ঢাকা ০৩:৫৯ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ০১ অক্টোবর ২০২২, ১৫ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কারাগারেই সঙ্গীর সঙ্গে ‘ঘনিষ্ঠ সময়’ কাটাতে পারবেন বন্দীরা, রয়েছে কেবিনও

কারাগারে বন্দী থাকা কয়েদিদের জন্য ভারতে নতুন নিয়ম চালু হয়েছে। মঙ্গলবার থেকে পাঞ্জাব প্রদেশে এই নিয়ম চালু করে কারা বিভাগ।

ভারতের সংবাদ মাধ্যম আনন্দবাজারের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে- দীর্ঘদিন কারাগারে থাকা পুরুষ বন্দীরা তার স্ত্রীকে নিয়ে কেবিনে দুই ঘণ্টা একান্তে সময় কাটাতে পারবেন। অন্যদিকে কারাগারে থাকা নারী বন্দীরা এই সুবিধা পাবেন। বন্দীর সঙ্গে তার স্বামী বা স্ত্রী একান্তে সময় কাটালে আসলে তাকে বিয়ের প্রমাণপত্র দেখাতে হবে। তবে এই সুযোগ সব বন্দী পাবেন না।

কারা বিভাগের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে পাঞ্জাবের গোবিন্দওয়াল সাহিব সেন্ট্রাল জেল, নাভার নতুন জেলা জেল, ভাটিণ্ডার মহিলা জেলে এই ব্যবস্থা চালু করা হয়েছে। তবে ভয়ঙ্কর অপরাধী, গ্যাংস্টার, জীবনের ঝুঁকি রয়েছে এমন বন্দী ও যৌন হেনস্থায় জড়িতদের এই সুযোগ দেওয়া হবে না। সঙ্গীর সঙ্গে সময় কাটাতে চাইলে জেলে থাকাকালীন সেই বন্দীর আচরণ ভালো থাকতে হবে।

তিনি আরও জানান, কারাগারের নির্দিষ্ট একটি ঘরে দুই ঘণ্টার জন্য সময় কাটানোর ব্যবস্থা করে দেবে কারা বিভাগ। ওই ঘরের সঙ্গে থাকবে শৌচালয়। তিন মাসে এক বার মিলবে সুযোগ। যারা দীর্ঘ দিন জেলে রয়েছেন, তাদের অগ্রাধিকার দেওয়া হবে।

কারা বিভাগের আশা, এই নিয়ম চালু হলে বন্দীরা নিজেদের তাগিদেই নিজেদের আচরণ ভালো করার চেষ্টা করবেন। আর তাদের দাম্পত্যও গাঢ় হবে। বন্দীর সঙ্গে তার স্বামী বা স্ত্রী দেখা করতে এলে বিয়ের প্রমাণপত্র দেখাতে হবে। তবেই মিলবে একান্তে সময় কাটানোর সুযোগ।

Tag :
জনপ্রিয়

হোসেনপুর বাজার সনাতন ধর্মাবলম্বী ব্যাবসায়িকদের উদ্যোগে বস্ত্র বিতরণ

কারাগারেই সঙ্গীর সঙ্গে ‘ঘনিষ্ঠ সময়’ কাটাতে পারবেন বন্দীরা, রয়েছে কেবিনও

প্রকাশের সময় : ০৯:১৭:১২ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২২

কারাগারে বন্দী থাকা কয়েদিদের জন্য ভারতে নতুন নিয়ম চালু হয়েছে। মঙ্গলবার থেকে পাঞ্জাব প্রদেশে এই নিয়ম চালু করে কারা বিভাগ।

ভারতের সংবাদ মাধ্যম আনন্দবাজারের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে- দীর্ঘদিন কারাগারে থাকা পুরুষ বন্দীরা তার স্ত্রীকে নিয়ে কেবিনে দুই ঘণ্টা একান্তে সময় কাটাতে পারবেন। অন্যদিকে কারাগারে থাকা নারী বন্দীরা এই সুবিধা পাবেন। বন্দীর সঙ্গে তার স্বামী বা স্ত্রী একান্তে সময় কাটালে আসলে তাকে বিয়ের প্রমাণপত্র দেখাতে হবে। তবে এই সুযোগ সব বন্দী পাবেন না।

কারা বিভাগের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে পাঞ্জাবের গোবিন্দওয়াল সাহিব সেন্ট্রাল জেল, নাভার নতুন জেলা জেল, ভাটিণ্ডার মহিলা জেলে এই ব্যবস্থা চালু করা হয়েছে। তবে ভয়ঙ্কর অপরাধী, গ্যাংস্টার, জীবনের ঝুঁকি রয়েছে এমন বন্দী ও যৌন হেনস্থায় জড়িতদের এই সুযোগ দেওয়া হবে না। সঙ্গীর সঙ্গে সময় কাটাতে চাইলে জেলে থাকাকালীন সেই বন্দীর আচরণ ভালো থাকতে হবে।

তিনি আরও জানান, কারাগারের নির্দিষ্ট একটি ঘরে দুই ঘণ্টার জন্য সময় কাটানোর ব্যবস্থা করে দেবে কারা বিভাগ। ওই ঘরের সঙ্গে থাকবে শৌচালয়। তিন মাসে এক বার মিলবে সুযোগ। যারা দীর্ঘ দিন জেলে রয়েছেন, তাদের অগ্রাধিকার দেওয়া হবে।

কারা বিভাগের আশা, এই নিয়ম চালু হলে বন্দীরা নিজেদের তাগিদেই নিজেদের আচরণ ভালো করার চেষ্টা করবেন। আর তাদের দাম্পত্যও গাঢ় হবে। বন্দীর সঙ্গে তার স্বামী বা স্ত্রী দেখা করতে এলে বিয়ের প্রমাণপত্র দেখাতে হবে। তবেই মিলবে একান্তে সময় কাটানোর সুযোগ।