ঢাকা ১২:০৮ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২২, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

নিখোঁজ বনাম গুম: কে দেবে সমাধান?

বাংলাদেশে গুম নিয়ে যখন বিভিন্ন মহলে নানামূখী আলোচনা হচ্ছে তখন হিজরতে যাওয়া উদ্দেশ্যে নিখোঁজ হওয়ার খবর এক চাঞ্চল্যকর সৃষ্টি করেছে। সাম্প্রতিক সময়ে দেশের বেশ কয়েকটি জায়গায় থেকে প্রায় শতাধিক তরুণের নিরুদ্দেশ হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। যারা হিজরতের কথা বলে বাড়ি ছেড়েছেন বলে তাদের পরিবারগুলো দাবি করছে। তবে তারা কোথায় হিজরত করছেন সে ব্যাপারে কোনো ধরনের তথ্য দিতে পারছে না এই পরিবারগুলো। যার ফলে দেশের গুমের বিষয়টি এখন আবার নতুন করে আলোচনায় এসেছে এবং গুমের বিষয়টি নিয়ে এক ধরনের ধুম্রজাল সৃষ্টি হয়েছে। প্রশ্ন উঠছে দেশে এতোদিন ধরে যে গুমের অভিযোগ করা হচ্ছে এর সাথে নিখোঁজ হওয়া ঘটনার মঙ্গে কোন যোগসূত্র রয়েছে কিনা।

জানা গেছে, গত মাসের শেষ দিকে কুমিল্লা থেকে নিখোঁজ সাত কলেজছাত্রের বিষয়ে অনুসন্ধানে নেমে নতুন করে ‘হিজরত’–এর বিষয়টি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর নজরে আসে। এরপরই পটুয়াখালী, ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ ও গোপালগঞ্জের আরও সাতজনের দুই থেকে তিন মাস ধরে নিরুদ্দেশ হওয়ার খবর পাওয়া যায়। ফলে নড়েচড়ে বসে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। এ নিয়ে অনুসন্ধানে মাঠে নামে এলিট ফোর্স র‌্যাব। গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে সংস্থাটি চারজনের ওপর নজরদারি করে। যারা হিজরতে যাওয়ার চেষ্টা করছিলেন। র‌্যাব তাঁদের হেফাজতে নিয়ে পরে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করে। ওই চারজনের কাছ থেকে র‍্যাব জানতে পারে যে, আরও বেশ কয়েকজন তরুণ হিজরতে যাওয়ার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন। ফলে গুমের অভিযোগগুলো এখন অনেকটা প্রশ্নের মুখে পড়ছে।

গুমের অভিযোগ নিয়ে সরকার শুরু থেকে অভিযোগ অস্বীকার করে আসছে। সরকারের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে যে, অনেকে মামলা থেকে বাচঁতে নিজেকে আড়াল করছেন। আবার অনেকে পারিবারিক বিরোধের কারণে নিজেই নিখোঁজের নাটক তৈরি করছে। এদের অনেকে স্বেচ্ছায় ফিরে এসেছে আবার কাউকে কাউকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী উদ্ধার করছে। যার সর্বশেষ প্রমাণ হলো রহিমা বেগম। নিখোঁজের ২৯ দিন পর গতকাল শনিবার ফরিদপুরের বোয়ালমারী থেকে তাকে উদ্ধার করা হয়েছে। প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতেই মা এবং মেয়ে এই নিখোঁজের ঘটনা সাজিয়েছে বলে পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

ফলে কারা গুম হচ্ছেন আর কারা নিজেরাই আত্মগোপনে চলে যাচ্ছেন এই নিয়ে এখন বিভিন্ন মহলে নানা ধরনের আলোচনা হচ্ছে। ইতোমধ্যে যারা গুম হয়েছেন বলে বিভিন্ন সময় অভিযোগ করা হয়েছে তারা আসলেই গুম হয়েছেন নাকি নিজেরাই আত্মগোপন করেছেন এই প্রশ্নটি এখন বারবার সামনে আসছে। এমন পরিস্থিতি দেশে গুম আর নিখোঁজের ঘটনা নিয়ে ধরনের ধুম্রজাল সৃষ্টি হয়েছে।

Tag :
জনপ্রিয়

রসিক নির্বাচন ; আ’লীগের মেয়র প্রার্থী ডালিয়ার গণসংযোগ অনুষ্ঠিত

নিখোঁজ বনাম গুম: কে দেবে সমাধান?

