ঢাকা ০৭:৪৬ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৯ নভেম্বর ২০২২, ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মিয়ানমারের সঙ্গে বাংলাদেশ যুদ্ধ চায় না: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

মিয়ানমারের সঙ্গে বাংলাদেশ যুদ্ধ চায় না বলে মন্তব্য করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

শনিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) দুপুরে রাজধানীর ধানমন্ডিতে ঢাকা আহসানিয়া মিশন আয়োজিত এক অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন তিনি।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমরা যুদ্ধ চাই না, শান্তিপূর্ণ সমাধানের চেষ্টা করছি। শান্তিপূর্ণভাবে সমাধান করতে আমাদের প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে। আমাদের পক্ষ থেকে যদি না হয়, প্রয়োজনে জাতিসংঘের কাছে তুলব। আমরা সবকিছু করব।

 

তিনি বলেন, মিয়ানমার কোনো সময়ই কথা দিয়ে কথা রাখে না। আমরা দ্বিপাক্ষিক ও বহুপাক্ষিক সব চেষ্টাই করে যাচ্ছি। আমাদের চেষ্টা অব্যাহত থাকবে। আমরা চাই যে ১২ লাখ রোহিঙ্গা এখানে শেল্টার নিয়েছে, শান্তিপূর্ণভাবে তাদের যেন প্রত্যাবাসন হয়, সে চেষ্টা আমরা করছি।

তিনি আরও বলেন, সম্প্রতি আমরা দেখছি মিয়ানমার শুধু রোহিঙ্গা নয়, তাদের অনেক নৃগোষ্ঠীর সঙ্গে যুদ্ধ চালাচ্ছে, থাইল্যান্ড, চীন, মিজোরাম এবং আমাদের সীমানা ধরে। আমরা লক্ষ্য করছি আরাকান আর্মি নামে একটি বিদ্রোহী গোষ্ঠী সেখানে যুদ্ধ করছে। তাদের সঙ্গে কখনো দেখি ভালো ভাব, কখনো দেখি যুদ্ধ। ভেতরে কি রহস্য সেটা তারাই ভালো জানে। তাদের যুদ্ধ তাদের সীমানায় থাকা উচিত।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমাদের সীমানায় এসে যে গোলাবারুদ পড়ছে এটার কড়া ভাষায় আমরা প্রতিবাদ করছি। ওদের আর্মির সঙ্গে কথা হচ্ছে, ফরেন মিনিস্ট্রি তাদের ডেকে এনে সুস্পষ্টভাবে আমাদের অবস্থানের কথা জানিয়ে দিয়েছি। আমাদের প্রধানমন্ত্রী কখনোই যুদ্ধ চান না, আমরা চাই শান্তিপূর্ণ সমাধান। তাদের যে ইন্টার্নাল কনফ্লিক্ট সেটা তাদের সীমানার ভেতরেই থাকুক। এবং বাইরে যেটা আসছে সেটার সবসময় প্রতিবাদ করে আসছি।

 

তিনি বলেন, মিয়ানমার সীমানার পাশে জিরো লাইনে একটি রোহিঙ্গা ক্যাম্প রয়েছে। গতকাল সেই ক্যাম্পে গোলাবারুদের আঘাতে একজন মারা গেছে। কয়েকজন আহত হয়েছে আমরা তীব্রভাবে এর নিন্দা করছি। তাদের এই গোলাবারুদ বন্ধের জন্য আমরা সবসময় প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। ফরেন মিনিস্ট্রি এ ব্যাপারে কাজ করছে। আমরা মনে করি তারা ভুল বুঝতে পারবে এবং ভবিষ্যতে সংযত থাকবে।

তারা যাতে আর না আসে সেই ব্যবস্থা আমাদের বিজিবি করছে। তারপরও জীবনের ঝুঁকি নিয়ে যেহেতু একজন আসছে তাকে আমরা পুশব্যাক করছি।

