ঢাকা ০৫:৩১ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ০১ অক্টোবর ২০২২, ১৫ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ডাসারে ডুবাই প্রবাসী শাওন হাওলাদার নিখোঁজ ছেলেকে ফিরে পেতে বাবা মায়ের সংবাদ সম্মেলন”

মাদারীপুরের ডাসার উপজেলার কাজীবাকাই ইউনিয়নের পূর্ব মাইজপাড়া গ্রামের দেলোর বাজার নামক স্থানে মঙ্গলবার বিকালে এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেন নিখোঁজ শাওনের বাবা মিন্টু হাওলাদার,সহ ভূক্তভূগির পরিবারের লোকজন।

 

নিখোঁজ শাওনের বাবা তার লিখিত বক্তব্যে বলেন, আমরা অতিদরিদ্র পরিবার হওয়ায়, আমার পরিবারের স্বছলতা ফিরিয়ে আনতে আমার ছোট ছেলে শাওনকে বিগত (২৮ শে ফেব্রুয়ারি)২০২২ ইং তারিখে ধারদেনা ও জমিজমা বন্ধকরেখে,একই ইউনিয়নের পাশবর্তি এলাকার আদম ব্যবসায়ী দুবাই প্রবাসী বোরহান হাওলাদার, রুবেল মৃধা, করিমন বেগম,এর মাধ্যমে ৩,৫০,০০০/=(তিন লক্ষ পঞ্চাশ হাজার) টাকা দিয়ে দুবাই পাঠাই।

 

আমার ছেলেকে দুবাই নেওয়ার পর তাকে কাজ ধরিয়ে দেওয়ার কথা ছিলো,কিন্তু বোরহান আমার ছেলেকে কাজ ধরাইয়া দেয় নাই, গত( ১১ সেপ্টেম্বর)২০২২ ইং তারিখ রাত্র অনুমান ১২ ঘটিকার সময় দুবাই থেকে বোরহান আমাকে ফোন করে জানায় আপানার ছেলে শাওন অসুস্থ তাই আমি তাকে (৭সেপ্টেম্বর)২০২২ ইং তারিখে চট্টগ্রামের ফেলাইটে বাংলাদেশে পাঠিয়ে দিয়েছি।

 

আজ(২২সেপ্টেম্বর) আমার ছেলে নিখোঁজের ১৬ দিন হয়ে গেলেও আমার ছেলের কোনো খোজ পাওয়া যায় নাই, দালাল চক্রের সদস্য বোরহান আমার ছেলেকে বাংলাদেশে পাঠাইছে বলেছেন, কিন্তু পাঠাইছে কি না সেটাও আমরা জানিনা, আমার ছেলে শাওনকে ফেরত পাওয়ার জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

 

নিখোঁজ শাওনের মা মুন্নি বেগম বলেন, দালাল চক্রের সদস্য বোরহান, রুবেল মৃধা,করিমন বেগম,আমার ছেলেকে কি করেছে আমরা জানিনা, আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে বিচার চাই, প্রধানমন্ত্রী যেনো আমার ছেলেকে আমার বুকে ফেরত পাওয়ার ব্যাবস্থা করে দেয়,সংবাদ সম্মেলনে এসময় নিখোঁজ শাওনের পরিবার সহ অত্র এলাকার গণ্যমান্য ব্যাক্তি বর্গ উপস্থিত ছিলেন।

 

এবিষয়ে শাওনের বাবা মিন্টু হাওলাদার সাংবাদিকদের আরো বলেন, আমি ডাসার থানায় গিয়েছিলাম দালাল চক্রের বিরুদ্ধে মামলা করার জন্য,ওসি সাহেব বলছেন,আপনার ছেলে আপনার বাড়ি অথবা ডাসার থানার আওতা থেকে নিখোঁজ হয়েছে কি না তদন্ত করে দেখবো ঘটনাযর সত্যতা পাওয়া গেলে আইনগত ব্যবস্থা নিবো

 

