ঢাকা ০৮:৩৮ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৯ নভেম্বর ২০২২, ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

গোমস্তাপুরে ইউএনও`র হস্তক্ষেপে বাল্য বিবাহ বন্ধ

কবির হাসান,গোমস্তাপুর (চাঁপাইনবাবগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার হস্তক্ষেপে ৬ ষষ্ঠ শ্রেণিতে পড়ুয়া এক শিক্ষার্থীর বাল্য বিবাহ বন্ধ করা হয়েছে।
শুক্রবার ( ১৬ সেপ্টেম্বর ) বিকেলে গোমস্তাপুর উপজেলার রহনপুর ইউনিয়নের মিরাপুর (পীর পুকুুর) গ্রামে অভিযান চালিয়ে ১৪ বছর বয়সী ওই কিশোরীর বিবাহ বন্ধ করেন ইউএনও।

এ সময় ভ্রাম্যমান আদালত বসিয়ে উভয় পক্ষকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করেন গোমস্তাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আসমা খাতুন। উপস্থিত সকলকে বাল্য বিবাহের কুফল সম্পর্কে অবহিত করার সাথে সাথে বাল্য বিবাহের ঘটনা ঘটলে তাকে অবহিত করার অনুরোধ করেন তিনি। তবে ভ্রাম্যমান আদালতের উপস্থিতি টের পেয়ে বর পক্ষসহ কন্য পক্ষ পালিয়ে যায়।

বাল্য বিয়ের পিড়িতে বসতে যাওয়া ওই কিশোরীর বয়স ১৪ । সে স্থাণীয় বংপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেনীতে পড়াশুনা করেন।

ভ্রাম্যমান আদালতের বিচারক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আসমা খাতুন বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পেরে আমরা ওই কিশোরীর বিয়ে বন্ধ করেছি। উভয় পক্ষকে মোট ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। ওই কিশোরী প্রাপ্ত বয়স্ক না হওয়া পর্যন্ত বিয়ে দিবেন না এমন মুসলেকা দিয়েছেন ওই কিশোরীর পিতা। কিন্তু আমরা ঘটনাস্থলে পৌছানোর আগেই বরপক্ষ পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়।

Tag :
জনপ্রিয়

সংবাদ প্রকাশের জেরে তিন সাংবাদিকসহ ৫জনের নামে চোরাকারবারির মামলা

গোমস্তাপুরে ইউএনও`র হস্তক্ষেপে বাল্য বিবাহ বন্ধ

প্রকাশের সময় : ০৪:০৪:৪৫ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২২

কবির হাসান,গোমস্তাপুর (চাঁপাইনবাবগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার হস্তক্ষেপে ৬ ষষ্ঠ শ্রেণিতে পড়ুয়া এক শিক্ষার্থীর বাল্য বিবাহ বন্ধ করা হয়েছে।
শুক্রবার ( ১৬ সেপ্টেম্বর ) বিকেলে গোমস্তাপুর উপজেলার রহনপুর ইউনিয়নের মিরাপুর (পীর পুকুুর) গ্রামে অভিযান চালিয়ে ১৪ বছর বয়সী ওই কিশোরীর বিবাহ বন্ধ করেন ইউএনও।

এ সময় ভ্রাম্যমান আদালত বসিয়ে উভয় পক্ষকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করেন গোমস্তাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আসমা খাতুন। উপস্থিত সকলকে বাল্য বিবাহের কুফল সম্পর্কে অবহিত করার সাথে সাথে বাল্য বিবাহের ঘটনা ঘটলে তাকে অবহিত করার অনুরোধ করেন তিনি। তবে ভ্রাম্যমান আদালতের উপস্থিতি টের পেয়ে বর পক্ষসহ কন্য পক্ষ পালিয়ে যায়।

বাল্য বিয়ের পিড়িতে বসতে যাওয়া ওই কিশোরীর বয়স ১৪ । সে স্থাণীয় বংপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেনীতে পড়াশুনা করেন।

ভ্রাম্যমান আদালতের বিচারক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আসমা খাতুন বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পেরে আমরা ওই কিশোরীর বিয়ে বন্ধ করেছি। উভয় পক্ষকে মোট ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। ওই কিশোরী প্রাপ্ত বয়স্ক না হওয়া পর্যন্ত বিয়ে দিবেন না এমন মুসলেকা দিয়েছেন ওই কিশোরীর পিতা। কিন্তু আমরা ঘটনাস্থলে পৌছানোর আগেই বরপক্ষ পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়।