ঢাকা ০৫:৩৬ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ০১ অক্টোবর ২০২২, ১৫ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ফাইনাল সেরা রাজাপাকসে, টুর্নামেন্ট সেরা হাসারাঙ্গা

দুর্দান্ত এক টুর্নামেন্ট পার করলো শ্রীলঙ্কা। হতাশা দিয়ে শুরা করলেও শেষ হলো শিরোপা জয় দিয়ে। এতেই ষষ্ঠবারের মতো এশিয়ার চ্যাম্পিয়ন দল হল শ্রীলঙ্কা। দুবাইয়ে রবিবার (১১ সেপ্টেম্বর) রাতে অনুষ্ঠিত ফাইনালে পাকিস্তানকে ২৩ রানে হারিয়ে এশিয়া কাপে চ্যাম্পিয়ান হয়েছে দাসুন শানাকার দল।

৫৮ রানে ৫ উইকেট পড়ার পরিস্থিতিতে থেকে দলকে টেনে ৪৫ বলে অপরাজিত ৭১ করে ম্যাচ সেরা হয়েছেন রাজাপাকসে। ২১ বলে ৩৬ রানের ইনিংস খেলা হাসারাঙ্গা বল হাতে নিয়েছেন ২৭ রানে ৩ উইকেট। হাসারাঙ্গা পুরো টুর্নামেন্টে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৯ উইকেট নিয়েছেন গড় ৭.৩৬ রান দিয়ে। ম্যাচের গুরুত্বপূর্ণ ফেজে মোড় ঘুরিয়ে দেয়া বল করে আলো কাড়া হাসারাঙ্গাকে দেয়া হয়েছে টুর্নামেন্ট সেরার পুরস্কার।

টি-টোয়েন্টিতে বোলারদের র‌্যাঙ্কিংয়ে নয়ে থাকা হাসারাঙ্গা এই সংস্করণে ব্যাট হাতে কতটা কার্যকর তার প্রমাণ দিয়েছেন আরেকবার। আফগানিস্তানের বিপক্ষে রান তাড়ায় ৯ বলে অপরাজিত ১৬, পাকিস্তানের বিপক্ষে সুপার ফোরের শেষ ম্যাচে রান তাড়ায় ৩ বল ১০ করে রাখেন ভূমিকা। ফাইনালের জন্য তিনি তুলে রেখেছিলেন সেরাটা।

উপরের দিকের ব্যাটাররা ভালো করায় গোটা টুর্নামেন্টে ব্যাট হাতে নিজেকে মেলে ধরার তেমন সুযোগ ছিল না তার। ফাইনালে সুযোগ পেয়েই তা কাজে লাগান। ভীষণ চাপের মধ্যে খেলেন আগ্রাসী ইনিংস। তার অ্যাপ্রোচেই মোড় ঘুরে যায়। আইপিএলে তার এত কদর কেন সেটা আরেকবার পরিষ্কার হয়েছে।

রাজাপাকসে গোটা আসরেই শ্রীলঙ্কার ব্যাটিংয়ের প্রাণ ভোমরা। ৬ ম্যাচে ৪৭.৭৫ গড়ে তুলেন ১৯১ রান। সবচেয়ে বড় কথা এই রান আনতে তার স্ট্রাইকরেট ছিল ১৪৯.২১। এক পাশে উইকেট পড়লেও আড়ষ্ট হয়ে না থেকে বাউন্ডারি বের করেছেন, দলের রানের চাকা সচল রেখে গেছেন এই বাঁহাতি। ফাইনালে ক্যারিয়ারের অন্যতম সেরা ইনিংস খেলে তিনি করলেন বাজিমাত।

Tag :
জনপ্রিয়

হোসেনপুর বাজার সনাতন ধর্মাবলম্বী ব্যাবসায়িকদের উদ্যোগে বস্ত্র বিতরণ

ফাইনাল সেরা রাজাপাকসে, টুর্নামেন্ট সেরা হাসারাঙ্গা

প্রকাশের সময় : ০৯:৫৪:৫৫ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১২ সেপ্টেম্বর ২০২২

দুর্দান্ত এক টুর্নামেন্ট পার করলো শ্রীলঙ্কা। হতাশা দিয়ে শুরা করলেও শেষ হলো শিরোপা জয় দিয়ে। এতেই ষষ্ঠবারের মতো এশিয়ার চ্যাম্পিয়ন দল হল শ্রীলঙ্কা। দুবাইয়ে রবিবার (১১ সেপ্টেম্বর) রাতে অনুষ্ঠিত ফাইনালে পাকিস্তানকে ২৩ রানে হারিয়ে এশিয়া কাপে চ্যাম্পিয়ান হয়েছে দাসুন শানাকার দল।

৫৮ রানে ৫ উইকেট পড়ার পরিস্থিতিতে থেকে দলকে টেনে ৪৫ বলে অপরাজিত ৭১ করে ম্যাচ সেরা হয়েছেন রাজাপাকসে। ২১ বলে ৩৬ রানের ইনিংস খেলা হাসারাঙ্গা বল হাতে নিয়েছেন ২৭ রানে ৩ উইকেট। হাসারাঙ্গা পুরো টুর্নামেন্টে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৯ উইকেট নিয়েছেন গড় ৭.৩৬ রান দিয়ে। ম্যাচের গুরুত্বপূর্ণ ফেজে মোড় ঘুরিয়ে দেয়া বল করে আলো কাড়া হাসারাঙ্গাকে দেয়া হয়েছে টুর্নামেন্ট সেরার পুরস্কার।

টি-টোয়েন্টিতে বোলারদের র‌্যাঙ্কিংয়ে নয়ে থাকা হাসারাঙ্গা এই সংস্করণে ব্যাট হাতে কতটা কার্যকর তার প্রমাণ দিয়েছেন আরেকবার। আফগানিস্তানের বিপক্ষে রান তাড়ায় ৯ বলে অপরাজিত ১৬, পাকিস্তানের বিপক্ষে সুপার ফোরের শেষ ম্যাচে রান তাড়ায় ৩ বল ১০ করে রাখেন ভূমিকা। ফাইনালের জন্য তিনি তুলে রেখেছিলেন সেরাটা।

উপরের দিকের ব্যাটাররা ভালো করায় গোটা টুর্নামেন্টে ব্যাট হাতে নিজেকে মেলে ধরার তেমন সুযোগ ছিল না তার। ফাইনালে সুযোগ পেয়েই তা কাজে লাগান। ভীষণ চাপের মধ্যে খেলেন আগ্রাসী ইনিংস। তার অ্যাপ্রোচেই মোড় ঘুরে যায়। আইপিএলে তার এত কদর কেন সেটা আরেকবার পরিষ্কার হয়েছে।

রাজাপাকসে গোটা আসরেই শ্রীলঙ্কার ব্যাটিংয়ের প্রাণ ভোমরা। ৬ ম্যাচে ৪৭.৭৫ গড়ে তুলেন ১৯১ রান। সবচেয়ে বড় কথা এই রান আনতে তার স্ট্রাইকরেট ছিল ১৪৯.২১। এক পাশে উইকেট পড়লেও আড়ষ্ট হয়ে না থেকে বাউন্ডারি বের করেছেন, দলের রানের চাকা সচল রেখে গেছেন এই বাঁহাতি। ফাইনালে ক্যারিয়ারের অন্যতম সেরা ইনিংস খেলে তিনি করলেন বাজিমাত।