ঢাকা ০৩:৫৬ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ০১ অক্টোবর ২০২২, ১৫ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সরকার নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে বেশি দামের দাবিতে কুড়িগ্রামে এলপিজি বিক্রি বন্ধ

মোঃবুলবুল ইসলাম,স্টাফ রিপোর্টারঃ

কুড়িগ্রামে পাইকারি ও খুচরা পর্যায়ে এলপিজি গ্যাস বিক্রি বন্ধ রেখেছেন ডিলাররা। এতে চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন গ্রাহকরা। লোকসানের অজুহাত তুলে সরকার নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে বেশি দামে গ্যাস বিক্রির দাবিতে গত শুক্রবার থেকে এলপিজির ডিলাররা ধর্মঘট পালন করছেন বলে একাধিক ডিলারের সঙ্গে কথা বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে।

তবে জেলা প্রশাসন বলছে, ডিলারদের এমন দাবি অনৈতিক এবং অযৌক্তিক। কোনোভাবে সরকার নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে বেশি দামে গ্যাস বিক্রির সুযোগ নেই। এটি লাইসেন্সের শর্ত ভঙ্গের শামিল।

রবিবার (১১ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় জেলা শহরের ত্রিমোহনী বাজারে ওমেরা গ্যাস ডিলার পয়েন্ট মেসার্স সাহা ফিলিং স্টেশনে মুকুল নামে এক গ্রাহক গ্যাস কিনতে গেলে বিক্রি করতে অপারগতা জানান ডিলারের প্রতিনিধি। এ সময় তারা ওই গ্রাহককে জানান, ধর্মঘট চলছে।

মুকুল বলেন, ‘বাড়িতে এলপিজি গ্যাস শেষ। সিলিন্ডার নিতে এসে দেখি কেউ বিক্রি করছেন না। অথচ সব ডিলারের কাছে সিলিন্ডার মজুত রয়েছে। সব ভোগান্তি আমাদের মতো গ্রাহকদের।’

যোগাযোগ করা হলে ওমেরা গ্যাস ডিলারের প্রতিনিধি মো. রুবেল জানান, সরকার নির্ধারিত মূল্যে সিলিন্ডার বিক্রি করলে তাদেরকে সিলিন্ডার প্রতি অন্তত ৬০ টাকা লোকসান গুনতে হয়। আবার বেশি দামে সিলিন্ডার বিক্রি করলে ভ্রাম্যমাণ আদালতে জরিমানা দিতে হয়। গত বৃহস্পতিবার তাদের একটি প্রতিনিধি দল জেলা প্রশাসকের সঙ্গে দেখা করে বেশি দামে সিলিন্ডার বিক্রির অনুমতি চাইলে জেলা প্রশাসন থেকে অনুমতি দেওয়া হয়নি। ফলে তারা অনির্দিষ্টকালের জন্য সিলিন্ডার বিক্রি বন্ধ রেখেছেন।

‘আমরা তো লোকসান দিতে পারবো না। পাশের জেলাগুলোতে সরকার নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে বেশি দামে সিলিন্ডার বিক্রি করা হচ্ছে। কিন্তু আমরা বিক্রি করলে জরিমানা দিতে হচ্ছে। এজন্য আমরা বিক্রি বন্ধ রেখেছি। নতুন করে সিলিন্ডার তুলছি না’ বলেন ডিলার প্রতিনিধি রুবেল।

কুড়িগ্রামে যমুনা গ্যাসের ডিলার বদরুল আহসান মামুন বলেন, ‘আমাদের উপায় নেই। আমরা জেলা প্রশাসকের কাছে মূল্য সমন্বয় করে গ্যাস বিক্রির অনুমতি চেয়েছি। কিন্তু তিনি মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্তের বাইরে সিদ্ধান্ত দিতে রাজি হননি। সরকার নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে আমাকে অন্তত ৫০ টাকা বেশি দিয়ে গ্যাস কিনতে হয়। সে হিসাবে আমাদেরকে প্রতি সিলিন্ডার কমপক্ষে ১৩৯০ টাকায় বিক্রি করতে হয়। আমরা তো লোকসান দিয়ে বিক্রি করতে পারবো না। এজন্য নতুন করে সিলিন্ডার তুলছি না, বিক্রিও করছি না।’

জানতে চাইলে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ রেজাউল করিম বলেন, ‘ডিলাররা আমার কাছে এসেছিলেন। আমি বলেছি সরকার নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে বেশি দামে বিক্রির অনুমতি দেওয়ার সুযোগ নেই। এজন্য তারা যদি বিক্রি বন্ধ রাখেন সেটা তো কোনও সমাধান নয়। তারা সরকারের সিদ্ধান্ত মেনে নেওয়ার শর্তে লাইসেন্স নিয়েছেন।’

সংকটের সমাধান সম্পর্কে জানতে চাইলে জেলা প্রশাসক বলেন, ‘এভাবে চলতে থাকলে আমাদেরকে আইনগত ব্যবস্থা নিতে হবে। আমি প্রত্যাশা করবো, ডিলাররা নির্ধারিত মূল্যে গ্যাস বিক্রি করবেন।’