Tag :
জনপ্রিয়

পা‌কিস্তা‌নের নতুন সেনাপ্রধা‌নের দা‌য়িত্ব নি‌লেন আ‌সিম মু‌নির

মিয়ানমারের সঙ্গে বাংলাদেশ যুদ্ধ চায় না: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

প্রকাশের সময় : ০৯:৪৯:৩৭ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২২

মিয়ানমারের সঙ্গে বাংলাদেশ যুদ্ধ চায় না বলে মন্তব্য করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

শনিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) দুপুরে রাজধানীর ধানমন্ডিতে ঢাকা আহসানিয়া মিশন আয়োজিত এক অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন তিনি।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমরা যুদ্ধ চাই না, শান্তিপূর্ণ সমাধানের চেষ্টা করছি। শান্তিপূর্ণভাবে সমাধান করতে আমাদের প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে। আমাদের পক্ষ থেকে যদি না হয়, প্রয়োজনে জাতিসংঘের কাছে তুলব। আমরা সবকিছু করব।

 

তিনি বলেন, মিয়ানমার কোনো সময়ই কথা দিয়ে কথা রাখে না। আমরা দ্বিপাক্ষিক ও বহুপাক্ষিক সব চেষ্টাই করে যাচ্ছি। আমাদের চেষ্টা অব্যাহত থাকবে। আমরা চাই যে ১২ লাখ রোহিঙ্গা এখানে শেল্টার নিয়েছে, শান্তিপূর্ণভাবে তাদের যেন প্রত্যাবাসন হয়, সে চেষ্টা আমরা করছি।

তিনি আরও বলেন, সম্প্রতি আমরা দেখছি মিয়ানমার শুধু রোহিঙ্গা নয়, তাদের অনেক নৃগোষ্ঠীর সঙ্গে যুদ্ধ চালাচ্ছে, থাইল্যান্ড, চীন, মিজোরাম এবং আমাদের সীমানা ধরে। আমরা লক্ষ্য করছি আরাকান আর্মি নামে একটি বিদ্রোহী গোষ্ঠী সেখানে যুদ্ধ করছে। তাদের সঙ্গে কখনো দেখি ভালো ভাব, কখনো দেখি যুদ্ধ। ভেতরে কি রহস্য সেটা তারাই ভালো জানে। তাদের যুদ্ধ তাদের সীমানায় থাকা উচিত।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমাদের সীমানায় এসে যে গোলাবারুদ পড়ছে এটার কড়া ভাষায় আমরা প্রতিবাদ করছি। ওদের আর্মির সঙ্গে কথা হচ্ছে, ফরেন মিনিস্ট্রি তাদের ডেকে এনে সুস্পষ্টভাবে আমাদের অবস্থানের কথা জানিয়ে দিয়েছি। আমাদের প্রধানমন্ত্রী কখনোই যুদ্ধ চান না, আমরা চাই শান্তিপূর্ণ সমাধান। তাদের যে ইন্টার্নাল কনফ্লিক্ট সেটা তাদের সীমানার ভেতরেই থাকুক। এবং বাইরে যেটা আসছে সেটার সবসময় প্রতিবাদ করে আসছি।

 

তিনি বলেন, মিয়ানমার সীমানার পাশে জিরো লাইনে একটি রোহিঙ্গা ক্যাম্প রয়েছে। গতকাল সেই ক্যাম্পে গোলাবারুদের আঘাতে একজন মারা গেছে। কয়েকজন আহত হয়েছে আমরা তীব্রভাবে এর নিন্দা করছি। তাদের এই গোলাবারুদ বন্ধের জন্য আমরা সবসময় প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। ফরেন মিনিস্ট্রি এ ব্যাপারে কাজ করছে। আমরা মনে করি তারা ভুল বুঝতে পারবে এবং ভবিষ্যতে সংযত থাকবে।

তারা যাতে আর না আসে সেই ব্যবস্থা আমাদের বিজিবি করছে। তারপরও জীবনের ঝুঁকি নিয়ে যেহেতু একজন আসছে তাকে আমরা পুশব্যাক করছি।