ঢাকা ১১:৫৮ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ০৭ অক্টোবর ২০২২, ২২ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বৃষ্টিতে রাজধানীতে গণপরিবহন কম, ভোগান্তি

লঘুচাপের কারণে দুই দিন ধরে বৃষ্টি ঝরছে ঢাকায়। বৃষ্টির কারণে রাজধানীর রাজপথে বাস, অটোরিকশাসহ অন্যান্য গণপরিবহনের সংখ্যা তুলনামূলক কম দেখা গেছে। এতে গন্তব্যে যেতে যাত্রীদের দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

বুধবার (১৪ সেপ্টেম্বর) সকালে নতুনবাজার, বাড্ডা, মতিঝিল, মিরপুর, বাংলামোটর, শাহবাগ ঘুরে এমন চিত্র দেখা গেছে। রাজধানীজুড়ে ভয়াবহ যে যানজট সৃষ্টি হয়েছিল আজ এসব এলাকা ঘুরে তেমনটা চোখে পড়েনি। সকাল সাড়ে আটটা পর্যন্ত গাড়িগুলোকে নির্বিঘ্নে চলাচল করতে দেখা গেছে।

গত তিন দিন ধরেই রাজধানীতে বৃষ্টি ঝরছিল। তবে দুই দিন মাঝেমধ্যে বৃষ্টি হলেও দীর্ঘসময় বৃষ্টি হয়। রাতে বৃষ্টি হলে রাজধানীবাসী ঘুমিয়ে থাকায় তেমন সমস্যায় পড়তে হয়নি। কিন্তু সকালেও বৃষ্টি অব্যাহত থাকায় কর্মমুখী মানুষকে বিড়ম্বনায় পড়তে হয়েছে। এর পাশাপাশি বাস সংকট সেই ভোগান্তিকে আরও বাড়িয়েছে।

মধ্যবাড্ডা কাঁচাবাজার গলির উল্টো পাশে বাসের জন্য দীর্ঘসময় ছাতা হাতে দাঁড়িয়ে ছিলেন বেসরকারি চাকরিজীবী আরমান। প্রতিদিন এখানেই গাড়িতে উঠে অফিসে যান তিনি। কিন্তু আজ ১০ মিনিটের মতো অপেক্ষা করে গাড়ি না পেয়ে লিংক রোড এলাকায় যায়। সেখানে রইছ পরিবহনে চেপে গন্তব্যে নতুনবাজারের উদ্দেশ্যে রওনা হন।

আরমান বলেন, সকালে সড়কে যানবাহন কম মনে হচ্ছে। অন্যান্যদিন এক-দুই মিনিটের মধ্যে বাস পাই। কিন্তু আজ অপেক্ষা করতে হয়েছে।

বাংলামোটরে বাসের জন্য সকালে অপেক্ষা করছিলেন অনেকে। সেখানে কথা হয় এহসান মোল্লার সঙ্গে। মতিঝিলে যাওয়ার জন্য অপেক্ষা করছিলেন তিনি। এহসান বলেন, প্রায় ১৫ মিনিট ধরে অপেক্ষা করছি। মাঝেমধ্যে দুএকটা বাস এলেও সেগুলো যাত্রীতে ভর্তি। কেন এমন বাসের সংকট বুঝতে পারছি না।

সময় গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে বাসের সংখ্যা বাড়লেও তা অন্যান্য দিনের মতো ছিল না। শুধু বাসেই নয় সড়কে রিকশা ও অটোরিকশাও কম দেখা গেছে অন্যান্য দিনের তুলনায়।

আবহাওয়া অধিদফতর থেকে জানানো হয়, আজ ঢাকা, খুলনা, বরিশাল, রাজশাহী রংপুর ও চট্টগ্রাম বিভাগের অধিকাংশ জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়া ও বিজলি চমকানোসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে দেশের দক্ষিণাঞ্চলের কোথাও কোথাও ভারী থেকে অতি ভারী বর্ষণ হতে পারে।

বৃষ্টির প্রভাব থাকলেও সারাদেশে দিন ও রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে।

Tag :

