ঢাকা ০২:৩৭ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৪ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দুয়ারে এসএসসি-সমমান পরীক্ষা, সম্পন্ন সব প্রস্তুতি

দুয়ারে এসে কড়া নাড়ছে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা। দীর্ঘ প্রতিক্ষার পর আগামী ১৫ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হবে দেশের সর্ববৃহৎ এই পরীক্ষা। রীতি অনুযায়ী প্রতি বছর ফেব্রুয়ারিতে এসএসসি-সমমান পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হলেও করোনাভাইরাস ও বন্যার কারণে পরীক্ষা হচ্ছে দেরিতে। তবে মহামারিতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে সব ক্লাস না হওয়ায় গতবারের মতো এবারও সংক্ষিপ্ত সিলেবাসে ২ ঘণ্টার পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

এছাড়া যানজট এড়াতে প্রথমবারের মতো ১০টার পরিবর্তে ১১টায় অনুষ্ঠিত হবে পরীক্ষা। এবার এসএসসি ও ভোকেশনালের লিখিত পরীক্ষা শেষ হবে ১ অক্টোবর এবং মাদরাসার ৩ অক্টোবর। লিখিত পরীক্ষা শেষে ব্যবহারিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে ১০ অক্টোবর থেকে ১৫ অক্টোবরের মধ্যে। পরীক্ষা শেষে ৬০ দিনের মধ্যেই ফল ঘোষণা হবে হবে আগাম জানিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

এদিকে আগামী বছর থেকে ‘এলোমেলো শিক্ষাপঞ্জি’ ঠিক করে যথাসময়ে সব পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। নকলমুক্ত ও শান্তিপূর্ণ পরীক্ষা আয়োজনের জন্য ইতোমধ্যেই সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে মন্ত্রণালয় ও শিক্ষা বোর্ডগুলো। পরীক্ষার সময় ঘনিয়ে আসায় পড়ালেখায় মনোযোগী শিক্ষার্থীরা। পড়ার টেবিলেই কাটছে তাদের দিনরাত।

চলমান পরিস্থিতি বিবেচনায় বিদ্যুৎ ও জ্বালানি সাশ্রয়ের নিমিত্তে শুক্র ও শনিবার দু’দিন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ছুটি ঘোষণা হলেও চলতি বছরের এসএসসি পরীক্ষায় এর প্রভাব পড়বে না বলে জানিয়েছেন আন্তঃশিক্ষা বোর্ডের সমন্বয়ক ও ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক তপন কুমার সরকার।

প্রকাশিত রুটিনে দেখা গেছে, এবার বিকেলে কোনো পরীক্ষা আয়োজন করা হবে না। এমসিকিউ পরীক্ষার সময় ২০ মিনিট এবং রচনামূলক পরীক্ষার সময় ১ ঘণ্টা ৪০ মিনিট।

১৫ সেপ্টেম্বর বাংলা (আবশ্যিক) প্রথমপত্র, সহজ বাংলা প্রথমপত্র, ১৭ সেপ্টেম্বর বাংলা (আব্যশিক) দ্বিতীয়পত্র, সহজ বাংলা দ্বিতীয়পত্র, ১৯ সেপ্টেম্বর ইংরেজি (আবশ্যিক) প্রথমপত্র, পরদিন ২০ সেপ্টেম্বর ইংরেজি (আবশ্যিক) দ্বিতীয়পত্র, ২২ সেপ্টেম্বর গণিত, ২৪ সেপ্টেম্বর পদার্থ বিজ্ঞান (তত্ত্বীয়), বাংলাদেশের ইতিহাস ও বিশ্বসভ্যতা, ফিন্যান্স ও ব্যাংকিং, পরদিন গার্হস্থ্য বিজ্ঞান (তত্ত্বীয়)।

