ঢাকা ০৬:৩৮ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২২, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সমাবেশে চেয়ার ছোড়াছুড়ি।

চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপি আয়োজিত বিক্ষোভ সমাবেশে হাতাহাতি ও চেয়ার ছোড়াছুড়ির ঘটনা ঘটেছে। নগরীর কাজীর দেউরী নাসিমন ভবনের দলীয় কার্যালয়ের সামনে ঢাকায় বিএনপির সমাবেশে পুলিশ ও আওয়ামী লীগের হামলার প্রতিবাদে এ সমাবেশ হয়।

রোববার (১৮ সেপ্টেম্বর) বিকেলে কেন্দ্র ঘোষিত এক বিক্ষোভ সমাবেশে এ ঘটনা ঘটে। সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন নগর কমিটির আহ্বায়ক শাহাদাত হোসেন।

সমাবেশে উপস্থিত দলটির কয়েকজন নেতার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বিএনপি নেতা আবদুস সাত্তারের বক্তব্য দেওয়াকে কেন্দ্র করে নেতাদের মধ্যে বাদানুবাদ হয়। পরে পেছনে বসা নেতাকর্মীদের মধ্যে হট্টগোল হয়। তখন হাতাহাতি ও চেয়ার ছোড়াছুড়ি হয়েছে। তবে শাহাদাতসহ সিনিয়র নেতারা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।

পরে সভাপতির বক্তব্যে চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক ডা. শাহাদাত হোসেন বলেছেন, জ্বালানি ও দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি এবং তিন কর্মীকে হত্যার প্রতিবাদে সারাদেশে বিএনপির সমাবেশে হাজার হাজার মানুষ উপস্থিত হচ্ছেন। এটি দেখে সরকার এখন বিএনপির প্রতিবাদ সমাবেশ প্রতিহত করতে মরিয়া ওঠেছে। ঢাকাসহ সারাদেশে বিএনপির সমাবেশে হামলা চালিয়ে বরকত উল্লাহ বুলুসহ নেতাকর্মীদের আহত করেছে। আওয়ামী লীগ একটি গণতন্ত্রবিরোধী সন্ত্রাসী শক্তি। তারা অতীতেও একদলীয় বাকশাল প্রতিষ্ঠা করেছিল। এখনো তারা একই উদ্দেশে একদলীয় বাকশাল প্রতিষ্ঠা করতে চায়। তারা সারা দেশে একই কায়দায় বিএনপির সমাবেশে হামলা করছে। পুরোপুরিভাবে উসকানি দিয়ে সহিংস পরিস্থিতি সৃষ্টি করছে। বিএনপির পক্ষে গণজোয়ার দেখে আওয়ামী লীগ ভয় পেয়েছে। ভয় পেয়েই তারা ভয় দেখাচ্ছে।

 

ডা. শাহাদাত বলেন, পত্রিকায় দেখলাম, চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক আওয়ামী লীগের জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান প্রার্থীর বিজয়ের জন্য দোয়া মোনাজাত করছেন। তিনি এই নির্বাচনে রিটার্নিং অফিসারের দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি আওয়ামী লীগের প্রার্থীর মনোনয়নপত্র গ্রহণ করে আবার তাদের উদ্দেশে বক্তৃতাও দিয়েছেন। সেখানে তিনি শেখ হাসিনাকে আবার ক্ষমতায় আনতে বিএনপি জামায়াতের দোয়াও চেয়েছেন। আমরা বুঝতে পারছি না, উনি চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক নাকি চট্টগ্রাম জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি? একজন রিটার্নিং অফিসার হিসেবে তিনি শুধু আচরণবিধিই লঙ্ঘন করেননি, নির্বাচনী আইন ভঙ্গ করে নিরপেক্ষতা হারিয়ে নির্লজ্জ দলবাজের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছেন। যদি দলবাজী করতে হয় তাহলে চেয়ার ছেড়ে আওয়ামী লীগে যোগ দিন। এই মুহূর্তে চট্টগ্রামের ডিসিকে রিটার্নিং অফিসারের দায়িত্ব থেকে সরিয়ে বিভাগীয় শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি করছি।

চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব আবুল হাসেম বক্কর বলেন, বর্তমান ফ্যাসিস্ট সরকার সারাদেশের প্রশাসনকে প্রশাসন লীগ বানিয়ে রেখেছে। ৬৪ জেলায় ৬৪ জন প্রশাসন লীগের নেতা জেলা প্রশাসক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। এই পুলিশ আর প্রশাসন লীগের সহযোগিতায় বিনা ভোটের সরকার ক্ষমতায় টিকে আছে। চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক ভুলে গেছেন, তিনি একজন প্রজাতন্ত্রের কর্মচারী। তিনি আওয়ামী লীগের নেতা বা কর্মী নন। এই দলবাজ জেলা প্রশাসকের অধীনে কোনো সুষ্ঠু নির্বাচন হবে না। আমরা চট্টগ্রামের ডিসির দলীয় কর্মীর মতো ভূমিকার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ করছি।

চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির সদস্য মো. কামরুল ইসলামের পরিচালনায় সমাবেশে বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক আলহাজ্ব এম এ আজিজ, যুগ্ম আহ্বায়ক মোহাম্মদ মিয়া ভোলা, অ্যাড. আবদুস সাত্তার, সৈয়দ আজম উদ্দীন প্রমুখ।

