ঢাকা ১২:২৪ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ০৭ অক্টোবর ২০২২, ২২ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

চাল নিয়ে জালিয়াতি বন্ধে আইন করছে সরকার

মোটা চাল মেশিনে ছাটাইয়ের মাধ্যমে চিকন করা বন্ধ হবে। পাশাপাশি চালের নাম পরিবর্তন করে বিক্রিরও সুযোগ দেয়া হবে না। এসব জালিয়াতি বন্ধে এবং পরিকল্পানা বাস্তবায়নে আইন করা হচ্ছে বলে জানালেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার।

মঙ্গলবার সচিবালয়ের গণমাধ্যম কেন্দ্রে আয়োজিত এক সংলাপে যোগ দিয়ে খাদ্য মন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার কথা বলেন, চালের বাজার পরিস্থিতি এবং এ খাতের সিন্ডিকেট বাণিজ্য নিয়ে।

এ সময় চালের বাজার নিয়ন্ত্রণে তিন স্তরের মূল্যসংক্রান্ত তথ্য ওয়েবসাইটে দেয়ার কথাও জানান মন্ত্রী।

মোটা চাল মেশিনের মাধ্যমে চিকন করে নতুন নামে বিক্রি বন্ধে আইন হচ্ছে। এর ফলে তথাকথিত মেনিকেটসহ আরও বিভিন্ন নামের যেসব চাল বাজারে চলছে, সেগুলো আর থাকবে না বলে জানান খাদ্যমন্ত্রী।

বিভিন্ন অজুহাতে ব্যবসায়ীরা কারসাজি করে ৭ থেকে ৮ টাকা পর্যন্ত চালের দাম বাড়িয়ে দিচ্ছে। তবে দেশে খাদ্যের কোনও ঘাটতি নেই উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, বিভিন্ন দেশ থেকে খাদ্য আমদানি করা হচ্ছে।

চালের দাম নিয়ন্ত্রণে ওয়েবসাইটে প্রতিদিন দাম আপডেট রাখার একটি পরিকল্পনাও গ্রহন করতে যাচ্ছে খাদ্য মন্ত্রণালয়।

অক্টোবরের শুরু থেকে সব জেলা ও সিটি কর্পোরেশন এলাকায় ওএমএস ডিলারদের কাছে প্রতিদিন ২ টন করে আটা দেয়া হবে বলে ঘোষণা দেন খাদ্যমন্ত্রী। তাতে খাদ্যপণ্যের বাজার ‘অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে চলে আসবে’ বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

Tag :

ভারতের গ্রামে অভিনব উদ্যোগ, শৈশব ফেরাতে মোবাইল-টিভিতে নিষেধাজ্ঞা

চাল নিয়ে জালিয়াতি বন্ধে আইন করছে সরকার

প্রকাশের সময় : ১০:২৩:৫০ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২২

মোটা চাল মেশিনে ছাটাইয়ের মাধ্যমে চিকন করা বন্ধ হবে। পাশাপাশি চালের নাম পরিবর্তন করে বিক্রিরও সুযোগ দেয়া হবে না। এসব জালিয়াতি বন্ধে এবং পরিকল্পানা বাস্তবায়নে আইন করা হচ্ছে বলে জানালেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার।

মঙ্গলবার সচিবালয়ের গণমাধ্যম কেন্দ্রে আয়োজিত এক সংলাপে যোগ দিয়ে খাদ্য মন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার কথা বলেন, চালের বাজার পরিস্থিতি এবং এ খাতের সিন্ডিকেট বাণিজ্য নিয়ে।

এ সময় চালের বাজার নিয়ন্ত্রণে তিন স্তরের মূল্যসংক্রান্ত তথ্য ওয়েবসাইটে দেয়ার কথাও জানান মন্ত্রী।

মোটা চাল মেশিনের মাধ্যমে চিকন করে নতুন নামে বিক্রি বন্ধে আইন হচ্ছে। এর ফলে তথাকথিত মেনিকেটসহ আরও বিভিন্ন নামের যেসব চাল বাজারে চলছে, সেগুলো আর থাকবে না বলে জানান খাদ্যমন্ত্রী।

বিভিন্ন অজুহাতে ব্যবসায়ীরা কারসাজি করে ৭ থেকে ৮ টাকা পর্যন্ত চালের দাম বাড়িয়ে দিচ্ছে। তবে দেশে খাদ্যের কোনও ঘাটতি নেই উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, বিভিন্ন দেশ থেকে খাদ্য আমদানি করা হচ্ছে।

চালের দাম নিয়ন্ত্রণে ওয়েবসাইটে প্রতিদিন দাম আপডেট রাখার একটি পরিকল্পনাও গ্রহন করতে যাচ্ছে খাদ্য মন্ত্রণালয়।

অক্টোবরের শুরু থেকে সব জেলা ও সিটি কর্পোরেশন এলাকায় ওএমএস ডিলারদের কাছে প্রতিদিন ২ টন করে আটা দেয়া হবে বলে ঘোষণা দেন খাদ্যমন্ত্রী। তাতে খাদ্যপণ্যের বাজার ‘অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে চলে আসবে’ বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।