ঢাকা ১১:৪৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২২, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

এসএসসির প্রশ্নপত্র ফাঁস, প্রধান শিক্ষক রিমান্ডে

চলমান এসএসসি পরীক্ষার দিনাজপুর বোর্ডের অধীন কুড়িগ্রামের ভূরুঙ্গামারীতে ছয় বিষয়ের প্রশ্নফাঁসের ঘটনায় নেহাল উদ্দিন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও কেন্দ্র সচিব লুৎফর রহমানের তিনদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে আদালত।

বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় কুড়িগ্রাম চীফ জুডিশিয়াল কোর্টের ভুরুঙ্গামারী আমলী আদালতের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. সুমন আলী শুনানি শেষে তার রিমান্ড মঞ্জুর করেন। ছাড়া, বাকি পাঁচ আসামির মধ্যে দুই আসামির রিমান্ড আবেদন করলে আদালত ২ অক্টোবর শুনানির দিন ধার্য করেন।

এ মামলার আসামিরা হলেনÍ কেন্দ্র সচিব ও প্রধান শিক্ষক মো. লুৎফর রহমান, সহকারী শিক্ষক আমিনুল ইসলাম রাসেল, জোবায়ের হোসেন, সোহেল রানা, হামিদুর রহমান, অফিস সহায়ক সুজন মিয়া। মামলার এজাহারভুক্ত আসামি অফিস সহকারী আবু হানিফ পলাতক রয়েছেন।

এ ঘটনায় গত ২১ সেপ্টেম্বর প্রধান শিক্ষকসহ তিন শিক্ষক গ্রেফতার করা হয়। পরের দিন আরও দুই শিক্ষক এবং এক কর্মচারীকে গ্রেফতার করে জেলে পাঠানো হয়। গ্রেফতার হওয়া শিক্ষক ও কর্মচারীকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে বিদ্যালয় ব্যবস্থাপনা কমিটি। একই ঘটনায় পরীক্ষা নিয়ন্ত্রণের দায়িত্বে থাকা উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আব্দুর রহমানকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা দীপক কুমার দেব শর্মাকে শোকজ করেছে জেলা প্রশাসন। ঘটনার মাঠ পর্যায়ে তদন্ত করেছে দিনাজপুর শিক্ষাবোর্ডের তদন্ত দল।

Tag :
জনপ্রিয়

সামনে অস্তিত্ব রক্ষার লড়াই”যেকোনো মূল্যে সমাবেশ সফল করতে হবে: ফখরুল।

এসএসসির প্রশ্নপত্র ফাঁস, প্রধান শিক্ষক রিমান্ডে

প্রকাশের সময় : ১০:১৩:৫৪ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২

চলমান এসএসসি পরীক্ষার দিনাজপুর বোর্ডের অধীন কুড়িগ্রামের ভূরুঙ্গামারীতে ছয় বিষয়ের প্রশ্নফাঁসের ঘটনায় নেহাল উদ্দিন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও কেন্দ্র সচিব লুৎফর রহমানের তিনদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে আদালত।

বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় কুড়িগ্রাম চীফ জুডিশিয়াল কোর্টের ভুরুঙ্গামারী আমলী আদালতের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. সুমন আলী শুনানি শেষে তার রিমান্ড মঞ্জুর করেন। ছাড়া, বাকি পাঁচ আসামির মধ্যে দুই আসামির রিমান্ড আবেদন করলে আদালত ২ অক্টোবর শুনানির দিন ধার্য করেন।

এ মামলার আসামিরা হলেনÍ কেন্দ্র সচিব ও প্রধান শিক্ষক মো. লুৎফর রহমান, সহকারী শিক্ষক আমিনুল ইসলাম রাসেল, জোবায়ের হোসেন, সোহেল রানা, হামিদুর রহমান, অফিস সহায়ক সুজন মিয়া। মামলার এজাহারভুক্ত আসামি অফিস সহকারী আবু হানিফ পলাতক রয়েছেন।

এ ঘটনায় গত ২১ সেপ্টেম্বর প্রধান শিক্ষকসহ তিন শিক্ষক গ্রেফতার করা হয়। পরের দিন আরও দুই শিক্ষক এবং এক কর্মচারীকে গ্রেফতার করে জেলে পাঠানো হয়। গ্রেফতার হওয়া শিক্ষক ও কর্মচারীকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে বিদ্যালয় ব্যবস্থাপনা কমিটি। একই ঘটনায় পরীক্ষা নিয়ন্ত্রণের দায়িত্বে থাকা উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আব্দুর রহমানকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা দীপক কুমার দেব শর্মাকে শোকজ করেছে জেলা প্রশাসন। ঘটনার মাঠ পর্যায়ে তদন্ত করেছে দিনাজপুর শিক্ষাবোর্ডের তদন্ত দল।