অপরদিকে অভিযক্ত দুবাই প্রবাসী,বোরহান হাওলাদার এর বাড়ীতে গিয়ে বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি সাংবাদিকদের মুঠোফোনে বলেন, আমি শাওনকে দুবাই থেকে গত (৭সেপ্টেম্বর) ২০২২ই তারিখে চট্টগ্রামের ফ্লাইটে বাংলাদেশে পাঠিয়ে দিয়েছি।

 

প্রবাসী বোরহানের স্ত্রী করিমন বেগম বলেন,ভুক্তভোগী পরিবারের এইসব অভিযোগ মিথ্যাও বানোয়াট সে অসুস্থ থাকায় আমার স্বামী বোরহান প্লেনের টিকিট কেটে তাকে বাংলাদেশে পাঠিয়ে দিয়েছেন। তিনি আরো বলেন আমি শুনেছি, শাওন দুবাই থেকে আসার সময় দুবাই প্রবাসী সিলেটের লোকে তার কাছে বিভিন্ন ধরনের মালামাল পাঠিয়েছে এবং সিলেটের সেই লোক তাদের বাড়িতে আসছিলো, আমার ধারনা শাওন ওই মালামাল আত্বসাত করার জন্য পালিয়ে আছে।

 

এসময় নিখোঁজ শাওনের মা,বাবা, তাদের সন্তান ফেরত পাওয়ার দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন এবং দালাল চক্র বোরহান হাওলাদার, রুবেল মৃধা,করিমন বেগমকে গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে ডাসার থানা পুলিশ সহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

 

এবিষয় ডাসার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ হাসানুজ্জামান এর কাছে নিখোঁজ শাওনের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি তদন্ত করে দেখবো,যদি আমার থানার আওতায় ঘটনা ঘটে এবং ঘটনার সত্যতা পাওয়া যায়, আমি আইনগত ব্যবস্থা নিবো।

Tag :
জনপ্রিয়

হোসেনপুর বাজার সনাতন ধর্মাবলম্বী ব্যাবসায়িকদের উদ্যোগে বস্ত্র বিতরণ

ডাসারে ডুবাই প্রবাসী শাওন হাওলাদার নিখোঁজ ছেলেকে ফিরে পেতে বাবা মায়ের সংবাদ সম্মেলন”

প্রকাশের সময় : ০২:৩৫:২১ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২২

মাদারীপুরের ডাসার উপজেলার কাজীবাকাই ইউনিয়নের পূর্ব মাইজপাড়া গ্রামের দেলোর বাজার নামক স্থানে মঙ্গলবার বিকালে এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেন নিখোঁজ শাওনের বাবা মিন্টু হাওলাদার,সহ ভূক্তভূগির পরিবারের লোকজন।

 

নিখোঁজ শাওনের বাবা তার লিখিত বক্তব্যে বলেন, আমরা অতিদরিদ্র পরিবার হওয়ায়, আমার পরিবারের স্বছলতা ফিরিয়ে আনতে আমার ছোট ছেলে শাওনকে বিগত (২৮ শে ফেব্রুয়ারি)২০২২ ইং তারিখে ধারদেনা ও জমিজমা বন্ধকরেখে,একই ইউনিয়নের পাশবর্তি এলাকার আদম ব্যবসায়ী দুবাই প্রবাসী বোরহান হাওলাদার, রুবেল মৃধা, করিমন বেগম,এর মাধ্যমে ৩,৫০,০০০/=(তিন লক্ষ পঞ্চাশ হাজার) টাকা দিয়ে দুবাই পাঠাই।

 

আমার ছেলেকে দুবাই নেওয়ার পর তাকে কাজ ধরিয়ে দেওয়ার কথা ছিলো,কিন্তু বোরহান আমার ছেলেকে কাজ ধরাইয়া দেয় নাই, গত( ১১ সেপ্টেম্বর)২০২২ ইং তারিখ রাত্র অনুমান ১২ ঘটিকার সময় দুবাই থেকে বোরহান আমাকে ফোন করে জানায় আপানার ছেলে শাওন অসুস্থ তাই আমি তাকে (৭সেপ্টেম্বর)২০২২ ইং তারিখে চট্টগ্রামের ফেলাইটে বাংলাদেশে পাঠিয়ে দিয়েছি।