কৃষি শিক্ষা, সংগীত, আরবি, সংস্কৃত, পালি, শারীরিক শিক্ষা ও ক্রীড়া, চারু ও কারুকলা (তত্ত্বীয়), ২৬ সেপ্টেম্বর রসায়ন (তত্ত্বীয়), পৌরনীতি ও নাগরিকতা ও ব্যবসায় উদ্যোগ, পরদিন ২৭ সেপ্টেম্বর ভূগোল ও পরিবেশ, ২৮ সেপ্টেম্বর জীববিজ্ঞান (তত্ত্বীয়) ও অর্থনীতি, ২৯ সেপ্টেম্বর হিসাববিজ্ঞান এবং ১ অক্টোবর উচ্চতর গণিত (তত্ত্বীয়) পরীক্ষার মাধ্যমে এসএসসি পরীক্ষা শেষ করা হবে।

আসন্ন এসএসসি ও সমমান পরীক্ষা সুষ্ঠু, নকলমুক্ত ও ইতিবাচক পরিবেশে সম্পন্নের লক্ষ্যে গঠিত জাতীয় মনিটরিং ও আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভা শেষে গত সোমবার (৫ সেপ্টেম্বর) শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছিলেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে শান্তিপূর্ণ ও উৎসবমুখর পরিবেশে পরীক্ষা আয়োজনের প্রস্তুতি নিয়েছি। প্রশ্নফাঁস ও গুজব ঠেকাতে গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ানো হবে। পরীক্ষা কেন্দ্রে কেউ মোবাইল ব্যবহার করতে পারবে না। শুধু কেন্দ্র সচিব বাটন মোবাইল ফোন ব্যবহার করতে পারবেন। কেন্দ্রের ২০০ গজে বহিরাগত কেউ প্রবেশ করতে পারবে না। প্রতিটি কেন্দ্রে স্বাস্থ্যবিধি মেনে পরীক্ষা আয়োজন করতে হবে। পরীক্ষা শুরুর ২৫ মিনিট আগে প্রশ্নের সেট কোড ঘোষণা করা হবে। সে অনুযায়ী দায়িত্বপ্রাপ্ত ম্যাজিস্ট্রেট সরকারি কর্মকর্তার উপস্থিতিতে কেন্দ্র সচিব ও পলিশ কর্মকর্তার স্বাক্ষরে প্রশ্নপত্রের প্যাকেট খোলা হবে।

মন্ত্রী বলেছিলেন, কোনো প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক বা প্রধান পাবলিক পরীক্ষায় বেআইনি কাজ করলে ওই প্রতিষ্ঠান, প্রধান ও শিক্ষকের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। প্রয়োজনে পরীক্ষা কেন্দ্র বাতিল করা হবে। সরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান হলে দোষী শিক্ষক ও কর্মচারীদের চাকরি থেকে সাময়িক বরখাস্ত করে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে তাদের এমপিওভুক্তি বাতিলসহ আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এবার বেলা ১১টায় পরীক্ষা শুরু
অন্যবার সকাল ১০টায় পরীক্ষা শুরু হলেও এবার যানজটের কথা বিবেচনা করে বেলা ১১টায় এ পরীক্ষা শুরু হবে। আগের মতোই শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা শুরুর কমপক্ষে ৩০ মিনিট আগে কেন্দ্রে ঢুকতে হবে। অনিবার্য কারণে কোনো পরীক্ষার্থীকে এরপরও ঢুকতে দিলে হলে তার নাম, রোল নম্বর, দেরির কারণ ইত্যাদি একটি নিবন্ধন খাতায় লিপিবদ্ধ করে ওই দিনই সংশ্লিষ্ট শিক্ষা বোর্ডে পাঠাতে হবে।

২১ দিন কোচিং সেন্টার বন্ধ থাকবে
এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার জন্য প্রতিবছরই কিছুদিনের জন্য কোচিং সেন্টারগুলো বন্ধ রাখা হয়। এবার ১২ সেপ্টেম্বর থেকে আগামী ২ অক্টোবর পর্যন্ত ২১ দিন দেশের সব কোচিং সেন্টার বন্ধ থাকবে।

