ঢাকা ১০:৫৫ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১২ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আজ থেকে হলে হলে ফেরদৌস

গত বছর জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত দেশনন্দিত নায়ক ফেরদৌস অভিনীত সর্বশেষ সিনেমা মুক্তি পায়। এ বছরে এবারই প্রথম তার অভিনীত কোনো সিনেমা মুক্তি পেতে যাচ্ছে। মাহমুদ দিদার পরিচালিত ফেরদৌস অভিনীত ‘বিউটি সার্কাস’ সিনেমাটি মুক্তি পেতে যাচ্ছে।

এরইমধ্যে সিনেমাটির প্রচারেও অংশ নিচ্ছেন ফেরদৌস। কারণ ফেরদৌস মনে করেন একটি সিনেমা দর্শকের কাছে পৌঁছে নেবার ক্ষেত্রে প্রচারের কোনো বিকল্প নেই।

তাই তিনি গত বুধবার ‘বিউটি সার্কাস’র প্রচারে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসিতে গিয়েছিলেন। আবার সিনেমাটি মুক্তির পরও কয়েকটি হলে এবং বিভিন্ন জায়গায় প্রচারে যাবেন বলে জানান ফেরদৌস।

সিনেমাটিতে অভিনয় এবং সিনেমাটি নিয়ে আশাবাদ ব্যক্ত করে ফেরদৌস বলেন, ‘বিউটি সার্কাস সিনেমায় আমি মির্জা মোহাম্মদ বখতিয়ারের চরিত্রে অভিনয় করেছি। যে কি-না মূলত তার এলাকায় আসা বিউটি সার্কাসের প্রধান অভিনেত্রীর সঙ্গে অনেকটাই জোর করে প্রেম করতে চায়। কিন্তু যে প্রকৃত শিল্পী, তারও যে ব্যক্তিত্ব আছে, শিল্পের প্রতি ভালোবাসা আছে— সেটা অনেক সময় কেউ বুঝতে চায় না। সবকিছু মিলিয়ে বিউটি সার্কাস একটি অন্যরকম সিনেমা। এখন ভালো গল্পের, ভালো সিনেমার সুদিন বইছে। আমার কাছে মনে হয় দর্শক এই সিনেমাটিও উপভোগ করতে হলে হলে আসবেন।’

ফেরদৌস জানান, এর আগে এই সিনেমার অন্যতম প্রধান শিল্পী জয়া আহসানের সঙ্গে নাসির উদ্দিন ইউসুফের পরিচালনায় মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক চলচ্চিত্র ‘গেরিলা’তে একসঙ্গে অভিনয় করেছিলেন। দীর্ঘদিন পর তাদের একসঙ্গে কোনো সিনেমা মুক্তি পেতে যাচ্ছে। ‘হঠাৎ বৃষ্টি’, ‘গঙ্গাযাত্রা’, ‘এক কাপ চা’, ‘কুসুম কুসুম প্রেম’ ও ‘পুত্র’ সিনেমাতে অভিনয়ের জন্য জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে ভূষিত হন ফেরদৌস।

গত বছর ১৯ মার্চ মুক্তি পেয়েছিল ফেরদৌস অভিনীত ‘গন্তব্য’ সিনেমাটি। ‘বিউটি সার্কাস’ একটি সরকারি অনুদানে নির্মিত সিনেমা। এই সিনেমার শুটিং শুরু হয়েছিল ২০১৭ সালে। বলা যায়, প্রায় ছয় বছর পর সিনেমাটি অবশেষে আলোর মুখ দেখতে যাচ্ছে আজ।

এদিকে সরকারি অনুদানের আরও বেশক’টি সিনেমার কাজ শেষ করেছেন ফেরদৌস। সিনেমাগুলো হচ্ছে হূদি হকের ‘১৯৭১ সেইসব দিন’, নূর ই আলমের শিশুতোষ সিনেমা ‘রাসেলের জন্য অপেক্ষা’, শুদ্ধমান চৈতনের ‘দামপাড়া’, জেডএইচ মিন্টুর ‘ক্ষমা নেই। শিশু একাডেমির অনুদানপ্রাপ্ত সিনেমা আফজাল হোসেনের ‘মানিকের লাল কাঁকড়া’, নঈম ইমতিয়াজ নেয়ামুলের ‘জ্যাম’ ও ‘গাঙচিল’ও রয়েছে মুক্তির অপেক্ষায়।

এছাড়া আগামী মাস থেকে ছটকু আহমেদের পরিচালনায় ‘আহারে জীবন’ সিনেমার কাজও শুরু করতে যাচ্ছেন তিনি। এতে তার বিপরীতে আছেন পূর্ণিমা।

Tag :