Tag :
জনপ্রিয়

হোসেনপুর বাজার সনাতন ধর্মাবলম্বী ব্যাবসায়িকদের উদ্যোগে বস্ত্র বিতরণ

সরকার নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে বেশি দামের দাবিতে কুড়িগ্রামে এলপিজি বিক্রি বন্ধ

প্রকাশের সময় : ১১:৩৩:৩২ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১২ সেপ্টেম্বর ২০২২

মোঃবুলবুল ইসলাম,স্টাফ রিপোর্টারঃ

কুড়িগ্রামে পাইকারি ও খুচরা পর্যায়ে এলপিজি গ্যাস বিক্রি বন্ধ রেখেছেন ডিলাররা। এতে চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন গ্রাহকরা। লোকসানের অজুহাত তুলে সরকার নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে বেশি দামে গ্যাস বিক্রির দাবিতে গত শুক্রবার থেকে এলপিজির ডিলাররা ধর্মঘট পালন করছেন বলে একাধিক ডিলারের সঙ্গে কথা বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে।

তবে জেলা প্রশাসন বলছে, ডিলারদের এমন দাবি অনৈতিক এবং অযৌক্তিক। কোনোভাবে সরকার নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে বেশি দামে গ্যাস বিক্রির সুযোগ নেই। এটি লাইসেন্সের শর্ত ভঙ্গের শামিল।

রবিবার (১১ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় জেলা শহরের ত্রিমোহনী বাজারে ওমেরা গ্যাস ডিলার পয়েন্ট মেসার্স সাহা ফিলিং স্টেশনে মুকুল নামে এক গ্রাহক গ্যাস কিনতে গেলে বিক্রি করতে অপারগতা জানান ডিলারের প্রতিনিধি। এ সময় তারা ওই গ্রাহককে জানান, ধর্মঘট চলছে।

মুকুল বলেন, ‘বাড়িতে এলপিজি গ্যাস শেষ। সিলিন্ডার নিতে এসে দেখি কেউ বিক্রি করছেন না। অথচ সব ডিলারের কাছে সিলিন্ডার মজুত রয়েছে। সব ভোগান্তি আমাদের মতো গ্রাহকদের।’

যোগাযোগ করা হলে ওমেরা গ্যাস ডিলারের প্রতিনিধি মো. রুবেল জানান, সরকার নির্ধারিত মূল্যে সিলিন্ডার বিক্রি করলে তাদেরকে সিলিন্ডার প্রতি অন্তত ৬০ টাকা লোকসান গুনতে হয়। আবার বেশি দামে সিলিন্ডার বিক্রি করলে ভ্রাম্যমাণ আদালতে জরিমানা দিতে হয়। গত বৃহস্পতিবার তাদের একটি প্রতিনিধি দল জেলা প্রশাসকের সঙ্গে দেখা করে বেশি দামে সিলিন্ডার বিক্রির অনুমতি চাইলে জেলা প্রশাসন থেকে অনুমতি দেওয়া হয়নি। ফলে তারা অনির্দিষ্টকালের জন্য সিলিন্ডার বিক্রি বন্ধ রেখেছেন।

‘আমরা তো লোকসান দিতে পারবো না। পাশের জেলাগুলোতে সরকার নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে বেশি দামে সিলিন্ডার বিক্রি করা হচ্ছে। কিন্তু আমরা বিক্রি করলে জরিমানা দিতে হচ্ছে। এজন্য আমরা বিক্রি বন্ধ রেখেছি। নতুন করে সিলিন্ডার তুলছি না’ বলেন ডিলার প্রতিনিধি রুবেল।

কুড়িগ্রামে যমুনা গ্যাসের ডিলার বদরুল আহসান মামুন বলেন, ‘আমাদের উপায় নেই। আমরা জেলা প্রশাসকের কাছে মূল্য সমন্বয় করে গ্যাস বিক্রির অনুমতি চেয়েছি। কিন্তু তিনি মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্তের বাইরে সিদ্ধান্ত দিতে রাজি হননি। সরকার নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে আমাকে অন্তত ৫০ টাকা বেশি দিয়ে গ্যাস কিনতে হয়। সে হিসাবে আমাদেরকে প্রতি সিলিন্ডার কমপক্ষে ১৩৯০ টাকায় বিক্রি করতে হয়। আমরা তো লোকসান দিয়ে বিক্রি করতে পারবো না। এজন্য নতুন করে সিলিন্ডার তুলছি না, বিক্রিও করছি না।’

জানতে চাইলে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ রেজাউল করিম বলেন, ‘ডিলাররা আমার কাছে এসেছিলেন। আমি বলেছি সরকার নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে বেশি দামে বিক্রির অনুমতি দেওয়ার সুযোগ নেই। এজন্য তারা যদি বিক্রি বন্ধ রাখেন সেটা তো কোনও সমাধান নয়। তারা সরকারের সিদ্ধান্ত মেনে নেওয়ার শর্তে লাইসেন্স নিয়েছেন।’

সংকটের সমাধান সম্পর্কে জানতে চাইলে জেলা প্রশাসক বলেন, ‘এভাবে চলতে থাকলে আমাদেরকে আইনগত ব্যবস্থা নিতে হবে। আমি প্রত্যাশা করবো, ডিলাররা নির্ধারিত মূল্যে গ্যাস বিক্রি করবেন।’