শনিবার সকালের পরিবর্তে সন্ধ্যায় পরীক্ষা দিবে সেভেন্থ ডে অ্যাডভান্টিস্ট শিক্ষার্থীরা
ধর্মীয় বিধি নিষেধ থাকায় ‘সেভেন্থ ডে অ্যাডভান্টিস্ট’ সম্প্রদায়ের শিক্ষার্থীদের শনিবারের এসএসসি পরীক্ষা সন্ধ্যা ৬টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হবে। এ সম্প্রদায়ের জন্য বিশেষ শর্ত আরোপ করেছে শিক্ষা বোর্ডগুলো।

সম্প্রতি এক বিজ্ঞপ্তিতে ঢাকা বোর্ড জানিয়েছে, বিশেষ শর্ত হিসেবে এই সম্প্রদায়ের পরীক্ষার্থীদের শনিবার সকাল ১০টার আগে পরীক্ষা কেন্দ্রে উপস্থিত হয়ে নির্দিষ্ট কক্ষে অবস্থান করতে বলা হয়েছে। বোর্ড জানিয়েছে, এ সময় প্রবেশপত্রে উল্লেখিত দ্রব্যের বাইরে কিছু সঙ্গে রাখতে পারবেন না পরীক্ষার্থীরা। এ সময় কেন্দ্রের নির্দিষ্ট কক্ষের বাইরে কারও সঙ্গে পরীক্ষার্থীরা যোগাযোগ করতে পারবেন না।

গত বছরের থেকে এবার পরীক্ষার্থী কমেছে ২ লাখ ২১ হাজার
গত বছরের তুলনায় এবার এসএসসি ও সমমানে পরীক্ষার্থী কমেছে ২ লাখ ২১ হাজার ৩৮৬ জন। এর আগে ২০২১ সালে পরীক্ষায় বসেছিল ২২ লাখ ৪৩ হাজার ২৫৪ জন শিক্ষার্থী। করোনায় বাল্যবিয়ের কারণে এবার পরীক্ষার্থী কিছুটা কমতে পারে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

পরীক্ষার্থী কমার কারণ হিসেবে ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান তপন কুমার সরকার বলেন, প্রতিবছরই নিয়মিত ও অনিয়মিত মিলিয়ে মোট পরীক্ষার্থীর সংখ্যা নির্ধারণ করা হয়। কিন্তু করোনার কারণে গত বছর মাত্র তিন বিষয়ে পরীক্ষা হয়েছিল। তখন ৯৩ শতাংশের বেশি পরীক্ষার্থী পাস করেছিল। ফলে এ বছর অনিয়মিত পরীক্ষার্থী একেবারেই কম। আবার প্রতিবছরই কিছুসংখ্যক শিক্ষার্থী নিবন্ধন করেও পরীক্ষা দেয় না।

কোন বোর্ডে কত পরীক্ষার্থী
আসন্ন এসএসসি ও সমমান পরীক্ষায় বসবে সারাদেশের ২৯ হাজার ৫৯১টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ২০ লাখ ২১ হাজার ৮৬৮ জন শিক্ষার্থী। গত বছর তুলনায় এবার ৫৫৬টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী পরীক্ষায় বসবে। তাদের মধ্যে ছাত্র ১০ লাখ ৯ হাজার ৫১১ জন আর ছাত্রী ১০ লাখ ১২ হাজার ৩৫৭ জন। এর মধ্যে ৯টি সাধারণ শিক্ষাবোর্ড থেকে ১৭ হাজার ৬৮০টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ১৫ লাখ ৯৯ হাজার ৭১১ জন শিক্ষার্থী এসএসসি পরীক্ষা দেবে।