প্রকাশের সময় : ০৯:০১:০৪ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২

বাংলাদেশে গুম নিয়ে যখন বিভিন্ন মহলে নানামূখী আলোচনা হচ্ছে তখন হিজরতে যাওয়া উদ্দেশ্যে নিখোঁজ হওয়ার খবর এক চাঞ্চল্যকর সৃষ্টি করেছে। সাম্প্রতিক সময়ে দেশের বেশ কয়েকটি জায়গায় থেকে প্রায় শতাধিক তরুণের নিরুদ্দেশ হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। যারা হিজরতের কথা বলে বাড়ি ছেড়েছেন বলে তাদের পরিবারগুলো দাবি করছে। তবে তারা কোথায় হিজরত করছেন সে ব্যাপারে কোনো ধরনের তথ্য দিতে পারছে না এই পরিবারগুলো। যার ফলে দেশের গুমের বিষয়টি এখন আবার নতুন করে আলোচনায় এসেছে এবং গুমের বিষয়টি নিয়ে এক ধরনের ধুম্রজাল সৃষ্টি হয়েছে। প্রশ্ন উঠছে দেশে এতোদিন ধরে যে গুমের অভিযোগ করা হচ্ছে এর সাথে নিখোঁজ হওয়া ঘটনার মঙ্গে কোন যোগসূত্র রয়েছে কিনা।

জানা গেছে, গত মাসের শেষ দিকে কুমিল্লা থেকে নিখোঁজ সাত কলেজছাত্রের বিষয়ে অনুসন্ধানে নেমে নতুন করে ‘হিজরত’–এর বিষয়টি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর নজরে আসে। এরপরই পটুয়াখালী, ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ ও গোপালগঞ্জের আরও সাতজনের দুই থেকে তিন মাস ধরে নিরুদ্দেশ হওয়ার খবর পাওয়া যায়। ফলে নড়েচড়ে বসে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। এ নিয়ে অনুসন্ধানে মাঠে নামে এলিট ফোর্স র‌্যাব। গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে সংস্থাটি চারজনের ওপর নজরদারি করে। যারা হিজরতে যাওয়ার চেষ্টা করছিলেন। র‌্যাব তাঁদের হেফাজতে নিয়ে পরে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করে। ওই চারজনের কাছ থেকে র‍্যাব জানতে পারে যে, আরও বেশ কয়েকজন তরুণ হিজরতে যাওয়ার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন। ফলে গুমের অভিযোগগুলো এখন অনেকটা প্রশ্নের মুখে পড়ছে।

গুমের অভিযোগ নিয়ে সরকার শুরু থেকে অভিযোগ অস্বীকার করে আসছে। সরকারের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে যে, অনেকে মামলা থেকে বাচঁতে নিজেকে আড়াল করছেন। আবার অনেকে পারিবারিক বিরোধের কারণে নিজেই নিখোঁজের নাটক তৈরি করছে। এদের অনেকে স্বেচ্ছায় ফিরে এসেছে আবার কাউকে কাউকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী উদ্ধার করছে। যার সর্বশেষ প্রমাণ হলো রহিমা বেগম। নিখোঁজের ২৯ দিন পর গতকাল শনিবার ফরিদপুরের বোয়ালমারী থেকে তাকে উদ্ধার করা হয়েছে। প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতেই মা এবং মেয়ে এই নিখোঁজের ঘটনা সাজিয়েছে বলে পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

ফলে কারা গুম হচ্ছেন আর কারা নিজেরাই আত্মগোপনে চলে যাচ্ছেন এই নিয়ে এখন বিভিন্ন মহলে নানা ধরনের আলোচনা হচ্ছে। ইতোমধ্যে যারা গুম হয়েছেন বলে বিভিন্ন সময় অভিযোগ করা হয়েছে তারা আসলেই গুম হয়েছেন নাকি নিজেরাই আত্মগোপন করেছেন এই প্রশ্নটি এখন বারবার সামনে আসছে। এমন পরিস্থিতি দেশে গুম আর নিখোঁজের ঘটনা নিয়ে ধরনের ধুম্রজাল সৃষ্টি হয়েছে।