ঢাকা ০৮:২৩ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৪ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

রওশন এরশাদ তার ছেলে ও আরও দুই-এক জনের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছেন: চুন্নু।

জাতীয় পার্টির মহাসচিব মো. মুজিবুল হক চুন্নু বলেছেন, রওশন এরশাদ পার্টির বিরুদ্ধে স্বেচ্ছায় কিছু করছেন বলে বিশ্বাস করি না। তবে, ম্যাডাম (রওশন এরশাদ) তার ছেলে ও আরও দুই-এক জনের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছেন।

বৃহস্পতিবার (২২ সেপ্টেম্বর) বনানী জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যানের কার্যালয়ে উপস্থিত সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন।

চুন্নু বলেন, গতকাল বেগম রওশন এরশাদের যে চিঠি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে, সে চিঠি আমরা আমলেই নিচ্ছি না।

জাতীয় পার্টির গঠনতন্ত্র ও ২০ ধারা নিয়ে মসিউর রহমান রাঙার কথা বলা স্ববিরোধী উল্লেখ করে চুন্নু আরও বলেন, হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ এই ধারা ব্যবহার করে সাবেক মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদারকে সরিয়ে মসিউর রহমান রাঙাকে মহাসচিব করেছিলেন। তখন তিনি গঠনতন্ত্রের ওই ধারার সুবিধাভোগী হন। তখন তিনি গঠনতন্ত্রের এই ধারার বিরোধীতা করেননি।

জাপা মহাসচিব বলেন, ২০১৮ সালের কাউন্সিলের আগে মসিউর রহমান রাঙা মহাসচিব ছিলেন। কাউন্সিলে যে গঠনতন্ত্র অনুমোদন হয়েছিল সেই প্রক্রিয়ায় কাউন্সিল পরবর্তী প্রায় দুই বছর তিনি মহাসচিবের দায়িত্ব পালন করেছেন। মহাসচিব থাকা অবস্থায় তো কখনও এই গঠনতন্ত্রের কোনো ধারার বিরোধীতা বা আপত্তি করেননি।

জাতীয় পার্টির গঠনতন্ত্র নির্বাচন কমিশন এবং ওয়েবসাইটে দেওয়া আছে জানিয়ে সাবেক এই মন্ত্রী বলেন, প্রয়োজন হলে যে কেউ দেখে নিতে পারেন।

Tag :

মধ্যনগরে দুর্গোৎসব উপলক্ষে ৩৩টি পূজামন্ডপে নগদ অর্থ প্রদান করেন, এমপি রতন

রওশন এরশাদ তার ছেলে ও আরও দুই-এক জনের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছেন: চুন্নু।

প্রকাশের সময় : ০৩:০৪:৩৬ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২২

জাতীয় পার্টির মহাসচিব মো. মুজিবুল হক চুন্নু বলেছেন, রওশন এরশাদ পার্টির বিরুদ্ধে স্বেচ্ছায় কিছু করছেন বলে বিশ্বাস করি না। তবে, ম্যাডাম (রওশন এরশাদ) তার ছেলে ও আরও দুই-এক জনের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছেন।

বৃহস্পতিবার (২২ সেপ্টেম্বর) বনানী জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যানের কার্যালয়ে উপস্থিত সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন।

চুন্নু বলেন, গতকাল বেগম রওশন এরশাদের যে চিঠি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে, সে চিঠি আমরা আমলেই নিচ্ছি না।

জাতীয় পার্টির গঠনতন্ত্র ও ২০ ধারা নিয়ে মসিউর রহমান রাঙার কথা বলা স্ববিরোধী উল্লেখ করে চুন্নু আরও বলেন, হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ এই ধারা ব্যবহার করে সাবেক মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদারকে সরিয়ে মসিউর রহমান রাঙাকে মহাসচিব করেছিলেন। তখন তিনি গঠনতন্ত্রের ওই ধারার সুবিধাভোগী হন। তখন তিনি গঠনতন্ত্রের এই ধারার বিরোধীতা করেননি।

জাপা মহাসচিব বলেন, ২০১৮ সালের কাউন্সিলের আগে মসিউর রহমান রাঙা মহাসচিব ছিলেন। কাউন্সিলে যে গঠনতন্ত্র অনুমোদন হয়েছিল সেই প্রক্রিয়ায় কাউন্সিল পরবর্তী প্রায় দুই বছর তিনি মহাসচিবের দায়িত্ব পালন করেছেন। মহাসচিব থাকা অবস্থায় তো কখনও এই গঠনতন্ত্রের কোনো ধারার বিরোধীতা বা আপত্তি করেননি।

জাতীয় পার্টির গঠনতন্ত্র নির্বাচন কমিশন এবং ওয়েবসাইটে দেওয়া আছে জানিয়ে সাবেক এই মন্ত্রী বলেন, প্রয়োজন হলে যে কেউ দেখে নিতে পারেন।