দাখিলে অংশগ্রহণ করবে ৯ হাজার ৯৩টি প্রতিষ্ঠানের ২ লাখ ৬৮ হাজার ৪৯৫ জন শিক্ষার্থী।

এসএসসি ভোকেশনালে পরীক্ষায় বসবে ৮২৮টি প্রতিষ্ঠানের ১ লাখ ৫৩ হাজার ৬৬২ জন শিক্ষার্থী। এ বছর মোট পরীক্ষা কেন্দ্রের সংখ্যা ৩ হাজার ৭৯০টি। যা গতবারের তুলনায় ১১১টি বেশি।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের তথ্যমতেÍ এবছর দেশের ৯টি সাধারণ শিক্ষা বোর্ডের মধ্যে ঢাকা বোর্ড থেকে পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করবে ৩ লাখ ৯৪ হাজার ৯৯৮ জন শিক্ষার্থী, রাজশাহী বোর্ড থেকে ১ লাখ ৯৬ হাজার ৬০০ জন শিক্ষার্থী, কুমিল্লা বোর্ড থেকে ১ লাখ ৮৮ হাজার ৭১৪ জন শিক্ষার্থী, যশোর বোর্ড থেকে ১ লাখ ৭০ হাজার ৩৭৭ জন শিক্ষার্থী, চট্টগ্রাম বোর্ড থেকে ১ লাখ ৪৯ হাজার ৭১০ জন শিক্ষার্থী, বরিশাল বোর্ড থেকে ৯৫ হাজার ৯৭৬ জন শিক্ষার্থী, সিলেট বোর্ড থেকে ১ লাখ ১৬ হাজার ৪২৭ জন শিক্ষার্থী, দিনাজপুর বোর্ড থেকে ১ লাখ ৭৩ হাজার ৯৬১ জন শিক্ষার্থী আর ময়মনসিংহ বোর্ড থেকে ১ লাখ ১২ হাজার ৯৪৮ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করবে।

এই ৯টি সাধারণ শিক্ষাবোর্ডের ১৫ লাখ ৯৯ হাজার ৭১১ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে বিজ্ঞান বিভাগের ৫ লাখ ৮ হাজার ২৩৬ জন, মানবিক বিভাগের ৭ লাখ ৯০ হাজার ৯১ জন আর ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগের ৩ লাখ ১ হাজার ৩৮৪ জন।

বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, গত বছররের তুলনায় এবছর বিজ্ঞান বিভাগে পরীক্ষার্থী বৃদ্ধি পেয়েছে ১ হাজার ৪০৫ জন। গত বছর এই বিভাগে পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ছিল ৫ লাখ ৬ হাজার ৮৩১ জন।

এছাড়াও বিদেশের ৮টি কেন্দ্র থেকে পরীক্ষায় বসবে ৩৬৭ জন শিক্ষার্থী। এদের মধ্যে জেদ্দা থেকে ৭০ জন, রিয়াদ থেকে ৪৮ জন, ত্রিপলী থেকে ৪ জন, দোহা থেকে ৬৮ জন, আবুধাবী থেকে ৫৯ জন, দুবাই থেকে ৩১ জন, বাহরাইন থেকে ৫৩ জন, ওমানের সাহাম থেকে ৩৪ জন।

এসএসসি পরীক্ষার চলাকালে রাজনৈতিক কর্মসূচি না দেওয়ার আহ্বান
এসএসসি পরীক্ষা চলাকালীন কোনো ধরনের রাজনৈতিক কর্মসূচি না দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি। তিনি বলেছেন, পরীক্ষা চলাকালে রাজনৈতিক কর্মসূচি দিলে শিক্ষার্থীর জন্য ক্ষতিকর হতে পারে।

এসএসসি পরীক্ষা নিয়ে জাতীয় মনিটরিং ও আইনশৃঙ্খলা সংক্রান্ত কমিটির ওই সভা শেষে সংবাদ সম্মেলনে মন্ত্রী বলেন, আমরা রাজনীতি করি আমাদের সন্তানদের জন্য। যে কাজ তাদের কল্যাণ হবে না, সেটি আমরা করতে পারি না। এসএসসি পরীক্ষার সময়ে রাজনৈতিক কর্মসূচি পালন করলে সেটি পরীক্ষার্থীদের জন্য ব্যাঘাত ঘটবে। সেটি থেকে সকল রাজনৈতিক ব্যক্তিদের বিরত থাকতে হবে। আমাদের শিক্ষার্থীরা আগামী দিনের ভবিষ্যৎ। তাদের মঙ্গলের জন্য সকল রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড থেকে সকল দলকে বিরত থাকতে আহ্বান জানান তিনি। এ সময় শিক্ষার্থীদের চাইতে রাজনীতি বড় নয় বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

