ঢাকা ০৩:৩০ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ০১ অক্টোবর ২০২২, ১৫ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

এসএসসি পরীক্ষার্থীকে দলবদ্ধ ধর্ষণ, গ্রেপ্তার ২

যশোরে শার্শায় এক এসএসসি পরীক্ষার্থীকে (১৭) দলবদ্ধ ধর্ষণের ঘটনায় দুইজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন- শার্শা উপজেলার নিজামপুর ইউনিয়নের বড় নিজামপুর গ্রামের মাছ ব্যবসায়ী শাহাজাহান মল্লিকের ছেলে হাসান আলী (২০) ও একই গ্রামের রিজাউল করিমের ছেলে মাসুদ (২০)।

শার্শা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মামুন খান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এসএসসি পরীক্ষার্থী মেয়েটির স্বজনরা জানান, ছাত্রীর মা অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি থাকায় বাড়ি ফাঁকা ছিলো। এ সুযোগে বুধবার দিবাগত রাত ১১টার দিকে হাসান আলী তার বন্ধু মাসুদকে নিয়ে ঘরে ঢুকে এ ধর্ষণকাণ্ড ঘটায়। এ সময় সাকিব, নাসিম ও নুরুজ্জামান মোবাইল ফোনে ভিডিও ধারণ করে। একপর্যায়ে হাসান ও মাসুদকে মারধর করে আটকে রেখে ওই তিনজন ছাত্রীকে ধর্ষণ করে পালিয়ে যায়। এ সময় স্থানীয়রা আটক হাসান আলী ও মাসুদকে পুলিশের হাতে তুলে দেয়।

এ বিষয়ে ওসি মামুন খান বলেন, এ ঘটনায় মামলা হয়েছে। মামলার পর অভিযুক্ত দুইজনকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। পরীক্ষার্থী ছাত্রীকে পুলিশ প্রহরায় পরীক্ষা দেয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। পরীক্ষার পর তার জবানবন্দির জন্য যশোর আদালতে ও স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য যশোর জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তবে পলাতক তিনজনকে গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।

পলাতক তিনজন হলেন- নিজামপুর ইউনিয়নের কন্দপপুর গ্রামের ফটিকের ছেলে সাকিব (২৮), জাহানের ছেলে নাসিম হোসেন (২৮) ও মিজান চৌকিদারে ছেলে নুরুজ্জামান (২৭)।

Tag :
জনপ্রিয়

হোসেনপুর বাজার সনাতন ধর্মাবলম্বী ব্যাবসায়িকদের উদ্যোগে বস্ত্র বিতরণ

এসএসসি পরীক্ষার্থীকে দলবদ্ধ ধর্ষণ, গ্রেপ্তার ২

প্রকাশের সময় : ১১:০২:৫৩ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২২

যশোরে শার্শায় এক এসএসসি পরীক্ষার্থীকে (১৭) দলবদ্ধ ধর্ষণের ঘটনায় দুইজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন- শার্শা উপজেলার নিজামপুর ইউনিয়নের বড় নিজামপুর গ্রামের মাছ ব্যবসায়ী শাহাজাহান মল্লিকের ছেলে হাসান আলী (২০) ও একই গ্রামের রিজাউল করিমের ছেলে মাসুদ (২০)।

শার্শা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মামুন খান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এসএসসি পরীক্ষার্থী মেয়েটির স্বজনরা জানান, ছাত্রীর মা অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি থাকায় বাড়ি ফাঁকা ছিলো। এ সুযোগে বুধবার দিবাগত রাত ১১টার দিকে হাসান আলী তার বন্ধু মাসুদকে নিয়ে ঘরে ঢুকে এ ধর্ষণকাণ্ড ঘটায়। এ সময় সাকিব, নাসিম ও নুরুজ্জামান মোবাইল ফোনে ভিডিও ধারণ করে। একপর্যায়ে হাসান ও মাসুদকে মারধর করে আটকে রেখে ওই তিনজন ছাত্রীকে ধর্ষণ করে পালিয়ে যায়। এ সময় স্থানীয়রা আটক হাসান আলী ও মাসুদকে পুলিশের হাতে তুলে দেয়।

এ বিষয়ে ওসি মামুন খান বলেন, এ ঘটনায় মামলা হয়েছে। মামলার পর অভিযুক্ত দুইজনকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। পরীক্ষার্থী ছাত্রীকে পুলিশ প্রহরায় পরীক্ষা দেয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। পরীক্ষার পর তার জবানবন্দির জন্য যশোর আদালতে ও স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য যশোর জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তবে পলাতক তিনজনকে গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।

পলাতক তিনজন হলেন- নিজামপুর ইউনিয়নের কন্দপপুর গ্রামের ফটিকের ছেলে সাকিব (২৮), জাহানের ছেলে নাসিম হোসেন (২৮) ও মিজান চৌকিদারে ছেলে নুরুজ্জামান (২৭)।