ঢাকা ০৮:০১ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৪ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বেতন বাড়লো গ্রাম পুলিশের

পাঁচ বছর পর ইউনিয়ন পরিষদের গ্রাম পুলিশ (দফাদার ও মহল্লাদার) হিসেবে কর্মরত সরকারি কর্মচারীদের বেতন-ভাতা ১৫ থেকে ২৩৩ শতাংশ বাড়িয়েছে সরকার। তবে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও সদস্যদের সম্মানী একই রয়ে গেছে।

স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় থেকে এ সংক্রান্ত একটি চিঠি পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য অর্থ মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে।

বর্তমানে, বাংলাদেশে মোট ৪,৫৭৬টি ইউনিয়ন পরিষদ রয়েছে, যা দেশের সবচেয়ে ছোট প্রশাসনিক ইউনিট। প্রতিটি ইউনিয়ন পরিষদের অধীনে ১০ জন করে গ্রাম পুলিশ কর্মরত আছেন। তাদের মধ্যে একজন দফাদার এবং নয়জন মহল্লাদার পদে রয়েছেন। প্রতিটি ইউনিয়ন পরিষদ ৯টি ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত।

ইউনিয়ন পরিষদের দফাদারদের বেতন ৭ হাজার টাকা থেকে বাড়িয়ে ৮ হাজার ৫০০ টাকা বা ২১. ৪৩ শতাংশ করা হয়েছে। এবং তাদের অবসর ভাতা ৬০,০০০ টাকা থেকে ২,০০,০০০ টাকা বা ২৩৩ শতাংশে উন্নীত করা হয়েছে।

একজন মহল্লাদারের বেতন ৬,৫০০ টাকা থেকে ৭,৫০০ টাকা বা ১৫.৩৮ শতাংশ করা হয়েছে। এবং তাদের অবসর ভাতা ৫০,০০০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ১,৫০,০০০ টাকা করা হয়েছে। অবসরের সুবিধা ২০০ শতাংশ বেড়েছে।

গ্রাম পুলিশ সদস্যরা তাদের বেতনের ৫০ শতাংশ পাবেন সরকারি কোষাগার থেকে এবং বাকিটা পাবেন নিজ নিজ ইউনিয়ন পরিষদ থেকে।

কর্মকর্তারা বলেছেন যে এই পদক্ষেপটি তৃণমূল পুলিশকে তাদের দায়িত্ব পালনের সময় আরও আন্তরিক করে তুলবে।

তবে অনেক ইউনিয়ন পরিষদ তাদের পুলিশের বেতন-ভাতা সময়মতো দিতে পারছে না। ফলে অনেক সময় উপজেলা পরিষদের হাট-বাজারের ইজারার টাকা জমা দেওয়ার জন্য সৃষ্ট তহবিল থেকে বেতন-ভাতা দেওয়া হচ্ছে।

Tag :

মধ্যনগরে দুর্গোৎসব উপলক্ষে ৩৩টি পূজামন্ডপে নগদ অর্থ প্রদান করেন, এমপি রতন

বেতন বাড়লো গ্রাম পুলিশের

প্রকাশের সময় : ০৯:২২:৩৭ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২২

পাঁচ বছর পর ইউনিয়ন পরিষদের গ্রাম পুলিশ (দফাদার ও মহল্লাদার) হিসেবে কর্মরত সরকারি কর্মচারীদের বেতন-ভাতা ১৫ থেকে ২৩৩ শতাংশ বাড়িয়েছে সরকার। তবে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও সদস্যদের সম্মানী একই রয়ে গেছে।

স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় থেকে এ সংক্রান্ত একটি চিঠি পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য অর্থ মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে।

বর্তমানে, বাংলাদেশে মোট ৪,৫৭৬টি ইউনিয়ন পরিষদ রয়েছে, যা দেশের সবচেয়ে ছোট প্রশাসনিক ইউনিট। প্রতিটি ইউনিয়ন পরিষদের অধীনে ১০ জন করে গ্রাম পুলিশ কর্মরত আছেন। তাদের মধ্যে একজন দফাদার এবং নয়জন মহল্লাদার পদে রয়েছেন। প্রতিটি ইউনিয়ন পরিষদ ৯টি ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত।

ইউনিয়ন পরিষদের দফাদারদের বেতন ৭ হাজার টাকা থেকে বাড়িয়ে ৮ হাজার ৫০০ টাকা বা ২১. ৪৩ শতাংশ করা হয়েছে। এবং তাদের অবসর ভাতা ৬০,০০০ টাকা থেকে ২,০০,০০০ টাকা বা ২৩৩ শতাংশে উন্নীত করা হয়েছে।

একজন মহল্লাদারের বেতন ৬,৫০০ টাকা থেকে ৭,৫০০ টাকা বা ১৫.৩৮ শতাংশ করা হয়েছে। এবং তাদের অবসর ভাতা ৫০,০০০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ১,৫০,০০০ টাকা করা হয়েছে। অবসরের সুবিধা ২০০ শতাংশ বেড়েছে।

গ্রাম পুলিশ সদস্যরা তাদের বেতনের ৫০ শতাংশ পাবেন সরকারি কোষাগার থেকে এবং বাকিটা পাবেন নিজ নিজ ইউনিয়ন পরিষদ থেকে।

কর্মকর্তারা বলেছেন যে এই পদক্ষেপটি তৃণমূল পুলিশকে তাদের দায়িত্ব পালনের সময় আরও আন্তরিক করে তুলবে।

তবে অনেক ইউনিয়ন পরিষদ তাদের পুলিশের বেতন-ভাতা সময়মতো দিতে পারছে না। ফলে অনেক সময় উপজেলা পরিষদের হাট-বাজারের ইজারার টাকা জমা দেওয়ার জন্য সৃষ্ট তহবিল থেকে বেতন-ভাতা দেওয়া হচ্ছে।