উল্লেখ্য, করোনায় পেছানোর পরও এবার এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা ১৯ জুন থেকে শুরু হওয়ার কথা ছিল। তবে সিলেট ও সুনামগঞ্জসহ কয়েকটি অঞ্চলে ভয়াবহ বন্যা শুরু হওয়ায় ১৭ জুন পরীক্ষা স্থগিতের ঘোষণা আসে।

Tag :

পুলিশের হাতে কামড় দিয়ে হ্যান্ডকাপসহ পালালো আসামি

দুয়ারে এসএসসি-সমমান পরীক্ষা, সম্পন্ন সব প্রস্তুতি

প্রকাশের সময় : ১০:০৫:০৩ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১২ সেপ্টেম্বর ২০২২

দুয়ারে এসে কড়া নাড়ছে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা। দীর্ঘ প্রতিক্ষার পর আগামী ১৫ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হবে দেশের সর্ববৃহৎ এই পরীক্ষা। রীতি অনুযায়ী প্রতি বছর ফেব্রুয়ারিতে এসএসসি-সমমান পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হলেও করোনাভাইরাস ও বন্যার কারণে পরীক্ষা হচ্ছে দেরিতে। তবে মহামারিতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে সব ক্লাস না হওয়ায় গতবারের মতো এবারও সংক্ষিপ্ত সিলেবাসে ২ ঘণ্টার পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

এছাড়া যানজট এড়াতে প্রথমবারের মতো ১০টার পরিবর্তে ১১টায় অনুষ্ঠিত হবে পরীক্ষা। এবার এসএসসি ও ভোকেশনালের লিখিত পরীক্ষা শেষ হবে ১ অক্টোবর এবং মাদরাসার ৩ অক্টোবর। লিখিত পরীক্ষা শেষে ব্যবহারিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে ১০ অক্টোবর থেকে ১৫ অক্টোবরের মধ্যে। পরীক্ষা শেষে ৬০ দিনের মধ্যেই ফল ঘোষণা হবে হবে আগাম জানিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

এদিকে আগামী বছর থেকে ‘এলোমেলো শিক্ষাপঞ্জি’ ঠিক করে যথাসময়ে সব পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। নকলমুক্ত ও শান্তিপূর্ণ পরীক্ষা আয়োজনের জন্য ইতোমধ্যেই সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে মন্ত্রণালয় ও শিক্ষা বোর্ডগুলো। পরীক্ষার সময় ঘনিয়ে আসায় পড়ালেখায় মনোযোগী শিক্ষার্থীরা। পড়ার টেবিলেই কাটছে তাদের দিনরাত।

চলমান পরিস্থিতি বিবেচনায় বিদ্যুৎ ও জ্বালানি সাশ্রয়ের নিমিত্তে শুক্র ও শনিবার দু’দিন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ছুটি ঘোষণা হলেও চলতি বছরের এসএসসি পরীক্ষায় এর প্রভাব পড়বে না বলে জানিয়েছেন আন্তঃশিক্ষা বোর্ডের সমন্বয়ক ও ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক তপন কুমার সরকার।

প্রকাশিত রুটিনে দেখা গেছে, এবার বিকেলে কোনো পরীক্ষা আয়োজন করা হবে না। এমসিকিউ পরীক্ষার সময় ২০ মিনিট এবং রচনামূলক পরীক্ষার সময় ১ ঘণ্টা ৪০ মিনিট।

১৫ সেপ্টেম্বর বাংলা (আবশ্যিক) প্রথমপত্র, সহজ বাংলা প্রথমপত্র, ১৭ সেপ্টেম্বর বাংলা (আব্যশিক) দ্বিতীয়পত্র, সহজ বাংলা দ্বিতীয়পত্র, ১৯ সেপ্টেম্বর ইংরেজি (আবশ্যিক) প্রথমপত্র, পরদিন ২০ সেপ্টেম্বর ইংরেজি (আবশ্যিক) দ্বিতীয়পত্র, ২২ সেপ্টেম্বর গণিত, ২৪ সেপ্টেম্বর পদার্থ বিজ্ঞান (তত্ত্বীয়), বাংলাদেশের ইতিহাস ও বিশ্বসভ্যতা, ফিন্যান্স ও ব্যাংকিং, পরদিন গার্হস্থ্য বিজ্ঞান (তত্ত্বীয়)।

