ঢাকা ১০:০৩ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২২, ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আতঙ্কে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কর্মকর্তারা!

বাংলাদেশ ব্যাংকের নতুন গভর্নর আব্দুর রউফ তালুকদার দায়িত্ব নেওয়ার পরেই তথ্য সরবরাহে কঠোর নিয়ন্ত্রণ আরোপ করেছেন। এতে করে সাংবাদিকরা কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সংবাদ সংগ্রহে বাধার মুখে পড়ছেন। এছাড়াও সংবাদমাধ্যমে ব্যাংক সংক্রান্ত কোনো তথ্য বা সংবাদ প্রকাশ হলেই সংশ্লিষ্ট বিভাগের কর্মকর্তাদের কারণ দর্শানোর নোটিশ বা শোকজ দেওয়া হচ্ছে। বিভিন্নভাবে মানসিক চাপ সৃষ্টির পাশাপাশি দেওয়া হচ্ছে বদলি ও চাকরি থেকে বহিষ্কারের হুমকিও। এতে আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন ব্যাংক খাতের নিয়ন্ত্রণ সংস্থার কর্মীরা।

এদিকে তথ্য প্রাপ্তি বন্ধ করতে ও সাংবাদিক প্রবেশ বন্ধ করতে কয়েকটি বিভাগ তালাবদ্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছেন ডেপুটি গভর্নর কাজী ছাইদুর রহমান। সাংবাদিকদের তথ্য দেওয়ার অভিযোগে তিনজন নির্বাহী পরিচালককে ডেকে ভর্ৎসনা করেন এই ডেপুটি গভর্নর। তাছাড়া ব্যাংক পরিদর্শন বিভাগ, অফ-সাইট বিভাগ, ফরেন রিজার্ভ ও ট্রেজারি ম্যানেজমেন্ট বিভাগ, ব্যাংকিং নীতি ও প্রবিধি বিভাগের অন্তত ১১ জন কর্মকর্তাকে তথ্য শেয়ার করার অভিযোগে শোকজ নোটিশ দেওয়া হয়েছে।

ব্যাংকের শাখার ভল্ট থেকে ‘উধাও’ হচ্ছে টাকা, গোপন করা হচ্ছে খেলাপি ঋণ। অনৈতিকভাবে ‘ক্লায়েন্টকে’ বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা দিয়ে দুরবস্থায় পড়ছে ব্যাংক। এসব অনিয়মের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ ব্যাংক দৃশ্যমান ব্যবস্থা না নিয়ে, উল্টো কেন এধরনের অনিয়মের সংবাদ জনসাধারণের কাছে যাচ্ছে, এ বিষয়ে বিরক্ত প্রকাশ করেছে। এসব তথ্য সাধারণ মানুষ যেন না জানতে পারে, এজন্য তথ্য দেওয়ার ক্ষেত্রেও কড়াকড়ি আরোপ করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

হঠাৎ কড়াকড়ি ও কর্মকর্তাদের শোকজ বিষয়ে জানতে চাইলে বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র নির্বাহী পরিচালক মো. সিরাজুল ইসলাম গণমাধ্যমকে বলেন, কেন্দ্রীয় ব্যাংক আয়নার মতো। এজন্য পরিস্থিতি বুঝেই কেবল তথ্য দিতে হয়। সব তথ্য গণমাধ্যমে দেওয়া ঠিক না। কোনো কর্মকর্তা তথ্য দিলে তা গোপনীয়তা ভঙ্গ হয়। এজন্য তাদের নোটিশ দেওয়া হয়েছে। এতে ভীতিকর বা স্বেচ্ছাচারিতার কিছু নেই। গণমাধ্যমের তথ্য নেওয়া উচিৎ মুখপাত্রের মাধ্যমে। কোনো ব্যাংকের বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত হলে তার তথ্য ওই ব্যাংক থেকেও প্রকাশ হতে পারে। তবে কেন এমন নোটিশ দেওয়া হচ্ছে, তা জানি না।

Tag :
জনপ্রিয়

সিলেটে ক্বিন ব্রিজের পাশে হবে আরেকটি ব্রিজ : পররাষ্ট্রমন্ত্রী

আতঙ্কে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কর্মকর্তারা!

প্রকাশের সময় : ১০:১২:৪৮ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২

বাংলাদেশ ব্যাংকের নতুন গভর্নর আব্দুর রউফ তালুকদার দায়িত্ব নেওয়ার পরেই তথ্য সরবরাহে কঠোর নিয়ন্ত্রণ আরোপ করেছেন। এতে করে সাংবাদিকরা কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সংবাদ সংগ্রহে বাধার মুখে পড়ছেন। এছাড়াও সংবাদমাধ্যমে ব্যাংক সংক্রান্ত কোনো তথ্য বা সংবাদ প্রকাশ হলেই সংশ্লিষ্ট বিভাগের কর্মকর্তাদের কারণ দর্শানোর নোটিশ বা শোকজ দেওয়া হচ্ছে। বিভিন্নভাবে মানসিক চাপ সৃষ্টির পাশাপাশি দেওয়া হচ্ছে বদলি ও চাকরি থেকে বহিষ্কারের হুমকিও। এতে আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন ব্যাংক খাতের নিয়ন্ত্রণ সংস্থার কর্মীরা।

এদিকে তথ্য প্রাপ্তি বন্ধ করতে ও সাংবাদিক প্রবেশ বন্ধ করতে কয়েকটি বিভাগ তালাবদ্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছেন ডেপুটি গভর্নর কাজী ছাইদুর রহমান। সাংবাদিকদের তথ্য দেওয়ার অভিযোগে তিনজন নির্বাহী পরিচালককে ডেকে ভর্ৎসনা করেন এই ডেপুটি গভর্নর। তাছাড়া ব্যাংক পরিদর্শন বিভাগ, অফ-সাইট বিভাগ, ফরেন রিজার্ভ ও ট্রেজারি ম্যানেজমেন্ট বিভাগ, ব্যাংকিং নীতি ও প্রবিধি বিভাগের অন্তত ১১ জন কর্মকর্তাকে তথ্য শেয়ার করার অভিযোগে শোকজ নোটিশ দেওয়া হয়েছে।

ব্যাংকের শাখার ভল্ট থেকে ‘উধাও’ হচ্ছে টাকা, গোপন করা হচ্ছে খেলাপি ঋণ। অনৈতিকভাবে ‘ক্লায়েন্টকে’ বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা দিয়ে দুরবস্থায় পড়ছে ব্যাংক। এসব অনিয়মের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ ব্যাংক দৃশ্যমান ব্যবস্থা না নিয়ে, উল্টো কেন এধরনের অনিয়মের সংবাদ জনসাধারণের কাছে যাচ্ছে, এ বিষয়ে বিরক্ত প্রকাশ করেছে। এসব তথ্য সাধারণ মানুষ যেন না জানতে পারে, এজন্য তথ্য দেওয়ার ক্ষেত্রেও কড়াকড়ি আরোপ করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

হঠাৎ কড়াকড়ি ও কর্মকর্তাদের শোকজ বিষয়ে জানতে চাইলে বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র নির্বাহী পরিচালক মো. সিরাজুল ইসলাম গণমাধ্যমকে বলেন, কেন্দ্রীয় ব্যাংক আয়নার মতো। এজন্য পরিস্থিতি বুঝেই কেবল তথ্য দিতে হয়। সব তথ্য গণমাধ্যমে দেওয়া ঠিক না। কোনো কর্মকর্তা তথ্য দিলে তা গোপনীয়তা ভঙ্গ হয়। এজন্য তাদের নোটিশ দেওয়া হয়েছে। এতে ভীতিকর বা স্বেচ্ছাচারিতার কিছু নেই। গণমাধ্যমের তথ্য নেওয়া উচিৎ মুখপাত্রের মাধ্যমে। কোনো ব্যাংকের বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত হলে তার তথ্য ওই ব্যাংক থেকেও প্রকাশ হতে পারে। তবে কেন এমন নোটিশ দেওয়া হচ্ছে, তা জানি না।