২ লাখ টাকার ফুলদানি নিলামে বিক্রি হলো ৯২ কোটি টাকায়

বৃষ্টিতে রাজধানীতে গণপরিবহন কম, ভোগান্তি

প্রকাশের সময় : ১০:৫৩:৪৩ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২২

লঘুচাপের কারণে দুই দিন ধরে বৃষ্টি ঝরছে ঢাকায়। বৃষ্টির কারণে রাজধানীর রাজপথে বাস, অটোরিকশাসহ অন্যান্য গণপরিবহনের সংখ্যা তুলনামূলক কম দেখা গেছে। এতে গন্তব্যে যেতে যাত্রীদের দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

বুধবার (১৪ সেপ্টেম্বর) সকালে নতুনবাজার, বাড্ডা, মতিঝিল, মিরপুর, বাংলামোটর, শাহবাগ ঘুরে এমন চিত্র দেখা গেছে। রাজধানীজুড়ে ভয়াবহ যে যানজট সৃষ্টি হয়েছিল আজ এসব এলাকা ঘুরে তেমনটা চোখে পড়েনি। সকাল সাড়ে আটটা পর্যন্ত গাড়িগুলোকে নির্বিঘ্নে চলাচল করতে দেখা গেছে।

গত তিন দিন ধরেই রাজধানীতে বৃষ্টি ঝরছিল। তবে দুই দিন মাঝেমধ্যে বৃষ্টি হলেও দীর্ঘসময় বৃষ্টি হয়। রাতে বৃষ্টি হলে রাজধানীবাসী ঘুমিয়ে থাকায় তেমন সমস্যায় পড়তে হয়নি। কিন্তু সকালেও বৃষ্টি অব্যাহত থাকায় কর্মমুখী মানুষকে বিড়ম্বনায় পড়তে হয়েছে। এর পাশাপাশি বাস সংকট সেই ভোগান্তিকে আরও বাড়িয়েছে।

মধ্যবাড্ডা কাঁচাবাজার গলির উল্টো পাশে বাসের জন্য দীর্ঘসময় ছাতা হাতে দাঁড়িয়ে ছিলেন বেসরকারি চাকরিজীবী আরমান। প্রতিদিন এখানেই গাড়িতে উঠে অফিসে যান তিনি। কিন্তু আজ ১০ মিনিটের মতো অপেক্ষা করে গাড়ি না পেয়ে লিংক রোড এলাকায় যায়। সেখানে রইছ পরিবহনে চেপে গন্তব্যে নতুনবাজারের উদ্দেশ্যে রওনা হন।

আরমান বলেন, সকালে সড়কে যানবাহন কম মনে হচ্ছে। অন্যান্যদিন এক-দুই মিনিটের মধ্যে বাস পাই। কিন্তু আজ অপেক্ষা করতে হয়েছে।

বাংলামোটরে বাসের জন্য সকালে অপেক্ষা করছিলেন অনেকে। সেখানে কথা হয় এহসান মোল্লার সঙ্গে। মতিঝিলে যাওয়ার জন্য অপেক্ষা করছিলেন তিনি। এহসান বলেন, প্রায় ১৫ মিনিট ধরে অপেক্ষা করছি। মাঝেমধ্যে দুএকটা বাস এলেও সেগুলো যাত্রীতে ভর্তি। কেন এমন বাসের সংকট বুঝতে পারছি না।

সময় গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে বাসের সংখ্যা বাড়লেও তা অন্যান্য দিনের মতো ছিল না। শুধু বাসেই নয় সড়কে রিকশা ও অটোরিকশাও কম দেখা গেছে অন্যান্য দিনের তুলনায়।

আবহাওয়া অধিদফতর থেকে জানানো হয়, আজ ঢাকা, খুলনা, বরিশাল, রাজশাহী রংপুর ও চট্টগ্রাম বিভাগের অধিকাংশ জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়া ও বিজলি চমকানোসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে দেশের দক্ষিণাঞ্চলের কোথাও কোথাও ভারী থেকে অতি ভারী বর্ষণ হতে পারে।

বৃষ্টির প্রভাব থাকলেও সারাদেশে দিন ও রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে।