ঢাকা ০৪:৫৭ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ০১ অক্টোবর ২০২২, ১৫ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বৃষ্টির দিনে প্রেম করার যেসব সুবিধা

বৃ্ষ্িটর সঙ্গে প্রেমের একটা মাখোমাখো সম্পর্ক রয়েছে চিরকাল। সেই কালিদাস থেকে শুরু করে বৈষ্ণব পদাবলীর অভিসার-এর পদ হয়ে উৎপলকুমার বসুর ‘মন মানে না বৃষ্টি হল এত’ পর্যন্ত কবিরা প্রেমের আদর্শ পরিবেশ তৈরি করতে হলেই দেখা যাবে ডেকে এনেছেন বৃষ্টিকে।

গরমকালে হালকা বৃষ্টির মধ্যে প্রেম করার বেশকিছু সুবিধাও রয়েছে। সেগুলো হলো-

১. আবহাওয়া এমনিতেই বেশ রোম্যান্টিক থাকে। কাজেই আলাদা কবিতা আওড়ে বা প্রেম গদগদ কথা বলে সঙ্গি/সঙ্গিনীকে প্রেমের জোয়ারে ভাসানোর দরকার পড়বে না।

২. ময়দানে বা ভিক্টোরিয়ায় যদি প্রেম করতে যান তাহলে ছাতার আড়ালে বসার একটা বৈধ কারণ পেয়ে যাবেন। ছাতার আড়ালে তুমুল প্রেম চালান, কেউ কিছু বলতে পারবে না।

৩. ধরুন পার্কে প্রেম করতে গেলেন, পুলিশের উৎপাত বিশেষ থাকবে না। বৃষ্টির মধ্যে কে আর ছাতা মাথায় দিয়ে আসবে আপনাদের পাহারা দিতে!

৪. বাড়ির বাইরে যেতে চান না? তাহলে বান্ধবীর বাড়ি যাওয়ার অজুহাত তৈরি করে দিতে পারে বৃষ্টি। তার বাড়ি ছাতা মাথায় হঠাৎ গিয়ে হাজির হন। বান্ধবীর মা কে বলুন, ‘এদিকে এসেছিলাম টিউশান নিতে। কিন্তু কাকিমা, রাস্তায় হঠাৎ এমন জোরসে বৃষ্টি নামল যে, উপায় না দেখে মাথা বাঁচাতে…।’ ব্যস, কাকিমা আর বলতে পারবেন না কিছু।

৫. বন্ধ ঘরের মধ্যে প্রেম করতে করতে ব্যাপারটা যদি একটু দুষ্টুমির দিকে মোড় নেয় তাহলেও চিন্তা নেই। বৃষ্টি হলে গরম কমবে।

৬. ঘরের ভিতর থাকলে রাস্তার লোকের চোখের আড়াল হওয়ার জন্য জানলা বন্ধ করা দরকার। বৃ্ষ্িট হলে, ‘ঝাট আসছে’ এই অজুহাতে জানলা বন্ধ করে দেওয়া সহজ হবে।

৭. জোরদার বৃষ্টি হলে আর একটা সুবিধা প্রেম যদি একটু উত্তুঙ্গ অবস্থায় পৌঁছায় তাহলে তার শব্দ বৃষ্টির ঝমঝম আওয়জে চাপা পড়ে যাবে।

Tag :
জনপ্রিয়

হোসেনপুর বাজার সনাতন ধর্মাবলম্বী ব্যাবসায়িকদের উদ্যোগে বস্ত্র বিতরণ

বৃষ্টির দিনে প্রেম করার যেসব সুবিধা

প্রকাশের সময় : ১০:২৩:৩৫ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২২

বৃ্ষ্িটর সঙ্গে প্রেমের একটা মাখোমাখো সম্পর্ক রয়েছে চিরকাল। সেই কালিদাস থেকে শুরু করে বৈষ্ণব পদাবলীর অভিসার-এর পদ হয়ে উৎপলকুমার বসুর ‘মন মানে না বৃষ্টি হল এত’ পর্যন্ত কবিরা প্রেমের আদর্শ পরিবেশ তৈরি করতে হলেই দেখা যাবে ডেকে এনেছেন বৃষ্টিকে।

গরমকালে হালকা বৃষ্টির মধ্যে প্রেম করার বেশকিছু সুবিধাও রয়েছে। সেগুলো হলো-

১. আবহাওয়া এমনিতেই বেশ রোম্যান্টিক থাকে। কাজেই আলাদা কবিতা আওড়ে বা প্রেম গদগদ কথা বলে সঙ্গি/সঙ্গিনীকে প্রেমের জোয়ারে ভাসানোর দরকার পড়বে না।

২. ময়দানে বা ভিক্টোরিয়ায় যদি প্রেম করতে যান তাহলে ছাতার আড়ালে বসার একটা বৈধ কারণ পেয়ে যাবেন। ছাতার আড়ালে তুমুল প্রেম চালান, কেউ কিছু বলতে পারবে না।

৩. ধরুন পার্কে প্রেম করতে গেলেন, পুলিশের উৎপাত বিশেষ থাকবে না। বৃষ্টির মধ্যে কে আর ছাতা মাথায় দিয়ে আসবে আপনাদের পাহারা দিতে!

৪. বাড়ির বাইরে যেতে চান না? তাহলে বান্ধবীর বাড়ি যাওয়ার অজুহাত তৈরি করে দিতে পারে বৃষ্টি। তার বাড়ি ছাতা মাথায় হঠাৎ গিয়ে হাজির হন। বান্ধবীর মা কে বলুন, ‘এদিকে এসেছিলাম টিউশান নিতে। কিন্তু কাকিমা, রাস্তায় হঠাৎ এমন জোরসে বৃষ্টি নামল যে, উপায় না দেখে মাথা বাঁচাতে…।’ ব্যস, কাকিমা আর বলতে পারবেন না কিছু।

৫. বন্ধ ঘরের মধ্যে প্রেম করতে করতে ব্যাপারটা যদি একটু দুষ্টুমির দিকে মোড় নেয় তাহলেও চিন্তা নেই। বৃষ্টি হলে গরম কমবে।

৬. ঘরের ভিতর থাকলে রাস্তার লোকের চোখের আড়াল হওয়ার জন্য জানলা বন্ধ করা দরকার। বৃ্ষ্িট হলে, ‘ঝাট আসছে’ এই অজুহাতে জানলা বন্ধ করে দেওয়া সহজ হবে।

৭. জোরদার বৃষ্টি হলে আর একটা সুবিধা প্রেম যদি একটু উত্তুঙ্গ অবস্থায় পৌঁছায় তাহলে তার শব্দ বৃষ্টির ঝমঝম আওয়জে চাপা পড়ে যাবে।