কৃষি শিক্ষা, সংগীত, আরবি, সংস্কৃত, পালি, শারীরিক শিক্ষা ও ক্রীড়া, চারু ও কারুকলা (তত্ত্বীয়), ২৬ সেপ্টেম্বর রসায়ন (তত্ত্বীয়), পৌরনীতি ও নাগরিকতা ও ব্যবসায় উদ্যোগ, পরদিন ২৭ সেপ্টেম্বর ভূগোল ও পরিবেশ, ২৮ সেপ্টেম্বর জীববিজ্ঞান (তত্ত্বীয়) ও অর্থনীতি, ২৯ সেপ্টেম্বর হিসাববিজ্ঞান এবং ১ অক্টোবর উচ্চতর গণিত (তত্ত্বীয়) পরীক্ষার মাধ্যমে এসএসসি পরীক্ষা শেষ করা হবে।

আসন্ন এসএসসি ও সমমান পরীক্ষা সুষ্ঠু, নকলমুক্ত ও ইতিবাচক পরিবেশে সম্পন্নের লক্ষ্যে গঠিত জাতীয় মনিটরিং ও আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভা শেষে গত সোমবার (৫ সেপ্টেম্বর) শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছিলেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে শান্তিপূর্ণ ও উৎসবমুখর পরিবেশে পরীক্ষা আয়োজনের প্রস্তুতি নিয়েছি। প্রশ্নফাঁস ও গুজব ঠেকাতে গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ানো হবে। পরীক্ষা কেন্দ্রে কেউ মোবাইল ব্যবহার করতে পারবে না। শুধু কেন্দ্র সচিব বাটন মোবাইল ফোন ব্যবহার করতে পারবেন। কেন্দ্রের ২০০ গজে বহিরাগত কেউ প্রবেশ করতে পারবে না। প্রতিটি কেন্দ্রে স্বাস্থ্যবিধি মেনে পরীক্ষা আয়োজন করতে হবে। পরীক্ষা শুরুর ২৫ মিনিট আগে প্রশ্নের সেট কোড ঘোষণা করা হবে। সে অনুযায়ী দায়িত্বপ্রাপ্ত ম্যাজিস্ট্রেট সরকারি কর্মকর্তার উপস্থিতিতে কেন্দ্র সচিব ও পলিশ কর্মকর্তার স্বাক্ষরে প্রশ্নপত্রের প্যাকেট খোলা হবে।

মন্ত্রী বলেছিলেন, কোনো প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক বা প্রধান পাবলিক পরীক্ষায় বেআইনি কাজ করলে ওই প্রতিষ্ঠান, প্রধান ও শিক্ষকের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। প্রয়োজনে পরীক্ষা কেন্দ্র বাতিল করা হবে। সরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান হলে দোষী শিক্ষক ও কর্মচারীদের চাকরি থেকে সাময়িক বরখাস্ত করে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে তাদের এমপিওভুক্তি বাতিলসহ আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এবার বেলা ১১টায় পরীক্ষা শুরু
অন্যবার সকাল ১০টায় পরীক্ষা শুরু হলেও এবার যানজটের কথা বিবেচনা করে বেলা ১১টায় এ পরীক্ষা শুরু হবে। আগের মতোই শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা শুরুর কমপক্ষে ৩০ মিনিট আগে কেন্দ্রে ঢুকতে হবে। অনিবার্য কারণে কোনো পরীক্ষার্থীকে এরপরও ঢুকতে দিলে হলে তার নাম, রোল নম্বর, দেরির কারণ ইত্যাদি একটি নিবন্ধন খাতায় লিপিবদ্ধ করে ওই দিনই সংশ্লিষ্ট শিক্ষা বোর্ডে পাঠাতে হবে।

