ঢাকা ০৫:১৬ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২২, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সাবেকদের করা ব্যক্তিগত আক্রমণ হতাশার: বাবর

টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে এখন সবচেয়ে বেশি আলোচনা হয় যেকোনো ব্যাটারের স্ট্রাইকরেট নিয়ে। ক্রিকেটের এই ফরম্যাটে লম্বা ইনিংস খেলার চেয়ে কম বলে বেশি রান করার চাহিদাই বেশি। যে কারণে সময়ের অন্যতম সেরা ব্যাটার বিরাট কোহলির স্ট্রাইকরেট নিয়েও প্রশ্ন ওঠে প্রায়সময়।

এর বাইরে নন পাকিস্তানের অধিনায়ক বাবর আজমও। সাম্প্রতিক সময়ে মোহাম্মদ রিজওয়ানের সঙ্গে তার উদ্বোধনী জুটির রান তোলার হার ধীর হয়ে যাওয়ায় সমালোচকদের প্রশ্নবাণে বিদ্ধ হয়েছেন পাকিস্তানের অধিনায়ক। ক্যারিয়ার স্ট্রাইকরেট ১২৮.৮১ হলেও, আরও বেশি আশা তার কাছ থেকে।

সম্প্রতি বাবরের স্ট্রাইকরেট নিয়ে রীতিমতো হাস্যরসই করেছেন পাকিস্তানের সাবেক ক্রিকেটার ও পাকিস্তান সুপার লিগের দল লাহোর কালান্দার্সের কোচ আকিব জাভেদ। তিনি জানিয়েছেন, বাবরের দল করাচি কিংসের বিপক্ষে ম্যাচে বাবরকে আউট না করার পরিকল্পনা নিয়েই নামে তার দল। কেননা এতে করাচির ওপর রানের চাপ বেড়ে যায়।

আকিব বলেছিলেন, ‘আমরা যখন করাচি কিংসের বিপক্ষে খেলতে নামি এবং ১৮০ বা তার আশপাশে সংগ্রহ পাই; তখন আমরা বাবর আজমকে আউট করার খুব বেশি চেষ্টা করি না। কারণ সে তার আপন মনে খেলতে থাকে এবং ওভারপ্রতি রানের চাহিদা বাড়তেই থাকে।’

দেশের সাবেক ক্রিকেটারের এমন মন্তব্যে হতাশ বাবর। শুরুতে পাত্তা দিতে না চাইলেও নিজের কষ্ট লুকিয়ে রাখতে পারেননি পাকিস্তানি অধিনায়ক। বুধবার ইংল্যান্ডের বিপক্ষে পাকিস্তানের টি-টোয়েন্টি সিরিজ শুরু হবে। তার আগে সংবাদ সম্মেলনে আকিবের মন্তব্য ঘিরেই প্রশ্ন রাখা হয় বাবরের সামনে।

তখন বাবর বলেন, ‘তার ভাবনা যদি এরকমই হয়, কোনো সমস্যা নেই। তার ভালো হোক! সবারই নিজস্ব মতামত থাকতে পারে। আমি স্রেফ পাকিস্তান দল নিয়েই কথা বলতে চাই। লোকের নিজস্ব অভিমত থাকবেই। আমরা সেসবে কান দেই না বা তারা কী বলে, এসবকে পাত্তা দেই না।’

এর পরপরই তিনি আরও যোগ করেন, ‘সাবেক ক্রিকেটাররা নিজেদের মতামত জানাতেই পারেন। তবে ব্যক্তিগত আক্রমণ হতাশার। সাবেক ক্রিকেটাররা নিজেদের সময়ে এটার মধ্য দিয়ে গেছেন এবং তারা ভালো করেই জানেন, কতটা চাপ নিয়ে খেলতে হয় আমাদের। আমি ব্যক্তিগতভাবে এসব মতামতকে পাত্তা দেই না। আমার কাছে এসবের কোনো মূল্য নেই।’

সবশেষ এশিয়া কাপে ব্যাট হাতে মোটেও ভালো করতে পারেননি বাবর। ছয় ম্যাচে মাত্র ৬৮ রান করেছেন তিনি। বিশ্বকাপের আগে নিজের ফর্ম ফিরে পেতে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজটি কাজে লাগানোর ইচ্ছা তার, ‘আমার জন্য ব্যক্তিগতভাবে এই সিরিজ গুরুত্বপূর্ণ, চেষ্টা করব ফর্মে ফিরতে।’

তিনি আরও বলেন, ‘ছন্দে ফেরার জন্য সবচেয়ে জরুরি হলো অতিরিক্ত না ভাবা এবং সবকিছু সাধারণ রাখা। সবচেয়ে জরুরি হলো নিজের ওপর বিশ্বাস রাখা। আমি জানি যে অতীতে ভালো করেছি এবং ভবিষ্যতেও করব। কখনও ভালো সময় যাবে, কখনও নয়। যত ভালোই করুন, লোকের কথা চলতেই থাকবে। সবচেয়ে ভালো হলো এসবকে এড়িয়ে যেতে পারা।’

