ঢাকা ০৯:২৭ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২২, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মুরাদনগরে শিক্ষককে কুপিয়ে জখম

কুমিল্লার মুরাদনগরে আবুল কালাম আজাদ (৪০) নামের এক শিক্ষককে বিদ্যালয় থেকে ঢেকে নিয়ে কুপিয়ে জখম করা হয়েছে।

সোমবার বিকেলে ১৩ নং সদর ইউনিয়নের দিলালপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন ওই ঘটনা ঘটে। ঘটনার পর পরই প্রত্যক্ষদর্শীরা তাকে অচেতন অবস্থায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসেন।

তাঁর অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য কুমিল্লা মেডিকেল হাসপাতালে প্রেরণ করেন কর্তব্যরত চিকিৎসক। এই সংবাদ লিখা পর্যন্ত পুলিশ কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি। আহত শিক্ষক আবুল কালাম আজাদ দিলালপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ও ইউসুফনগর গ্রামের আব্দুল মজিদের ছেলে ।

আহত আবুল কালাম আজাদের বড় ভাই মো. জসিম উদ্দিন বলেন, মনির ফোন দিয়ে তাকে স্কুল থেকে বাহিরে আসতে বললে, সে সরল মনে বের হয়ে আসে। দিলালপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ১০০ গজ পশ্চিমে আসার পর পরই আমাদের ইউসুফনগর গ্রামের শিমুল, আবুবক্কর, হাসান, সোহাগসহ ৭ থেকে ৮জন তার উপর অতর্কিত হামলা চালায়।

ধারালো দায়ের কোপে কালামের মাথায় বিশটি সেলাই লাগে ও পিটিয়ে দু’হাত ভেঙ্গে ফেলে। তার উন্নত চিকিৎসা প্রয়োজন তাই তাকে জেলায় নিয়ে যাচ্ছি। এসে মামলা করবো। মুরাদনগর থানার ওসি কামরুজ্জামান তালুকদার বলেন, পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। এখনো মামলা হয়নি, মামলা হলে পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

Tag :
জনপ্রিয়

রাজপথে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি ও কোনো ধরনের নাশকতা মেনে নেওয়া হবে না: আমির হোসেন আমু।

মুরাদনগরে শিক্ষককে কুপিয়ে জখম

প্রকাশের সময় : ০২:৫৪:১৭ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২

কুমিল্লার মুরাদনগরে আবুল কালাম আজাদ (৪০) নামের এক শিক্ষককে বিদ্যালয় থেকে ঢেকে নিয়ে কুপিয়ে জখম করা হয়েছে।

সোমবার বিকেলে ১৩ নং সদর ইউনিয়নের দিলালপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন ওই ঘটনা ঘটে। ঘটনার পর পরই প্রত্যক্ষদর্শীরা তাকে অচেতন অবস্থায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসেন।

তাঁর অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য কুমিল্লা মেডিকেল হাসপাতালে প্রেরণ করেন কর্তব্যরত চিকিৎসক। এই সংবাদ লিখা পর্যন্ত পুলিশ কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি। আহত শিক্ষক আবুল কালাম আজাদ দিলালপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ও ইউসুফনগর গ্রামের আব্দুল মজিদের ছেলে ।

আহত আবুল কালাম আজাদের বড় ভাই মো. জসিম উদ্দিন বলেন, মনির ফোন দিয়ে তাকে স্কুল থেকে বাহিরে আসতে বললে, সে সরল মনে বের হয়ে আসে। দিলালপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ১০০ গজ পশ্চিমে আসার পর পরই আমাদের ইউসুফনগর গ্রামের শিমুল, আবুবক্কর, হাসান, সোহাগসহ ৭ থেকে ৮জন তার উপর অতর্কিত হামলা চালায়।

ধারালো দায়ের কোপে কালামের মাথায় বিশটি সেলাই লাগে ও পিটিয়ে দু’হাত ভেঙ্গে ফেলে। তার উন্নত চিকিৎসা প্রয়োজন তাই তাকে জেলায় নিয়ে যাচ্ছি। এসে মামলা করবো। মুরাদনগর থানার ওসি কামরুজ্জামান তালুকদার বলেন, পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। এখনো মামলা হয়নি, মামলা হলে পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।