 

আজ(২২সেপ্টেম্বর) আমার ছেলে নিখোঁজের ১৬ দিন হয়ে গেলেও আমার ছেলের কোনো খোজ পাওয়া যায় নাই, দালাল চক্রের সদস্য বোরহান আমার ছেলেকে বাংলাদেশে পাঠাইছে বলেছেন, কিন্তু পাঠাইছে কি না সেটাও আমরা জানিনা, আমার ছেলে শাওনকে ফেরত পাওয়ার জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

 

নিখোঁজ শাওনের মা মুন্নি বেগম বলেন, দালাল চক্রের সদস্য বোরহান, রুবেল মৃধা,করিমন বেগম,আমার ছেলেকে কি করেছে আমরা জানিনা, আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে বিচার চাই, প্রধানমন্ত্রী যেনো আমার ছেলেকে আমার বুকে ফেরত পাওয়ার ব্যাবস্থা করে দেয়,সংবাদ সম্মেলনে এসময় নিখোঁজ শাওনের পরিবার সহ অত্র এলাকার গণ্যমান্য ব্যাক্তি বর্গ উপস্থিত ছিলেন।

 

এবিষয়ে শাওনের বাবা মিন্টু হাওলাদার সাংবাদিকদের আরো বলেন, আমি ডাসার থানায় গিয়েছিলাম দালাল চক্রের বিরুদ্ধে মামলা করার জন্য,ওসি সাহেব বলছেন,আপনার ছেলে আপনার বাড়ি অথবা ডাসার থানার আওতা থেকে নিখোঁজ হয়েছে কি না তদন্ত করে দেখবো ঘটনাযর সত্যতা পাওয়া গেলে আইনগত ব্যবস্থা নিবো

 

অপরদিকে অভিযক্ত দুবাই প্রবাসী,বোরহান হাওলাদার এর বাড়ীতে গিয়ে বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি সাংবাদিকদের মুঠোফোনে বলেন, আমি শাওনকে দুবাই থেকে গত (৭সেপ্টেম্বর) ২০২২ই তারিখে চট্টগ্রামের ফ্লাইটে বাংলাদেশে পাঠিয়ে দিয়েছি।

 

প্রবাসী বোরহানের স্ত্রী করিমন বেগম বলেন,ভুক্তভোগী পরিবারের এইসব অভিযোগ মিথ্যাও বানোয়াট সে অসুস্থ থাকায় আমার স্বামী বোরহান প্লেনের টিকিট কেটে তাকে বাংলাদেশে পাঠিয়ে দিয়েছেন। তিনি আরো বলেন আমি শুনেছি, শাওন দুবাই থেকে আসার সময় দুবাই প্রবাসী সিলেটের লোকে তার কাছে বিভিন্ন ধরনের মালামাল পাঠিয়েছে এবং সিলেটের সেই লোক তাদের বাড়িতে আসছিলো, আমার ধারনা শাওন ওই মালামাল আত্বসাত করার জন্য পালিয়ে আছে।

 

এসময় নিখোঁজ শাওনের মা,বাবা, তাদের সন্তান ফেরত পাওয়ার দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন এবং দালাল চক্র বোরহান হাওলাদার, রুবেল মৃধা,করিমন বেগমকে গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে ডাসার থানা পুলিশ সহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

 

এবিষয় ডাসার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ হাসানুজ্জামান এর কাছে নিখোঁজ শাওনের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি তদন্ত করে দেখবো,যদি আমার থানার আওতায় ঘটনা ঘটে এবং ঘটনার সত্যতা পাওয়া যায়, আমি আইনগত ব্যবস্থা নিবো।