ঢাকা ০২:৫১ অপরাহ্ন, রবিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২২, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বাবর-রিজওয়ান ফ্লপ হতেই ‘ফ্লপ’ পাকিস্তান

পাকিস্তানের ব্যাটিংটা কি বাবর আজম আর মোহাম্মদ রিজওয়ানের ওপর দাঁড়িয়ে? এই যুগল একসঙ্গে জ্বলে উঠতে না পারলে পাকিস্তানকে ধুঁকতে হয়, দেখা গেছে আগেও। গত এশিয়া কাপে রিজওয়ান ফর্মে ছিলেন, কিন্তু রান পাননি বাবর। পাকিস্তানও জিততে পারেনি শিরোপা।

এবার তো বাবর-রিজওয়ান একসঙ্গে ‘ফ্লপ’ হলেন। এই ম্যাচ আর জিতে কি করে পাকিস্তান! জিততে পারেওনি। শুক্রবার রাতে করাচিতে সিরিজের তৃতীয় টি-টোয়েন্টিতে ইংল্যান্ডের কাছে ৬৩ রানের বড় ব্যবধানে হেরেছে স্বাগতিকরা। এই জয়ে সাত ম্যাচ সিরিজে ২-১’এ এগিয়ে গেছে ইংল্যান্ড।

আগের ম্যাচে ইংল্যান্ড আগে ব্যাট করে পাকিস্তানের সামনে ২০০ রানের বিশাল লক্ষ্য ছুড়ে দিয়েছিল। কিন্তু বাবর আজম আর মোহাম্মদ রিজওয়ান মিলেই এই লক্ষ্য পাড়ি দিয়ে ফেলেন কোনো উইকেট না হারিয়ে।

বিশ্বরেকর্ড সে রান তাড়ার পর আরও একবার পরে ব্যাটিং করার সুবিধাটা নিতে চেয়েছিল পাকিস্তান। টস জিতে প্রথমে ইংল্যান্ডকে ব্যাটিংয়ে পাঠায়। কিন্তু এবার আরও বড় সংগ্রহ দাঁড় করায় মঈন আলির দল। ৩ উইকেটেই করে ২২১!

অভিষিক্ত উইল জ্যাকস ২২ বলে খেলেন ৪০ রানের ইনিংস। বেন ডাকেট করেন ৪২ বলে অপরাজিত ৭০। তবে আসল তাণ্ডবটা চালিয়েছেন হ্যারি ব্রুক। ৩৫ বলে ৮ চার আর ৫ ছক্কায় হার না মানা ৮১ করেন এই ব্যাটার।

চতুর্থ উইকেটে ডাকেট আর ব্রুক মিলে অবিচ্ছিন্ন ছিলেন ৬৯ বলে ১৩৯ রানে। যেটি কিনা টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে এই উইকেটে ইংল্যান্ডের রেকর্ড।

২২২ রানের বড় লক্ষ্য দাঁড়ায় পাকিস্তানের সামনে। ২৮ রানের মধ্যেই ৪ উইকেট হারিয়ে ম্যাচ থেকে ছিটকে পড়ে স্বাগতিকরা। বাবর আর রিজওয়ান দুজনই আউট হন সমান ৮ রান করে। হায়দার আলি ৩ আর ইফতিখার করেন ৬।

দলের চরম বিপদের মুখে হাল ধরেন শান মাসুদ। বলতে গেলে একাই লড়াই করেছেন তিনি। তবে পাহাড়সমান লক্ষ্য তাড়ায় এই লড়াই যথেষ্ট ছিল না। ৪০ বলে ৩ চার আর ৪ ছক্কায় ৬৫ রানে অপরাজিত থাকেন মাসুদ। পাকিস্তান থামে ৮ উইকেটে ১৫৮ রানে।

ইংল্যান্ডের মার্ক উড ২৪ রানে নেন ৩ উইকেট। দুটি উইকেট শিকার আদিল রশিদের।

Tag :
জনপ্রিয়

গোমস্তাপুরে অধ্যক্ষের অফিস ভাংচুর আহত-৪

বাবর-রিজওয়ান ফ্লপ হতেই ‘ফ্লপ’ পাকিস্তান

প্রকাশের সময় : ০৭:৪৭:৪৩ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২

পাকিস্তানের ব্যাটিংটা কি বাবর আজম আর মোহাম্মদ রিজওয়ানের ওপর দাঁড়িয়ে? এই যুগল একসঙ্গে জ্বলে উঠতে না পারলে পাকিস্তানকে ধুঁকতে হয়, দেখা গেছে আগেও। গত এশিয়া কাপে রিজওয়ান ফর্মে ছিলেন, কিন্তু রান পাননি বাবর। পাকিস্তানও জিততে পারেনি শিরোপা।

এবার তো বাবর-রিজওয়ান একসঙ্গে ‘ফ্লপ’ হলেন। এই ম্যাচ আর জিতে কি করে পাকিস্তান! জিততে পারেওনি। শুক্রবার রাতে করাচিতে সিরিজের তৃতীয় টি-টোয়েন্টিতে ইংল্যান্ডের কাছে ৬৩ রানের বড় ব্যবধানে হেরেছে স্বাগতিকরা। এই জয়ে সাত ম্যাচ সিরিজে ২-১’এ এগিয়ে গেছে ইংল্যান্ড।

আগের ম্যাচে ইংল্যান্ড আগে ব্যাট করে পাকিস্তানের সামনে ২০০ রানের বিশাল লক্ষ্য ছুড়ে দিয়েছিল। কিন্তু বাবর আজম আর মোহাম্মদ রিজওয়ান মিলেই এই লক্ষ্য পাড়ি দিয়ে ফেলেন কোনো উইকেট না হারিয়ে।

বিশ্বরেকর্ড সে রান তাড়ার পর আরও একবার পরে ব্যাটিং করার সুবিধাটা নিতে চেয়েছিল পাকিস্তান। টস জিতে প্রথমে ইংল্যান্ডকে ব্যাটিংয়ে পাঠায়। কিন্তু এবার আরও বড় সংগ্রহ দাঁড় করায় মঈন আলির দল। ৩ উইকেটেই করে ২২১!

অভিষিক্ত উইল জ্যাকস ২২ বলে খেলেন ৪০ রানের ইনিংস। বেন ডাকেট করেন ৪২ বলে অপরাজিত ৭০। তবে আসল তাণ্ডবটা চালিয়েছেন হ্যারি ব্রুক। ৩৫ বলে ৮ চার আর ৫ ছক্কায় হার না মানা ৮১ করেন এই ব্যাটার।

চতুর্থ উইকেটে ডাকেট আর ব্রুক মিলে অবিচ্ছিন্ন ছিলেন ৬৯ বলে ১৩৯ রানে। যেটি কিনা টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে এই উইকেটে ইংল্যান্ডের রেকর্ড।

২২২ রানের বড় লক্ষ্য দাঁড়ায় পাকিস্তানের সামনে। ২৮ রানের মধ্যেই ৪ উইকেট হারিয়ে ম্যাচ থেকে ছিটকে পড়ে স্বাগতিকরা। বাবর আর রিজওয়ান দুজনই আউট হন সমান ৮ রান করে। হায়দার আলি ৩ আর ইফতিখার করেন ৬।

দলের চরম বিপদের মুখে হাল ধরেন শান মাসুদ। বলতে গেলে একাই লড়াই করেছেন তিনি। তবে পাহাড়সমান লক্ষ্য তাড়ায় এই লড়াই যথেষ্ট ছিল না। ৪০ বলে ৩ চার আর ৪ ছক্কায় ৬৫ রানে অপরাজিত থাকেন মাসুদ। পাকিস্তান থামে ৮ উইকেটে ১৫৮ রানে।

ইংল্যান্ডের মার্ক উড ২৪ রানে নেন ৩ উইকেট। দুটি উইকেট শিকার আদিল রশিদের।