ঢাকা ০৯:৪২ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৯ নভেম্বর ২০২২, ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দেড় মাসেই নবদম্পতির বিচ্ছেদ করল করতোয়া

পঞ্চগড়ের বোদা উপজেলায় মহালয়ায় পুণ্য অর্জনের জন্য পরিবারের অন্য সদস্যদের সঙ্গে মাড়েয়া বামনহাট ইউনিয়নের করতোয়ার পূর্বপাড়ে বোদেশ্বরী মন্দির দর্শনের উদ্দেশ্যে গিয়েছিলেন নবদম্পতি হিমালয় ও বন্যা। এ সময় মাঝ নদীতে নৌকা উল্টে অনেকের সঙ্গে পানিতে পড়ে যান এই নবদম্পতি। বুদ্ধি খাটিয়ে তীরে ওঠেন স্ত্রী বন্যা। তবে খোঁজ মেলেনি স্বামী হিমালয়ের।

সোমবার (২৬ সেপ্টেম্বর) সকালে নদীর তীরে স্বামীর প্রতীক্ষায় বসে আছেন বন্যা।

নিখোঁজ ব্যক্তি বোদা উপজেলার ময়দানদিঘি খালপাড়া গ্রামের বীরেন্দ্রনাথ-সারদা রানী দম্পতির ছেলে হিমালয়। দেড় মাস আগে হিমালয়ের বিয়ে হয় বন্যা রানীর সঙ্গে। মহালয়ার অনুষ্ঠানে পরিবারের আরও কয়েকজন সদস্যের সঙ্গে এক নৌকায় ছিলেন তারা। বন্যা সাঁতরে তীরে উঠলেও হিমালয় ও তার মামাতো বোন আঁখি এখনো নিখোঁজ।

হিমালয়ের দুলাভাই গিরি বাবু জানান, শ্যালকের খোঁজে মধ্যরাত অবধি করতোয়া নদীর তীরে অপেক্ষা করেছিলাম। সোমবার ভোরে আবারও এসেছি। প্রায় দেড় মাস আগে হিমালয়ের বিয়ে হয় বন্যা রানীর সঙ্গে। মহালয়ার অনুষ্ঠানে পরিবারের আরও কয়েকজন সদস্যের সঙ্গে এক নৌকায় ছিলেন তারা। বন্যা সাঁতরে তীরে উঠলেও হিমালয় ও তার মামাতো বোন আঁখি (১৬) এখনও নিখোঁজ।

তিনি আরও জানান, এ ঘটনায় তার স্ত্রীর মামি ও খালা মারা গেছেন। রোববার তাদের মরদেহ পাওয়া গেছে। পরিবারের অপর দুই নিখোঁজ সদস্যের খোঁজে নদী তীরে অপেক্ষা করছি।

এদিকে রাতের বিরতির পর সোমবার সকাল থেকে আবারো উদ্ধার অভিযান শুরু করেছে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের ডুবুরি দল। নদীতে তখন স্রোতের তীব্রতা। সবার চোখ ডুবুরি দলের নৌকার দিকে। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে নদীতীরে ভিড় বাড়ছে। উদ্ধার অভিযানের ধীরগতিতে অপেক্ষমাণ স্বজনদের মধ্যে বাড়ছে ক্ষোভ।

এরমধ্যে পঞ্চগড় ফায়ার সার্ভিসের উপ-সহকারী পরিচালক শেখ মো. মাহবুবুল ইসলামের কাছে খবর আসে, ঘটনাস্থল থেকে প্রায় ১৮ কিলোমিটার ভাটিতে দেবীগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা দুইজনের মরদেহ উদ্ধার করেছে। আরো ৩৫ কিলোমিটার ভাটিতে দিনাজপুরের খানসামা ফায়ার সার্ভিস দল করতোয়ার জিয়া ব্রিজের কাছে আরো একজনের ভাসমান মরদেহ উদ্ধার করেছে। তবে তখনও ওই উদ্ধারকৃত তিনজনের পরিচয় নিশ্চিত হওয়া যায়নি। এর কিছু পরে জালিয়াপাড়া ঘাটের কাছে কবিতা রানী নামে আরো এক নারীর মরদেহ উদ্ধার করেন স্বজনরা। কবিতা রানী মাড়েয়া বামনহাট ইউনিয়নের ফুটকিবাড়ী গ্রামের হেমন্তের স্ত্রী বলে জানা গেছে। সোমবার সকাল সোয়া ৮টার দিকে সর্বশেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত মোট ৩৫ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। তখনও স্বজনরা নিখোঁজ অনেকের সন্ধানে করতোয়া তীরে অপেক্ষায় রয়েছেন।

