ঢাকা ০৮:০৭ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৮ নভেম্বর ২০২২, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ভূঞাপুরে অবৈধ বালু উত্তোলন বন্ধের দাবিতে মানববন্ধন

টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে যমুনা নদীর তীর ভাঙন রক্ষা বাঁধের নিচ থেকে বালু উত্তোলন বন্ধের দাবিতে মানববন্ধন করেছে এলাকাবাসী। বুধবার (২৮ সেপ্টেম্বর) দুপুরে উপজেলার তাড়াই গ্রামে যমুনা নদী তীরে এ মানববন্ধন করা হয়।

মানববন্ধনে বক্তারা অভিযোগ করে বলেন, ইউপি চেয়ারম্যান সাইদুল ইসলাম তালুকদার দুদু ও অর্জুনা গ্রামের ইকো মিয়া তাদের লোকজন নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে ৫/৭টি ড্রেজার বসিয়ে কুঠিবয়ড়া বাজার থেকে রায়ের বাশালিয়া গ্রাম রক্ষা বাঁধের নিচ থেকে বালু উত্তোলন করছে। এলাকাবাসী বাঁধা দিলে তার সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে ভয়ভীতি দেখিয়ে জোর পূর্বক বালু উত্তোলন করে বিক্রি করে আসছে।

তারা আরও বলেন, সরকার কোটি কোটি টাকা খরচ করে ভাঙন রক্ষার জন্য বাঁধ নির্মান করেছে অথচ বালুখেকো সন্ত্রাসীরা এ বাঁধ ঘেষে ড্রেজার বসিয়ে বালু উত্তোলন করে বিক্রি করছে। এতে তীর রক্ষা গাইড বাঁধ, কুঠিবয়ড়া বাজার, গাড়াবাড়ী, তাড়াই, বলরামপুর ও রায়ের বাশালিয়া গ্রামের প্রায় তিন হাজার পরিবার হুমকির মুখে পড়েছে। তাছাড়া আগামী বন্যা মৌসুমে এ বাঁধ ভাঙলে হুমকির মুখে পড়বে ৪টি গ্রামের ২টি উচ্চ বিদ্যালয়, ৩টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ৫টি মসজিদ, ৩টি কবরস্থান, ১টি মাদ্রাসা, ১টি মন্দির ও ১টি গুচ্চগ্রাম। প্রশাসনের কাছে আমাদের দাবী দ্রুত এসব ড্রেজার সরিয়ে দিয়ে আমাদের এলাকা ভাঙনের হাত থেকে মুক্ত করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করার অনুরোধ জানাচ্ছি।

মানববন্ধনে অংশ নেন স্থানীয় ডা. মোহাম্মদ ফজলুর রহমান, শরিফ উল্লাহ শরিফ, হায়দার আলী, তোজাম্মেল হোসেন, আব্দুর রাজ্জাক, রাজু মিয়া, বিপ্লব হোসেন সহ কয়েকটি গ্রামের হাজার হাজার লোকজনসহ স্কুল পড়ুয়া শিক্ষার্থীরা।

এ প্রসঙ্গে ইউপি চেয়ারম্যান সাইদুল ইসলাম তালুকদার দুদু বলেন, ইজারাকৃত বালু মহল থেকে আমরা বালু উত্তোলন করছি এবং পানি শুকিয়ে যাওয়ায় ড্রেজারগুলো সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। একটি মহল ষড়যন্ত্র করছে।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোছা: ইশরাত জাহান বলেন, অবৈধভাবে বালু উত্তোলন বন্ধে সব সময় নজরদারি রয়েছে। ফসলি জমি কেটে বালু বিক্রির বিষয়ে কেউ অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Tag :
জনপ্রিয়

নির্বাচিত হলে ১৩নং ওয়ার্ড বাসীর জন্য এ্যাম্বুলেন্স উপহার দিব; রসিকের কাউন্সিলর প্রার্থী তুহিন

ভূঞাপুরে অবৈধ বালু উত্তোলন বন্ধের দাবিতে মানববন্ধন

প্রকাশের সময় : ০২:৩১:৩৩ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২

টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে যমুনা নদীর তীর ভাঙন রক্ষা বাঁধের নিচ থেকে বালু উত্তোলন বন্ধের দাবিতে মানববন্ধন করেছে এলাকাবাসী। বুধবার (২৮ সেপ্টেম্বর) দুপুরে উপজেলার তাড়াই গ্রামে যমুনা নদী তীরে এ মানববন্ধন করা হয়।

মানববন্ধনে বক্তারা অভিযোগ করে বলেন, ইউপি চেয়ারম্যান সাইদুল ইসলাম তালুকদার দুদু ও অর্জুনা গ্রামের ইকো মিয়া তাদের লোকজন নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে ৫/৭টি ড্রেজার বসিয়ে কুঠিবয়ড়া বাজার থেকে রায়ের বাশালিয়া গ্রাম রক্ষা বাঁধের নিচ থেকে বালু উত্তোলন করছে। এলাকাবাসী বাঁধা দিলে তার সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে ভয়ভীতি দেখিয়ে জোর পূর্বক বালু উত্তোলন করে বিক্রি করে আসছে।

তারা আরও বলেন, সরকার কোটি কোটি টাকা খরচ করে ভাঙন রক্ষার জন্য বাঁধ নির্মান করেছে অথচ বালুখেকো সন্ত্রাসীরা এ বাঁধ ঘেষে ড্রেজার বসিয়ে বালু উত্তোলন করে বিক্রি করছে। এতে তীর রক্ষা গাইড বাঁধ, কুঠিবয়ড়া বাজার, গাড়াবাড়ী, তাড়াই, বলরামপুর ও রায়ের বাশালিয়া গ্রামের প্রায় তিন হাজার পরিবার হুমকির মুখে পড়েছে। তাছাড়া আগামী বন্যা মৌসুমে এ বাঁধ ভাঙলে হুমকির মুখে পড়বে ৪টি গ্রামের ২টি উচ্চ বিদ্যালয়, ৩টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ৫টি মসজিদ, ৩টি কবরস্থান, ১টি মাদ্রাসা, ১টি মন্দির ও ১টি গুচ্চগ্রাম। প্রশাসনের কাছে আমাদের দাবী দ্রুত এসব ড্রেজার সরিয়ে দিয়ে আমাদের এলাকা ভাঙনের হাত থেকে মুক্ত করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করার অনুরোধ জানাচ্ছি।

মানববন্ধনে অংশ নেন স্থানীয় ডা. মোহাম্মদ ফজলুর রহমান, শরিফ উল্লাহ শরিফ, হায়দার আলী, তোজাম্মেল হোসেন, আব্দুর রাজ্জাক, রাজু মিয়া, বিপ্লব হোসেন সহ কয়েকটি গ্রামের হাজার হাজার লোকজনসহ স্কুল পড়ুয়া শিক্ষার্থীরা।

এ প্রসঙ্গে ইউপি চেয়ারম্যান সাইদুল ইসলাম তালুকদার দুদু বলেন, ইজারাকৃত বালু মহল থেকে আমরা বালু উত্তোলন করছি এবং পানি শুকিয়ে যাওয়ায় ড্রেজারগুলো সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। একটি মহল ষড়যন্ত্র করছে।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোছা: ইশরাত জাহান বলেন, অবৈধভাবে বালু উত্তোলন বন্ধে সব সময় নজরদারি রয়েছে। ফসলি জমি কেটে বালু বিক্রির বিষয়ে কেউ অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।