ঢাকা ১০:৪২ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২২, ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

প্রতীক পেলেন তিতাসের জেলা পরিষদের সদস্যপ্রার্থীরা

মোঃ জুয়েল রানা,স্টাফ রিপোর্টারঃ

কুমিল্লা জেলা পরিষদ নির্বাচনের সদস্যপ্রার্থীরা প্রতীক বরাদ্দ পেয়েছেন।

সোমবার (২৬ সেপ্টেম্বর) সকাল ১০টায় জেলা প্রশাসকেট কার্যালয়ে এই প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হয়। প্রতীক বরাদ্দ দেন রিটানিং অফিসার ও জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামরুল হাসান।

জেলা পরিষদ নির্বাচন ২নং ওয়ার্ডের (তিতাস) সদস্য প্রার্থী সাজ্জাদ হোসেন সিকদার পেয়েছেন হাতি, মোহাম্মদ দেলোয়ার হোসেন পলাশ পেয়েছেন তালা ও আরিফুর রহমান পেয়েছেন টিউবওয়েল প্রতীক।

প্রতীক বরাদ্দের সময় রিটানিং অফিসার ও জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামরুল হাসান বলেন, প্রার্থীরা যেন কোনোমতেই আচরণবিধি লঙ্ঘন না করে সেই বিষয়ে আমি অনুরোধ করছি। কোনো প্রার্থী লঙ্ঘন করলে তার বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নির্বাচন হলো একটি উৎসব। এই উৎসবকে আমরা কোনোক্রমেই সংঘর্ষে রূপ নিতে দেবো না। রাস্তাঘাট বন্ধ করে কোনো জনসভা করতে দেওয়া হবে না।

এসময় প্রত্যেক সদস্য প্রার্থীদের একটি করে আচরণবিধি দেওয়া হয় এবং প্রার্থীদের আচরণবিধি মেনে চলার আহ্বান জানানো হয়। সেই সঙ্গে কোনো প্রার্থী রঙিন পোস্টার লাগাতে পারবেন না বলেও জানানো হয়। এছাড়াও আচরণ বিধিমালা শতভাগ মেনে চলতে হবে বলেও তিনি জানান।

Tag :
জনপ্রিয়

দেশে অ্যান্টিবায়োটিক রেজিস্ট্যান্স ভয়াবহ আকার ধারণ করতে চলেছে: স্বাস্থ্য মহাপরিচালক।

প্রতীক পেলেন তিতাসের জেলা পরিষদের সদস্যপ্রার্থীরা

প্রকাশের সময় : ০৬:৪২:৫৮ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২

মোঃ জুয়েল রানা,স্টাফ রিপোর্টারঃ

কুমিল্লা জেলা পরিষদ নির্বাচনের সদস্যপ্রার্থীরা প্রতীক বরাদ্দ পেয়েছেন।

সোমবার (২৬ সেপ্টেম্বর) সকাল ১০টায় জেলা প্রশাসকেট কার্যালয়ে এই প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হয়। প্রতীক বরাদ্দ দেন রিটানিং অফিসার ও জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামরুল হাসান।

জেলা পরিষদ নির্বাচন ২নং ওয়ার্ডের (তিতাস) সদস্য প্রার্থী সাজ্জাদ হোসেন সিকদার পেয়েছেন হাতি, মোহাম্মদ দেলোয়ার হোসেন পলাশ পেয়েছেন তালা ও আরিফুর রহমান পেয়েছেন টিউবওয়েল প্রতীক।

প্রতীক বরাদ্দের সময় রিটানিং অফিসার ও জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামরুল হাসান বলেন, প্রার্থীরা যেন কোনোমতেই আচরণবিধি লঙ্ঘন না করে সেই বিষয়ে আমি অনুরোধ করছি। কোনো প্রার্থী লঙ্ঘন করলে তার বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নির্বাচন হলো একটি উৎসব। এই উৎসবকে আমরা কোনোক্রমেই সংঘর্ষে রূপ নিতে দেবো না। রাস্তাঘাট বন্ধ করে কোনো জনসভা করতে দেওয়া হবে না।

এসময় প্রত্যেক সদস্য প্রার্থীদের একটি করে আচরণবিধি দেওয়া হয় এবং প্রার্থীদের আচরণবিধি মেনে চলার আহ্বান জানানো হয়। সেই সঙ্গে কোনো প্রার্থী রঙিন পোস্টার লাগাতে পারবেন না বলেও জানানো হয়। এছাড়াও আচরণ বিধিমালা শতভাগ মেনে চলতে হবে বলেও তিনি জানান।