মাড়েয়া ইউপি সচিব কামরুজ্জামান জানান, নদীর বিভিন্ন অংশে মরদেহ ভেসে উঠছে। স্থানীয়দের খবরের ভিত্তিতে ফায়ার সার্ভিস ও পুলিশ সেগুলো উদ্ধার করে ইউনিয়ন পরিষদে এনে রাখছে। সেখান থেকে মরদেহ স্বজনদের কাছে স্থানান্তর করা হবে।

তিনি আরও জানান, এ ঘটনায় রোববার রাত ৮টা পর্যন্ত ২৫ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। সব মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। সৎকারের জন্য পরিবারগুলোকে ২০ হাজার করে টাকা দেওয়া হয়েছে।

পঞ্চগড় ফায়ার সার্ভিসের উপপরিচালক সৈয়দ মাহাবুবুল আলম বলেন, সোমবার সকালে দ্বিতীয় দিনের মতো নিখোঁজ ব্যক্তিদের উদ্ধারে কার্যক্রম শুরু হয়েছে। রংপুর, কুড়িগ্রাম ও রাজশাহী থেকে ডুবুরিদল এসেছে। এর সঙ্গে যুক্ত হয়েছে পঞ্চগড় ফায়ার সার্ভিস।

Tag :
জনপ্রিয়

জনগণকে সঙ্গে নিয়ে আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা সতর্ক অবস্থানে রয়েছে: ওবায়দুল কাদের।

দেড় মাসেই নবদম্পতির বিচ্ছেদ করল করতোয়া

প্রকাশের সময় : ০৮:০০:০৪ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২

পঞ্চগড়ের বোদা উপজেলায় মহালয়ায় পুণ্য অর্জনের জন্য পরিবারের অন্য সদস্যদের সঙ্গে মাড়েয়া বামনহাট ইউনিয়নের করতোয়ার পূর্বপাড়ে বোদেশ্বরী মন্দির দর্শনের উদ্দেশ্যে গিয়েছিলেন নবদম্পতি হিমালয় ও বন্যা। এ সময় মাঝ নদীতে নৌকা উল্টে অনেকের সঙ্গে পানিতে পড়ে যান এই নবদম্পতি। বুদ্ধি খাটিয়ে তীরে ওঠেন স্ত্রী বন্যা। তবে খোঁজ মেলেনি স্বামী হিমালয়ের।

সোমবার (২৬ সেপ্টেম্বর) সকালে নদীর তীরে স্বামীর প্রতীক্ষায় বসে আছেন বন্যা।

নিখোঁজ ব্যক্তি বোদা উপজেলার ময়দানদিঘি খালপাড়া গ্রামের বীরেন্দ্রনাথ-সারদা রানী দম্পতির ছেলে হিমালয়। দেড় মাস আগে হিমালয়ের বিয়ে হয় বন্যা রানীর সঙ্গে। মহালয়ার অনুষ্ঠানে পরিবারের আরও কয়েকজন সদস্যের সঙ্গে এক নৌকায় ছিলেন তারা। বন্যা সাঁতরে তীরে উঠলেও হিমালয় ও তার মামাতো বোন আঁখি এখনো নিখোঁজ।

