ঢাকা ০৯:১৮ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৪ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

চোখে পড়েনা রিকশায় আচ্ছাদিত নারীর পর্দা

নারী জাতীর জন্য পর্দা একটি গুরুত্বপূর্ণ বিধান। আল্লাহ তা‘আলা নারীদের ইজ্জত, সম্ভ্রম ও সম্মানকে রক্ষা করার জন্য পর্দার বিধানকে বাধ্যতামূলক করে দিয়েছেন। পর্দা নারীর সৌন্দর্য, নারীর ইজ্জত এবং সুরক্ষা। পর্দাহীন নারী বাকলহীন কলার মত-যার উপর মশা-মাছি বসার কারণে কেউ তা গ্রহণ করতে চায় না। বাজারে তার কোনো দাম নেই। অনুরূপ নারীও যখন ঘরের বাইরে পর্দাহীন অবস্থায় বের হয়, তখন সমাজে তার কোনো দাম থাকে না।

পূর্বে মহিলাদের চলাফেরা কিংবা বাড়িতে থাকাকালীন সময়েও ব্যাপক পর্দা প্রথার প্রচলন ছিল। মহিলা কিংবা মেয়েদের বাড়ির বাইরে যেতে সম্পূর্ণভাবে নিষিদ্ধ ছিল। অযথায় কোথাও ঘুরাফেরা বা ইচ্ছামাফিক চলাফেরা করতে পারতো না। ব্যক্তিগত স্বাধীনতাও ছিল কুক্ষিগত। কোথাও যাওয়ার প্রয়োজন হলে অধিকাংশ সময়ই রাতে বাড়ি থেকে বের হতে হতো। নিরাপত্তার দায়িত্বে সাথে থাকতেন বাবা, ভাই কিংবা স্বামী।

আগেকার দিনে মহিলারা রিক্সা কিংবা গরুর গাড়িতে ওঠার পর কাপড় অথবা চাদর দিয়ে চতুর্দিক ঢেকে দেওয়া হতো। যাতে কোনো দিকে ফাঁক না থাকে।সেজন্য সর্তকতা অবলম্বন করা হতো। নির্দিষ্ট গন্তব্যে পৌঁছানোর পর তখন মহিলারা রিক্সা থেকে নামতে পারতেন। পথিমধ্যে পর্দা সরিয়ে কোনো কিছু দেখার সুযোগ ছিল না তাদের।

কিন্তু কালের বিবর্তনে আধুনিক ইসলামী জ্ঞানের শিক্ষায় মূর্খতা ও অজ্ঞতা দূরীভূত হয়ে পর্দার ক্ষেত্রেও ব্যাপক পরিবর্তন এসেছে।

এক সময় ময়মনসিংহের নান্দাইলে রিক্সায় কাপড় মোড়িয়ে নববধূ কিংবা গৃহবধূরা বিভিন্ন জায়গায় যাতায়াত করতেন। এখন আর রিক্সায় পর্দা দিয়ে নারীদের চলাফেরা করতে দেখা যায় না। যদিও বর্তমানে কিছু সংখ্যক মহিলারা রিক্সায় উঠার পর ওই রিকশার ঢাকনা উঠিয়ে চলাচল করতে দেখা যায়।

এখন পর্দায় এসেছে আধুনিকতা। পাশ্চাত্যের ধ্যান-ধারণা ভঙ্গ করে প্রকৃত শিক্ষায় জ্ঞান অর্জন করে এসেছে নতুনত্ব। তাই এখন হারিয়ে গেছে রিক্সায় ঘেরাও করা পর্দা প্রথা।

অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক আলী আফজাল খান(৯০) বলেন,আমাদের সময়ে ব্যাপক পর্দাপ্রথা ছিল। নতুন বউ কিংবা বাড়ির যেকোন মহিলা বেড়াতে গেলে রিক্সা অথবা গরুর গাড়ীতে কাপড় দিয়ে ঢেকে দেওয়া হতো। এখন তা আর নেই।হারিয়ে গেছে রিক্সায় আচ্ছাদিত নারীর পর্দা।

Tag :