২১ দিন কোচিং সেন্টার বন্ধ থাকবে
এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার জন্য প্রতিবছরই কিছুদিনের জন্য কোচিং সেন্টারগুলো বন্ধ রাখা হয়। এবার ১২ সেপ্টেম্বর থেকে আগামী ২ অক্টোবর পর্যন্ত ২১ দিন দেশের সব কোচিং সেন্টার বন্ধ থাকবে।

শনিবার সকালের পরিবর্তে সন্ধ্যায় পরীক্ষা দিবে সেভেন্থ ডে অ্যাডভান্টিস্ট শিক্ষার্থীরা
ধর্মীয় বিধি নিষেধ থাকায় ‘সেভেন্থ ডে অ্যাডভান্টিস্ট’ সম্প্রদায়ের শিক্ষার্থীদের শনিবারের এসএসসি পরীক্ষা সন্ধ্যা ৬টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হবে। এ সম্প্রদায়ের জন্য বিশেষ শর্ত আরোপ করেছে শিক্ষা বোর্ডগুলো।

সম্প্রতি এক বিজ্ঞপ্তিতে ঢাকা বোর্ড জানিয়েছে, বিশেষ শর্ত হিসেবে এই সম্প্রদায়ের পরীক্ষার্থীদের শনিবার সকাল ১০টার আগে পরীক্ষা কেন্দ্রে উপস্থিত হয়ে নির্দিষ্ট কক্ষে অবস্থান করতে বলা হয়েছে। বোর্ড জানিয়েছে, এ সময় প্রবেশপত্রে উল্লেখিত দ্রব্যের বাইরে কিছু সঙ্গে রাখতে পারবেন না পরীক্ষার্থীরা। এ সময় কেন্দ্রের নির্দিষ্ট কক্ষের বাইরে কারও সঙ্গে পরীক্ষার্থীরা যোগাযোগ করতে পারবেন না।

গত বছরের থেকে এবার পরীক্ষার্থী কমেছে ২ লাখ ২১ হাজার
গত বছরের তুলনায় এবার এসএসসি ও সমমানে পরীক্ষার্থী কমেছে ২ লাখ ২১ হাজার ৩৮৬ জন। এর আগে ২০২১ সালে পরীক্ষায় বসেছিল ২২ লাখ ৪৩ হাজার ২৫৪ জন শিক্ষার্থী। করোনায় বাল্যবিয়ের কারণে এবার পরীক্ষার্থী কিছুটা কমতে পারে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

পরীক্ষার্থী কমার কারণ হিসেবে ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান তপন কুমার সরকার বলেন, প্রতিবছরই নিয়মিত ও অনিয়মিত মিলিয়ে মোট পরীক্ষার্থীর সংখ্যা নির্ধারণ করা হয়। কিন্তু করোনার কারণে গত বছর মাত্র তিন বিষয়ে পরীক্ষা হয়েছিল। তখন ৯৩ শতাংশের বেশি পরীক্ষার্থী পাস করেছিল। ফলে এ বছর অনিয়মিত পরীক্ষার্থী একেবারেই কম। আবার প্রতিবছরই কিছুসংখ্যক শিক্ষার্থী নিবন্ধন করেও পরীক্ষা দেয় না।

কোন বোর্ডে কত পরীক্ষার্থী
আসন্ন এসএসসি ও সমমান পরীক্ষায় বসবে সারাদেশের ২৯ হাজার ৫৯১টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ২০ লাখ ২১ হাজার ৮৬৮ জন শিক্ষার্থী। গত বছর তুলনায় এবার ৫৫৬টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী পরীক্ষায় বসবে। তাদের মধ্যে ছাত্র ১০ লাখ ৯ হাজার ৫১১ জন আর ছাত্রী ১০ লাখ ১২ হাজার ৩৫৭ জন। এর মধ্যে ৯টি সাধারণ শিক্ষাবোর্ড থেকে ১৭ হাজার ৬৮০টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ১৫ লাখ ৯৯ হাজার ৭১১ জন শিক্ষার্থী এসএসসি পরীক্ষা দেবে।