Tag :
জনপ্রিয়

রসিক নির্বাচন ; আ’লীগের মেয়র প্রার্থী ডালিয়ার গণসংযোগ অনুষ্ঠিত

চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সমাবেশে চেয়ার ছোড়াছুড়ি।

প্রকাশের সময় : ০৪:০০:৪৭ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২২

চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপি আয়োজিত বিক্ষোভ সমাবেশে হাতাহাতি ও চেয়ার ছোড়াছুড়ির ঘটনা ঘটেছে। নগরীর কাজীর দেউরী নাসিমন ভবনের দলীয় কার্যালয়ের সামনে ঢাকায় বিএনপির সমাবেশে পুলিশ ও আওয়ামী লীগের হামলার প্রতিবাদে এ সমাবেশ হয়।

রোববার (১৮ সেপ্টেম্বর) বিকেলে কেন্দ্র ঘোষিত এক বিক্ষোভ সমাবেশে এ ঘটনা ঘটে। সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন নগর কমিটির আহ্বায়ক শাহাদাত হোসেন।

সমাবেশে উপস্থিত দলটির কয়েকজন নেতার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বিএনপি নেতা আবদুস সাত্তারের বক্তব্য দেওয়াকে কেন্দ্র করে নেতাদের মধ্যে বাদানুবাদ হয়। পরে পেছনে বসা নেতাকর্মীদের মধ্যে হট্টগোল হয়। তখন হাতাহাতি ও চেয়ার ছোড়াছুড়ি হয়েছে। তবে শাহাদাতসহ সিনিয়র নেতারা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।

পরে সভাপতির বক্তব্যে চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক ডা. শাহাদাত হোসেন বলেছেন, জ্বালানি ও দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি এবং তিন কর্মীকে হত্যার প্রতিবাদে সারাদেশে বিএনপির সমাবেশে হাজার হাজার মানুষ উপস্থিত হচ্ছেন। এটি দেখে সরকার এখন বিএনপির প্রতিবাদ সমাবেশ প্রতিহত করতে মরিয়া ওঠেছে। ঢাকাসহ সারাদেশে বিএনপির সমাবেশে হামলা চালিয়ে বরকত উল্লাহ বুলুসহ নেতাকর্মীদের আহত করেছে। আওয়ামী লীগ একটি গণতন্ত্রবিরোধী সন্ত্রাসী শক্তি। তারা অতীতেও একদলীয় বাকশাল প্রতিষ্ঠা করেছিল। এখনো তারা একই উদ্দেশে একদলীয় বাকশাল প্রতিষ্ঠা করতে চায়। তারা সারা দেশে একই কায়দায় বিএনপির সমাবেশে হামলা করছে। পুরোপুরিভাবে উসকানি দিয়ে সহিংস পরিস্থিতি সৃষ্টি করছে। বিএনপির পক্ষে গণজোয়ার দেখে আওয়ামী লীগ ভয় পেয়েছে। ভয় পেয়েই তারা ভয় দেখাচ্ছে।

 

ডা. শাহাদাত বলেন, পত্রিকায় দেখলাম, চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক আওয়ামী লীগের জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান প্রার্থীর বিজয়ের জন্য দোয়া মোনাজাত করছেন। তিনি এই নির্বাচনে রিটার্নিং অফিসারের দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি আওয়ামী লীগের প্রার্থীর মনোনয়নপত্র গ্রহণ করে আবার তাদের উদ্দেশে বক্তৃতাও দিয়েছেন। সেখানে তিনি শেখ হাসিনাকে আবার ক্ষমতায় আনতে বিএনপি জামায়াতের দোয়াও চেয়েছেন। আমরা বুঝতে পারছি না, উনি চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক নাকি চট্টগ্রাম জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি? একজন রিটার্নিং অফিসার হিসেবে তিনি শুধু আচরণবিধিই লঙ্ঘন করেননি, নির্বাচনী আইন ভঙ্গ করে নিরপেক্ষতা হারিয়ে নির্লজ্জ দলবাজের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছেন। যদি দলবাজী করতে হয় তাহলে চেয়ার ছেড়ে আওয়ামী লীগে যোগ দিন। এই মুহূর্তে চট্টগ্রামের ডিসিকে রিটার্নিং অফিসারের দায়িত্ব থেকে সরিয়ে বিভাগীয় শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি করছি।

চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব আবুল হাসেম বক্কর বলেন, বর্তমান ফ্যাসিস্ট সরকার সারাদেশের প্রশাসনকে প্রশাসন লীগ বানিয়ে রেখেছে। ৬৪ জেলায় ৬৪ জন প্রশাসন লীগের নেতা জেলা প্রশাসক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। এই পুলিশ আর প্রশাসন লীগের সহযোগিতায় বিনা ভোটের সরকার ক্ষমতায় টিকে আছে। চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক ভুলে গেছেন, তিনি একজন প্রজাতন্ত্রের কর্মচারী। তিনি আওয়ামী লীগের নেতা বা কর্মী নন। এই দলবাজ জেলা প্রশাসকের অধীনে কোনো সুষ্ঠু নির্বাচন হবে না। আমরা চট্টগ্রামের ডিসির দলীয় কর্মীর মতো ভূমিকার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ করছি।

চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির সদস্য মো. কামরুল ইসলামের পরিচালনায় সমাবেশে বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক আলহাজ্ব এম এ আজিজ, যুগ্ম আহ্বায়ক মোহাম্মদ মিয়া ভোলা, অ্যাড. আবদুস সাত্তার, সৈয়দ আজম উদ্দীন প্রমুখ।