ঢাকা ১০:৪৮ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২২, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আলীকদম ইউএনও’র অপসারণসহ বিভিন্ন দাবিতে বান্দরবানে বিক্ষোভ

বান্দরবান প্রতিনিধিঃ

বান্দরবানে আলীকদম উপজেলার নির্বাহী অফিসার ইউএনও’র মেহেরুবা ইসলামকে অপসারণসহ অন্যান্য দাবিতে বান্দরবানে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সোমবার (২৬ সেপ্টেম্বর) বিকালে বান্দরবানের সচেতন নাগরিক সমাজের ব্যানারে আলীকদম উপজেলা চেয়ারম্যান আবুল কালামের নেতৃত্বে শহরের হিলবার্ট মোড় থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের হয়ে প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে প্রেসক্লাব প্রাঙ্গণে এসে শেষ হয়। পরে সেখানে প্রতিবাদ সমাবেশ আয়োজন করেন।
সংগঠন পক্ষ থেকে দাবিগুলো হলো- আলীকদমের ইউএনও মেহেরুবা ইসলামের কর্তৃক জনগণের হয়রানি বন্ধ ও আলীকদম থেকে অপসারণ, স্থায়ী বাসিন্দা সনদ সার্কেল চিফের (রাজা) পরিবর্তে জেলা প্রশাসকের নিকট হস্তান্তর, ভূমি রেজিস্ট্রেশনের জটিলতা নিরসণ, অতিরিক্ত পৌরকর প্রত্যাহার ও বাজার ফান্ড এলাকায় সরকারি লোন চালু করাসহ পার্বত্য চট্টগ্রামে সকল নাগরিকের মৌলিক অধিকার নিশ্চিত করার।

এ সময় মানববন্ধনে নাগরিক সচেতন সমাজের প্রবীণ মুরুব্বী হাজী আব্দুর শুক্কুর সভাপতিত্বের অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদের সভাপতি কাজী মুজিবুর রহমান, বান্দরবান জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক নাছির উদ্দীন, সহ সাধারণ সম্পাদক সম্পাদক মিজানুর রহমান আখন্দ, বান্দরবান সদর উপজেলা সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হক, পৌর শাখার সাধারণ সম্পাদক এরশাদ চৌধুরীসহ সংগঠনের নেতৃবৃন্দরা।
উল্লেখ্য যে, গেল শুক্রবার বিকালে আলীকদম উপজেলার ২ নম্বর চৈক্ষং ইউনিয়নের রেপারপড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠে আবাসিক স্বাধীন যুব সমাজের উদ্যোগে জুনিয়র একাদশ বনাম রেপার পাড়া বাজার একাদশ ফুটবল টিমের ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত হয়। এ ফাইনাল খেলায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আলীকদম উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মেহরুবা ইসলাম।

এ সময় খেলার সমাপনী বক্তব্যের শেষ পর্যায়ে হঠাৎ করে ফাইনাল খেলায় উৎসুক জনতা সম্মুখে পরপর দুইটি ট্রফি আচড়ে ভেঙ্গে ফেলেন। পরে এক পক্ষ ট্রফি ভাঙ্গার ভিডিওটি রাতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হলে বিভিন্ন পত্রিকা সংবাদ প্রচার হলেই ব্যাপক সমালোচনার সৃষ্টি হয়। এ ঘটনা ইউএনও বিরুদ্ধে বিতর্কিত কর্মকাণ্ডের অভিযোগের প্রেক্ষিতে প্রশাসনিকভাবে বিভাগীয় তদন্ত করা শুরু হয়েছে।

Tag :
জনপ্রিয়

তিতাসে বর্তমান ও সাবেক চেয়ারম্যান সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে নিহত-১, আহত-১৫

আলীকদম ইউএনও’র অপসারণসহ বিভিন্ন দাবিতে বান্দরবানে বিক্ষোভ

প্রকাশের সময় : ০২:১৭:২১ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২

বান্দরবান প্রতিনিধিঃ

বান্দরবানে আলীকদম উপজেলার নির্বাহী অফিসার ইউএনও’র মেহেরুবা ইসলামকে অপসারণসহ অন্যান্য দাবিতে বান্দরবানে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সোমবার (২৬ সেপ্টেম্বর) বিকালে বান্দরবানের সচেতন নাগরিক সমাজের ব্যানারে আলীকদম উপজেলা চেয়ারম্যান আবুল কালামের নেতৃত্বে শহরের হিলবার্ট মোড় থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের হয়ে প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে প্রেসক্লাব প্রাঙ্গণে এসে শেষ হয়। পরে সেখানে প্রতিবাদ সমাবেশ আয়োজন করেন।
সংগঠন পক্ষ থেকে দাবিগুলো হলো- আলীকদমের ইউএনও মেহেরুবা ইসলামের কর্তৃক জনগণের হয়রানি বন্ধ ও আলীকদম থেকে অপসারণ, স্থায়ী বাসিন্দা সনদ সার্কেল চিফের (রাজা) পরিবর্তে জেলা প্রশাসকের নিকট হস্তান্তর, ভূমি রেজিস্ট্রেশনের জটিলতা নিরসণ, অতিরিক্ত পৌরকর প্রত্যাহার ও বাজার ফান্ড এলাকায় সরকারি লোন চালু করাসহ পার্বত্য চট্টগ্রামে সকল নাগরিকের মৌলিক অধিকার নিশ্চিত করার।

এ সময় মানববন্ধনে নাগরিক সচেতন সমাজের প্রবীণ মুরুব্বী হাজী আব্দুর শুক্কুর সভাপতিত্বের অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদের সভাপতি কাজী মুজিবুর রহমান, বান্দরবান জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক নাছির উদ্দীন, সহ সাধারণ সম্পাদক সম্পাদক মিজানুর রহমান আখন্দ, বান্দরবান সদর উপজেলা সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হক, পৌর শাখার সাধারণ সম্পাদক এরশাদ চৌধুরীসহ সংগঠনের নেতৃবৃন্দরা।
উল্লেখ্য যে, গেল শুক্রবার বিকালে আলীকদম উপজেলার ২ নম্বর চৈক্ষং ইউনিয়নের রেপারপড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠে আবাসিক স্বাধীন যুব সমাজের উদ্যোগে জুনিয়র একাদশ বনাম রেপার পাড়া বাজার একাদশ ফুটবল টিমের ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত হয়। এ ফাইনাল খেলায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আলীকদম উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মেহরুবা ইসলাম।

এ সময় খেলার সমাপনী বক্তব্যের শেষ পর্যায়ে হঠাৎ করে ফাইনাল খেলায় উৎসুক জনতা সম্মুখে পরপর দুইটি ট্রফি আচড়ে ভেঙ্গে ফেলেন। পরে এক পক্ষ ট্রফি ভাঙ্গার ভিডিওটি রাতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হলে বিভিন্ন পত্রিকা সংবাদ প্রচার হলেই ব্যাপক সমালোচনার সৃষ্টি হয়। এ ঘটনা ইউএনও বিরুদ্ধে বিতর্কিত কর্মকাণ্ডের অভিযোগের প্রেক্ষিতে প্রশাসনিকভাবে বিভাগীয় তদন্ত করা শুরু হয়েছে।