হিমালয়ের দুলাভাই গিরি বাবু জানান, শ্যালকের খোঁজে মধ্যরাত অবধি করতোয়া নদীর তীরে অপেক্ষা করেছিলাম। সোমবার ভোরে আবারও এসেছি। প্রায় দেড় মাস আগে হিমালয়ের বিয়ে হয় বন্যা রানীর সঙ্গে। মহালয়ার অনুষ্ঠানে পরিবারের আরও কয়েকজন সদস্যের সঙ্গে এক নৌকায় ছিলেন তারা। বন্যা সাঁতরে তীরে উঠলেও হিমালয় ও তার মামাতো বোন আঁখি (১৬) এখনও নিখোঁজ।

তিনি আরও জানান, এ ঘটনায় তার স্ত্রীর মামি ও খালা মারা গেছেন। রোববার তাদের মরদেহ পাওয়া গেছে। পরিবারের অপর দুই নিখোঁজ সদস্যের খোঁজে নদী তীরে অপেক্ষা করছি।

এদিকে রাতের বিরতির পর সোমবার সকাল থেকে আবারো উদ্ধার অভিযান শুরু করেছে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের ডুবুরি দল। নদীতে তখন স্রোতের তীব্রতা। সবার চোখ ডুবুরি দলের নৌকার দিকে। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে নদীতীরে ভিড় বাড়ছে। উদ্ধার অভিযানের ধীরগতিতে অপেক্ষমাণ স্বজনদের মধ্যে বাড়ছে ক্ষোভ।

এরমধ্যে পঞ্চগড় ফায়ার সার্ভিসের উপ-সহকারী পরিচালক শেখ মো. মাহবুবুল ইসলামের কাছে খবর আসে, ঘটনাস্থল থেকে প্রায় ১৮ কিলোমিটার ভাটিতে দেবীগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা দুইজনের মরদেহ উদ্ধার করেছে। আরো ৩৫ কিলোমিটার ভাটিতে দিনাজপুরের খানসামা ফায়ার সার্ভিস দল করতোয়ার জিয়া ব্রিজের কাছে আরো একজনের ভাসমান মরদেহ উদ্ধার করেছে। তবে তখনও ওই উদ্ধারকৃত তিনজনের পরিচয় নিশ্চিত হওয়া যায়নি। এর কিছু পরে জালিয়াপাড়া ঘাটের কাছে কবিতা রানী নামে আরো এক নারীর মরদেহ উদ্ধার করেন স্বজনরা। কবিতা রানী মাড়েয়া বামনহাট ইউনিয়নের ফুটকিবাড়ী গ্রামের হেমন্তের স্ত্রী বলে জানা গেছে। সোমবার সকাল সোয়া ৮টার দিকে সর্বশেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত মোট ৩৫ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। তখনও স্বজনরা নিখোঁজ অনেকের সন্ধানে করতোয়া তীরে অপেক্ষায় রয়েছেন।

মাড়েয়া ইউপি সচিব কামরুজ্জামান জানান, নদীর বিভিন্ন অংশে মরদেহ ভেসে উঠছে। স্থানীয়দের খবরের ভিত্তিতে ফায়ার সার্ভিস ও পুলিশ সেগুলো উদ্ধার করে ইউনিয়ন পরিষদে এনে রাখছে। সেখান থেকে মরদেহ স্বজনদের কাছে স্থানান্তর করা হবে।

তিনি আরও জানান, এ ঘটনায় রোববার রাত ৮টা পর্যন্ত ২৫ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। সব মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। সৎকারের জন্য পরিবারগুলোকে ২০ হাজার করে টাকা দেওয়া হয়েছে।

পঞ্চগড় ফায়ার সার্ভিসের উপপরিচালক সৈয়দ মাহাবুবুল আলম বলেন, সোমবার সকালে দ্বিতীয় দিনের মতো নিখোঁজ ব্যক্তিদের উদ্ধারে কার্যক্রম শুরু হয়েছে। রংপুর, কুড়িগ্রাম ও রাজশাহী থেকে ডুবুরিদল এসেছে। এর সঙ্গে যুক্ত হয়েছে পঞ্চগড় ফায়ার সার্ভিস।