ঢাকা ০৩:৪৩ অপরাহ্ন, রবিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২২, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ভিয়েতনামে আঘাত হেনেছে টাইফুন নোরু

ভিয়েতনামের কেন্দ্রীয় উপকূলে প্রবেশ করেছে টাইফুন নোরু। বুধবার ভোরে উপকূলে এটি পৌঁছে যায়।

জাতীয় আবহাওয়া পূর্বাভাস সংস্থা বলেছে, শক্তিশালী বাতাস ও ভারী বৃষ্টির মধ্যে কয়েক হাজার মানুষকে আশ্রয়কেন্দ্রে নেয়া হয়েছে।

ভিয়েতনামের তৃতীয় বৃহত্তম শহর দানাংয়ে প্রবল ঝড়ো হাওয়ায় উচু ভবনগুলো কেঁপে ওঠে, গাছপালা উপড়ে পড়ে এবং কেন্দ্রীয় অঞ্চলজুড়ে অনেক বাড়ির ছাদ উড়ে যায়। এতে ব্যাপক বিদ্যুৎ বিভ্রাটের খবর পাওয়া গেছে।

‘২৮ সেপ্টেম্বর ভোর ৪টায় (২১:০০ জিএমটি মঙ্গলবার) টাইফুনের কেন্দ্রের অবস্থান ছিল দানাং ও কোয়াং ন্যামের মধ্যে।

ন্যাশনাল সেন্টার ফর হাইড্রোমেটিওরোলজিক্যাল ফোরকাস্টিং বলেছে, বাতাসের গতিবেগ ছিল প্রতি ঘণ্টায় ১০৩ থেকে ১১৭ কিলোমিটার (৬৪-৭২ মাইল)।

ঝড়টি দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশটিতে আঘাত হানলে এটি হবে দেশটিতে আঘাত হানা একটি বৃহত্তম ঘূর্ণিঝড় পূর্বাভাসে এ কথা জানানোর পর ভিয়েতনামের দু’লাখের বেশি মানুষকে রাতারাতি আশ্রয়কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

বাতাসের গতিবেগ প্রাথমিকভাবে আশঙ্কার চেয়ে কম ছিল, কিন্তু পূর্বাভাসকারীরা বলেছেন, দিনভর ভারী বৃষ্টিপাত অব্যাহত থাকবে এবং ভূমিধস ও গুরুতর বন্যার সতর্কবার্তা দেয়া হয়েছে।

রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যমে বলা হয়, প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় উদ্ধার ও ত্রাণ অভিযানের প্রস্তুতির জন্য সাঁজোয়া যান ও নৌযানে সজ্জিত প্রায় ৪০ হাজার সৈন্য এবং দু’লাখ মিলিশিয়া সদস্যদের একত্রিত করা হয়েছে।

এছাড়া ভিয়েতনামের প্রায় অর্ধেক বিমানবন্দর বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। দানাংসহ বেশ কয়েকটি কেন্দ্রীয় প্রদেশজুড়ে স্কুল ও অফিস বন্ধ করে দেয়া হয়েছে এবং বাসিন্দারা মঙ্গলবার তাদের বাড়িঘর ছেড়ে নিরাপদ আশ্রয়ে ছুটে এসেছে।

সূত্র : বাসস

Tag :
জনপ্রিয়

আগামী বছর থেকে বিদ্যুৎ সংকট অনেকটাই কেটে যাবে: জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী।

ভিয়েতনামে আঘাত হেনেছে টাইফুন নোরু

প্রকাশের সময় : ০৯:০৮:২১ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২

ভিয়েতনামের কেন্দ্রীয় উপকূলে প্রবেশ করেছে টাইফুন নোরু। বুধবার ভোরে উপকূলে এটি পৌঁছে যায়।

জাতীয় আবহাওয়া পূর্বাভাস সংস্থা বলেছে, শক্তিশালী বাতাস ও ভারী বৃষ্টির মধ্যে কয়েক হাজার মানুষকে আশ্রয়কেন্দ্রে নেয়া হয়েছে।

ভিয়েতনামের তৃতীয় বৃহত্তম শহর দানাংয়ে প্রবল ঝড়ো হাওয়ায় উচু ভবনগুলো কেঁপে ওঠে, গাছপালা উপড়ে পড়ে এবং কেন্দ্রীয় অঞ্চলজুড়ে অনেক বাড়ির ছাদ উড়ে যায়। এতে ব্যাপক বিদ্যুৎ বিভ্রাটের খবর পাওয়া গেছে।

‘২৮ সেপ্টেম্বর ভোর ৪টায় (২১:০০ জিএমটি মঙ্গলবার) টাইফুনের কেন্দ্রের অবস্থান ছিল দানাং ও কোয়াং ন্যামের মধ্যে।

ন্যাশনাল সেন্টার ফর হাইড্রোমেটিওরোলজিক্যাল ফোরকাস্টিং বলেছে, বাতাসের গতিবেগ ছিল প্রতি ঘণ্টায় ১০৩ থেকে ১১৭ কিলোমিটার (৬৪-৭২ মাইল)।

ঝড়টি দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশটিতে আঘাত হানলে এটি হবে দেশটিতে আঘাত হানা একটি বৃহত্তম ঘূর্ণিঝড় পূর্বাভাসে এ কথা জানানোর পর ভিয়েতনামের দু’লাখের বেশি মানুষকে রাতারাতি আশ্রয়কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

বাতাসের গতিবেগ প্রাথমিকভাবে আশঙ্কার চেয়ে কম ছিল, কিন্তু পূর্বাভাসকারীরা বলেছেন, দিনভর ভারী বৃষ্টিপাত অব্যাহত থাকবে এবং ভূমিধস ও গুরুতর বন্যার সতর্কবার্তা দেয়া হয়েছে।

রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যমে বলা হয়, প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় উদ্ধার ও ত্রাণ অভিযানের প্রস্তুতির জন্য সাঁজোয়া যান ও নৌযানে সজ্জিত প্রায় ৪০ হাজার সৈন্য এবং দু’লাখ মিলিশিয়া সদস্যদের একত্রিত করা হয়েছে।

এছাড়া ভিয়েতনামের প্রায় অর্ধেক বিমানবন্দর বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। দানাংসহ বেশ কয়েকটি কেন্দ্রীয় প্রদেশজুড়ে স্কুল ও অফিস বন্ধ করে দেয়া হয়েছে এবং বাসিন্দারা মঙ্গলবার তাদের বাড়িঘর ছেড়ে নিরাপদ আশ্রয়ে ছুটে এসেছে।

সূত্র : বাসস