Tag :
জনপ্রিয়

রসিক নির্বাচন ; আ’লীগের মেয়র প্রার্থী ডালিয়ার গণসংযোগ অনুষ্ঠিত

সাবেকদের করা ব্যক্তিগত আক্রমণ হতাশার: বাবর

প্রকাশের সময় : ০৯:২৩:৫৩ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২২

টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে এখন সবচেয়ে বেশি আলোচনা হয় যেকোনো ব্যাটারের স্ট্রাইকরেট নিয়ে। ক্রিকেটের এই ফরম্যাটে লম্বা ইনিংস খেলার চেয়ে কম বলে বেশি রান করার চাহিদাই বেশি। যে কারণে সময়ের অন্যতম সেরা ব্যাটার বিরাট কোহলির স্ট্রাইকরেট নিয়েও প্রশ্ন ওঠে প্রায়সময়।

এর বাইরে নন পাকিস্তানের অধিনায়ক বাবর আজমও। সাম্প্রতিক সময়ে মোহাম্মদ রিজওয়ানের সঙ্গে তার উদ্বোধনী জুটির রান তোলার হার ধীর হয়ে যাওয়ায় সমালোচকদের প্রশ্নবাণে বিদ্ধ হয়েছেন পাকিস্তানের অধিনায়ক। ক্যারিয়ার স্ট্রাইকরেট ১২৮.৮১ হলেও, আরও বেশি আশা তার কাছ থেকে।

সম্প্রতি বাবরের স্ট্রাইকরেট নিয়ে রীতিমতো হাস্যরসই করেছেন পাকিস্তানের সাবেক ক্রিকেটার ও পাকিস্তান সুপার লিগের দল লাহোর কালান্দার্সের কোচ আকিব জাভেদ। তিনি জানিয়েছেন, বাবরের দল করাচি কিংসের বিপক্ষে ম্যাচে বাবরকে আউট না করার পরিকল্পনা নিয়েই নামে তার দল। কেননা এতে করাচির ওপর রানের চাপ বেড়ে যায়।

আকিব বলেছিলেন, ‘আমরা যখন করাচি কিংসের বিপক্ষে খেলতে নামি এবং ১৮০ বা তার আশপাশে সংগ্রহ পাই; তখন আমরা বাবর আজমকে আউট করার খুব বেশি চেষ্টা করি না। কারণ সে তার আপন মনে খেলতে থাকে এবং ওভারপ্রতি রানের চাহিদা বাড়তেই থাকে।’

দেশের সাবেক ক্রিকেটারের এমন মন্তব্যে হতাশ বাবর। শুরুতে পাত্তা দিতে না চাইলেও নিজের কষ্ট লুকিয়ে রাখতে পারেননি পাকিস্তানি অধিনায়ক। বুধবার ইংল্যান্ডের বিপক্ষে পাকিস্তানের টি-টোয়েন্টি সিরিজ শুরু হবে। তার আগে সংবাদ সম্মেলনে আকিবের মন্তব্য ঘিরেই প্রশ্ন রাখা হয় বাবরের সামনে।

তখন বাবর বলেন, ‘তার ভাবনা যদি এরকমই হয়, কোনো সমস্যা নেই। তার ভালো হোক! সবারই নিজস্ব মতামত থাকতে পারে। আমি স্রেফ পাকিস্তান দল নিয়েই কথা বলতে চাই। লোকের নিজস্ব অভিমত থাকবেই। আমরা সেসবে কান দেই না বা তারা কী বলে, এসবকে পাত্তা দেই না।’

এর পরপরই তিনি আরও যোগ করেন, ‘সাবেক ক্রিকেটাররা নিজেদের মতামত জানাতেই পারেন। তবে ব্যক্তিগত আক্রমণ হতাশার। সাবেক ক্রিকেটাররা নিজেদের সময়ে এটার মধ্য দিয়ে গেছেন এবং তারা ভালো করেই জানেন, কতটা চাপ নিয়ে খেলতে হয় আমাদের। আমি ব্যক্তিগতভাবে এসব মতামতকে পাত্তা দেই না। আমার কাছে এসবের কোনো মূল্য নেই।’

সবশেষ এশিয়া কাপে ব্যাট হাতে মোটেও ভালো করতে পারেননি বাবর। ছয় ম্যাচে মাত্র ৬৮ রান করেছেন তিনি। বিশ্বকাপের আগে নিজের ফর্ম ফিরে পেতে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজটি কাজে লাগানোর ইচ্ছা তার, ‘আমার জন্য ব্যক্তিগতভাবে এই সিরিজ গুরুত্বপূর্ণ, চেষ্টা করব ফর্মে ফিরতে।’

তিনি আরও বলেন, ‘ছন্দে ফেরার জন্য সবচেয়ে জরুরি হলো অতিরিক্ত না ভাবা এবং সবকিছু সাধারণ রাখা। সবচেয়ে জরুরি হলো নিজের ওপর বিশ্বাস রাখা। আমি জানি যে অতীতে ভালো করেছি এবং ভবিষ্যতেও করব। কখনও ভালো সময় যাবে, কখনও নয়। যত ভালোই করুন, লোকের কথা চলতেই থাকবে। সবচেয়ে ভালো হলো এসবকে এড়িয়ে যেতে পারা।’