্ডপ উদ্বোধনে। এসব কিছুর মধ্যেই বৃদ্ধাশ্রমে গিয়ে সেখানে থাকা প্রবীণদের দুর্গাপূজার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

জানা গেছে পূজার চতুর্থীতে চেতলার নবনীড় বৃদ্ধাশ্রমে যান পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী। সেখানে থাকা প্রবীণদের সঙ্গে বেশ কিছুক্ষণ সময় কাটান তিনি। তাদের হাতে তুলে দেন পূজার উপহার। এরপর সবাই যখন মহালয়ার গান গাচ্ছিলেন, তখন সেই গানে গলা মেলান মুখ্যমন্ত্রীও।

এসময় মমতার সঙ্গে ছিলেন রাজ্যের দুই মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম ও ইন্দ্রনীল রায়।

শুধুমাত্র দুর্গাপূজা নয়, বছরের বিভিন্ন সময়ে নবনীড়ের প্রবীণদের খোঁজ নেন মমতা। কোভিডের সময়ে এই বৃদ্ধাশ্রমের ভেতর অঞ্জলি দেওয়ারও ব্যবস্থা করেছিলেন তিনি।

প্রতিবছরের মতো এবারও চেতলা অগ্রণীতে দেবীর চক্ষুদান করেন মমতা। এরপর তৃতীয়াতে নিউ আলিপুরের সুরুচি সংঘে ঢাক বাজান তিনি। সঙ্গে মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিমও। কাঁসরে সঙ্গত করেন রাজ্যের আরেক মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস।

Tag :
জনপ্রিয়

সাটুরিয়ায় নিয়োগ বাতিলের দাবীতে মানববন্ধন

বৃদ্ধাশ্রমে গিয়ে গান গাইলেন মমতা

প্রকাশের সময় : ০৩:১০:২৯ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২

দুর্গাপূজার আমেজে সমগ্র ভারত। গলিতে গলিতে ঢাকের শব্দ। জনপ্রতিনিধি থেকে শুরু করে রাজনৈতিক নেতারা ব্যস্ত পূজার মণ্ডপ উদ্বোধনে। এসব কিছুর মধ্যেই বৃদ্ধাশ্রমে গিয়ে সেখানে থাকা প্রবীণদের দুর্গাপূজার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

জানা গেছে পূজার চতুর্থীতে চেতলার নবনীড় বৃদ্ধাশ্রমে যান পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী। সেখানে থাকা প্রবীণদের সঙ্গে বেশ কিছুক্ষণ সময় কাটান তিনি। তাদের হাতে তুলে দেন পূজার উপহার। এরপর সবাই যখন মহালয়ার গান গাচ্ছিলেন, তখন সেই গানে গলা মেলান মুখ্যমন্ত্রীও।

এসময় মমতার সঙ্গে ছিলেন রাজ্যের দুই মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম ও ইন্দ্রনীল রায়।

শুধুমাত্র দুর্গাপূজা নয়, বছরের বিভিন্ন সময়ে নবনীড়ের প্রবীণদের খোঁজ নেন মমতা। কোভিডের সময়ে এই বৃদ্ধাশ্রমের ভেতর অঞ্জলি দেওয়ারও ব্যবস্থা করেছিলেন তিনি।

প্রতিবছরের মতো এবারও চেতলা অগ্রণীতে দেবীর চক্ষুদান করেন মমতা। এরপর তৃতীয়াতে নিউ আলিপুরের সুরুচি সংঘে ঢাক বাজান তিনি। সঙ্গে মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিমও। কাঁসরে সঙ্গত করেন রাজ্যের আরেক মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস।