ঢাকা ০৫:৩৬ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২২, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মেয়ের সামনে স্ত্রীকে গলাকেটে হত্যা, পলাতক স্বামী

পরকীয়ার জেরে নাটোরের বড়াইগ্রাম উপজেলায় বিউটি খাতুন (৪০) নামের এক গৃহবধূকে মেয়ের সামনে হাসুয়া দিয়ে গলাকেটে হত্যা করেছেন স্বামী। ঘাতক স্বামীকে আটক করতে অভিযান শুরু করেছে পুলিশ।

শনিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) রাত আড়াইটার দিকে উপজেলার গোপালপুর ইউনিয়নের গোপালপুর স্কুলপাড়ায় এ ঘটনা ঘটে।
সম্পর্কিত খবর

ঘাতক স্বামী আব্দুল বারেক ওই এলাকার মৃত আব্দুল আজিজ সরকারের ছেলে। তিনি পেশায় একজন ভটভটি চালক।

প্রতিবেশীরা জানান, একই এলাকার এক ওয়ার্কশপ মিস্ত্রির সঙ্গে পরকীয়া সম্পর্ক রয়েছে এমন সন্দেহে প্রায়ই বিউটির সঙ্গে বারেকের ঝগড়া হতো। শনিবার রাতে মোবাইল ফোনে কথা বলাকে কেন্দ্র করে তাদের মধ্যে বাগবিতণ্ডা হয়। এ সময় ১২ বছর বয়সী মেয়ে তাদের সামনে ছিলো। এক পর্যায়ে বারেক ধারালো হাসুয়া দিয়ে বিউটির গলাকেটে হত্যার পর পালিয়ে যান।

মেয়ে মাহির চিৎকারে প্রতিবেশীরা এসে দেখে বিউটির রক্তাক্ত মরদেহে মেঝেতে পড়ে আছে। খবর পেয়ে পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নাটোর সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায়।

মেয়ে মাহি জানায়, তার মাকে হাসুয়া দিয়ে গলাকেটে হত্যা করেন তার বারেক। ঘর থেকে বেরিয়ে যাওয়ার সময় তার নাম না বলতে মেয়েকে শাসিয়ে যান তিনি।

বড়াইগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু সিদ্দিক বলেন, ঘাতক স্বামীকে আটক করতে পুলিশ অভিযান শুরু করেছে। এ ঘটনায় থানায় হত্যা মামলার প্রস্তুতি চলছে।

Tag :
জনপ্রিয়

রসিক নির্বাচন ; আ’লীগের মেয়র প্রার্থী ডালিয়ার গণসংযোগ অনুষ্ঠিত

মেয়ের সামনে স্ত্রীকে গলাকেটে হত্যা, পলাতক স্বামী

প্রকাশের সময় : ০৯:৪৪:০০ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২

পরকীয়ার জেরে নাটোরের বড়াইগ্রাম উপজেলায় বিউটি খাতুন (৪০) নামের এক গৃহবধূকে মেয়ের সামনে হাসুয়া দিয়ে গলাকেটে হত্যা করেছেন স্বামী। ঘাতক স্বামীকে আটক করতে অভিযান শুরু করেছে পুলিশ।

শনিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) রাত আড়াইটার দিকে উপজেলার গোপালপুর ইউনিয়নের গোপালপুর স্কুলপাড়ায় এ ঘটনা ঘটে।
সম্পর্কিত খবর

ঘাতক স্বামী আব্দুল বারেক ওই এলাকার মৃত আব্দুল আজিজ সরকারের ছেলে। তিনি পেশায় একজন ভটভটি চালক।

প্রতিবেশীরা জানান, একই এলাকার এক ওয়ার্কশপ মিস্ত্রির সঙ্গে পরকীয়া সম্পর্ক রয়েছে এমন সন্দেহে প্রায়ই বিউটির সঙ্গে বারেকের ঝগড়া হতো। শনিবার রাতে মোবাইল ফোনে কথা বলাকে কেন্দ্র করে তাদের মধ্যে বাগবিতণ্ডা হয়। এ সময় ১২ বছর বয়সী মেয়ে তাদের সামনে ছিলো। এক পর্যায়ে বারেক ধারালো হাসুয়া দিয়ে বিউটির গলাকেটে হত্যার পর পালিয়ে যান।

মেয়ে মাহির চিৎকারে প্রতিবেশীরা এসে দেখে বিউটির রক্তাক্ত মরদেহে মেঝেতে পড়ে আছে। খবর পেয়ে পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নাটোর সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায়।

মেয়ে মাহি জানায়, তার মাকে হাসুয়া দিয়ে গলাকেটে হত্যা করেন তার বারেক। ঘর থেকে বেরিয়ে যাওয়ার সময় তার নাম না বলতে মেয়েকে শাসিয়ে যান তিনি।

বড়াইগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু সিদ্দিক বলেন, ঘাতক স্বামীকে আটক করতে পুলিশ অভিযান শুরু করেছে। এ ঘটনায় থানায় হত্যা মামলার প্রস্তুতি চলছে।