মধ্যনগরে দুর্গোৎসব উপলক্ষে ৩৩টি পূজামন্ডপে নগদ অর্থ প্রদান করেন, এমপি রতন

চোখে পড়েনা রিকশায় আচ্ছাদিত নারীর পর্দা

প্রকাশের সময় : ০৯:৩৫:০২ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২২

নারী জাতীর জন্য পর্দা একটি গুরুত্বপূর্ণ বিধান। আল্লাহ তা‘আলা নারীদের ইজ্জত, সম্ভ্রম ও সম্মানকে রক্ষা করার জন্য পর্দার বিধানকে বাধ্যতামূলক করে দিয়েছেন। পর্দা নারীর সৌন্দর্য, নারীর ইজ্জত এবং সুরক্ষা। পর্দাহীন নারী বাকলহীন কলার মত-যার উপর মশা-মাছি বসার কারণে কেউ তা গ্রহণ করতে চায় না। বাজারে তার কোনো দাম নেই। অনুরূপ নারীও যখন ঘরের বাইরে পর্দাহীন অবস্থায় বের হয়, তখন সমাজে তার কোনো দাম থাকে না।

পূর্বে মহিলাদের চলাফেরা কিংবা বাড়িতে থাকাকালীন সময়েও ব্যাপক পর্দা প্রথার প্রচলন ছিল। মহিলা কিংবা মেয়েদের বাড়ির বাইরে যেতে সম্পূর্ণভাবে নিষিদ্ধ ছিল। অযথায় কোথাও ঘুরাফেরা বা ইচ্ছামাফিক চলাফেরা করতে পারতো না। ব্যক্তিগত স্বাধীনতাও ছিল কুক্ষিগত। কোথাও যাওয়ার প্রয়োজন হলে অধিকাংশ সময়ই রাতে বাড়ি থেকে বের হতে হতো। নিরাপত্তার দায়িত্বে সাথে থাকতেন বাবা, ভাই কিংবা স্বামী।

আগেকার দিনে মহিলারা রিক্সা কিংবা গরুর গাড়িতে ওঠার পর কাপড় অথবা চাদর দিয়ে চতুর্দিক ঢেকে দেওয়া হতো। যাতে কোনো দিকে ফাঁক না থাকে।সেজন্য সর্তকতা অবলম্বন করা হতো। নির্দিষ্ট গন্তব্যে পৌঁছানোর পর তখন মহিলারা রিক্সা থেকে নামতে পারতেন। পথিমধ্যে পর্দা সরিয়ে কোনো কিছু দেখার সুযোগ ছিল না তাদের।

কিন্তু কালের বিবর্তনে আধুনিক ইসলামী জ্ঞানের শিক্ষায় মূর্খতা ও অজ্ঞতা দূরীভূত হয়ে পর্দার ক্ষেত্রেও ব্যাপক পরিবর্তন এসেছে।

এক সময় ময়মনসিংহের নান্দাইলে রিক্সায় কাপড় মোড়িয়ে নববধূ কিংবা গৃহবধূরা বিভিন্ন জায়গায় যাতায়াত করতেন। এখন আর রিক্সায় পর্দা দিয়ে নারীদের চলাফেরা করতে দেখা যায় না। যদিও বর্তমানে কিছু সংখ্যক মহিলারা রিক্সায় উঠার পর ওই রিকশার ঢাকনা উঠিয়ে চলাচল করতে দেখা যায়।

এখন পর্দায় এসেছে আধুনিকতা। পাশ্চাত্যের ধ্যান-ধারণা ভঙ্গ করে প্রকৃত শিক্ষায় জ্ঞান অর্জন করে এসেছে নতুনত্ব। তাই এখন হারিয়ে গেছে রিক্সায় ঘেরাও করা পর্দা প্রথা।

অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক আলী আফজাল খান(৯০) বলেন,আমাদের সময়ে ব্যাপক পর্দাপ্রথা ছিল। নতুন বউ কিংবা বাড়ির যেকোন মহিলা বেড়াতে গেলে রিক্সা অথবা গরুর গাড়ীতে কাপড় দিয়ে ঢেকে দেওয়া হতো। এখন তা আর নেই।হারিয়ে গেছে রিক্সায় আচ্ছাদিত নারীর পর্দা।