প্রতিমায় রং তুলির আঁচড়ে ব্যস্ত কারিগররা

আজ থেকে হলে হলে ফেরদৌস

প্রকাশের সময় : ০৮:০৫:২৯ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২২

গত বছর জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত দেশনন্দিত নায়ক ফেরদৌস অভিনীত সর্বশেষ সিনেমা মুক্তি পায়। এ বছরে এবারই প্রথম তার অভিনীত কোনো সিনেমা মুক্তি পেতে যাচ্ছে। মাহমুদ দিদার পরিচালিত ফেরদৌস অভিনীত ‘বিউটি সার্কাস’ সিনেমাটি মুক্তি পেতে যাচ্ছে।

এরইমধ্যে সিনেমাটির প্রচারেও অংশ নিচ্ছেন ফেরদৌস। কারণ ফেরদৌস মনে করেন একটি সিনেমা দর্শকের কাছে পৌঁছে নেবার ক্ষেত্রে প্রচারের কোনো বিকল্প নেই।

তাই তিনি গত বুধবার ‘বিউটি সার্কাস’র প্রচারে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসিতে গিয়েছিলেন। আবার সিনেমাটি মুক্তির পরও কয়েকটি হলে এবং বিভিন্ন জায়গায় প্রচারে যাবেন বলে জানান ফেরদৌস।

সিনেমাটিতে অভিনয় এবং সিনেমাটি নিয়ে আশাবাদ ব্যক্ত করে ফেরদৌস বলেন, ‘বিউটি সার্কাস সিনেমায় আমি মির্জা মোহাম্মদ বখতিয়ারের চরিত্রে অভিনয় করেছি। যে কি-না মূলত তার এলাকায় আসা বিউটি সার্কাসের প্রধান অভিনেত্রীর সঙ্গে অনেকটাই জোর করে প্রেম করতে চায়। কিন্তু যে প্রকৃত শিল্পী, তারও যে ব্যক্তিত্ব আছে, শিল্পের প্রতি ভালোবাসা আছে— সেটা অনেক সময় কেউ বুঝতে চায় না। সবকিছু মিলিয়ে বিউটি সার্কাস একটি অন্যরকম সিনেমা। এখন ভালো গল্পের, ভালো সিনেমার সুদিন বইছে। আমার কাছে মনে হয় দর্শক এই সিনেমাটিও উপভোগ করতে হলে হলে আসবেন।’

ফেরদৌস জানান, এর আগে এই সিনেমার অন্যতম প্রধান শিল্পী জয়া আহসানের সঙ্গে নাসির উদ্দিন ইউসুফের পরিচালনায় মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক চলচ্চিত্র ‘গেরিলা’তে একসঙ্গে অভিনয় করেছিলেন। দীর্ঘদিন পর তাদের একসঙ্গে কোনো সিনেমা মুক্তি পেতে যাচ্ছে। ‘হঠাৎ বৃষ্টি’, ‘গঙ্গাযাত্রা’, ‘এক কাপ চা’, ‘কুসুম কুসুম প্রেম’ ও ‘পুত্র’ সিনেমাতে অভিনয়ের জন্য জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে ভূষিত হন ফেরদৌস।

গত বছর ১৯ মার্চ মুক্তি পেয়েছিল ফেরদৌস অভিনীত ‘গন্তব্য’ সিনেমাটি। ‘বিউটি সার্কাস’ একটি সরকারি অনুদানে নির্মিত সিনেমা। এই সিনেমার শুটিং শুরু হয়েছিল ২০১৭ সালে। বলা যায়, প্রায় ছয় বছর পর সিনেমাটি অবশেষে আলোর মুখ দেখতে যাচ্ছে আজ।

এদিকে সরকারি অনুদানের আরও বেশক’টি সিনেমার কাজ শেষ করেছেন ফেরদৌস। সিনেমাগুলো হচ্ছে হূদি হকের ‘১৯৭১ সেইসব দিন’, নূর ই আলমের শিশুতোষ সিনেমা ‘রাসেলের জন্য অপেক্ষা’, শুদ্ধমান চৈতনের ‘দামপাড়া’, জেডএইচ মিন্টুর ‘ক্ষমা নেই। শিশু একাডেমির অনুদানপ্রাপ্ত সিনেমা আফজাল হোসেনের ‘মানিকের লাল কাঁকড়া’, নঈম ইমতিয়াজ নেয়ামুলের ‘জ্যাম’ ও ‘গাঙচিল’ও রয়েছে মুক্তির অপেক্ষায়।

এছাড়া আগামী মাস থেকে ছটকু আহমেদের পরিচালনায় ‘আহারে জীবন’ সিনেমার কাজও শুরু করতে যাচ্ছেন তিনি। এতে তার বিপরীতে আছেন পূর্ণিমা।