দাখিলে অংশগ্রহণ করবে ৯ হাজার ৯৩টি প্রতিষ্ঠানের ২ লাখ ৬৮ হাজার ৪৯৫ জন শিক্ষার্থী।

এসএসসি ভোকেশনালে পরীক্ষায় বসবে ৮২৮টি প্রতিষ্ঠানের ১ লাখ ৫৩ হাজার ৬৬২ জন শিক্ষার্থী। এ বছর মোট পরীক্ষা কেন্দ্রের সংখ্যা ৩ হাজার ৭৯০টি। যা গতবারের তুলনায় ১১১টি বেশি।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের তথ্যমতেÍ এবছর দেশের ৯টি সাধারণ শিক্ষা বোর্ডের মধ্যে ঢাকা বোর্ড থেকে পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করবে ৩ লাখ ৯৪ হাজার ৯৯৮ জন শিক্ষার্থী, রাজশাহী বোর্ড থেকে ১ লাখ ৯৬ হাজার ৬০০ জন শিক্ষার্থী, কুমিল্লা বোর্ড থেকে ১ লাখ ৮৮ হাজার ৭১৪ জন শিক্ষার্থী, যশোর বোর্ড থেকে ১ লাখ ৭০ হাজার ৩৭৭ জন শিক্ষার্থী, চট্টগ্রাম বোর্ড থেকে ১ লাখ ৪৯ হাজার ৭১০ জন শিক্ষার্থী, বরিশাল বোর্ড থেকে ৯৫ হাজার ৯৭৬ জন শিক্ষার্থী, সিলেট বোর্ড থেকে ১ লাখ ১৬ হাজার ৪২৭ জন শিক্ষার্থী, দিনাজপুর বোর্ড থেকে ১ লাখ ৭৩ হাজার ৯৬১ জন শিক্ষার্থী আর ময়মনসিংহ বোর্ড থেকে ১ লাখ ১২ হাজার ৯৪৮ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করবে।

এই ৯টি সাধারণ শিক্ষাবোর্ডের ১৫ লাখ ৯৯ হাজার ৭১১ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে বিজ্ঞান বিভাগের ৫ লাখ ৮ হাজার ২৩৬ জন, মানবিক বিভাগের ৭ লাখ ৯০ হাজার ৯১ জন আর ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগের ৩ লাখ ১ হাজার ৩৮৪ জন।

বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, গত বছররের তুলনায় এবছর বিজ্ঞান বিভাগে পরীক্ষার্থী বৃদ্ধি পেয়েছে ১ হাজার ৪০৫ জন। গত বছর এই বিভাগে পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ছিল ৫ লাখ ৬ হাজার ৮৩১ জন।

এছাড়াও বিদেশের ৮টি কেন্দ্র থেকে পরীক্ষায় বসবে ৩৬৭ জন শিক্ষার্থী। এদের মধ্যে জেদ্দা থেকে ৭০ জন, রিয়াদ থেকে ৪৮ জন, ত্রিপলী থেকে ৪ জন, দোহা থেকে ৬৮ জন, আবুধাবী থেকে ৫৯ জন, দুবাই থেকে ৩১ জন, বাহরাইন থেকে ৫৩ জন, ওমানের সাহাম থেকে ৩৪ জন।

এসএসসি পরীক্ষার চলাকালে রাজনৈতিক কর্মসূচি না দেওয়ার আহ্বান
এসএসসি পরীক্ষা চলাকালীন কোনো ধরনের রাজনৈতিক কর্মসূচি না দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি। তিনি বলেছেন, পরীক্ষা চলাকালে রাজনৈতিক কর্মসূচি দিলে শিক্ষার্থীর জন্য ক্ষতিকর হতে পারে।

এসএসসি পরীক্ষা নিয়ে জাতীয় মনিটরিং ও আইনশৃঙ্খলা সংক্রান্ত কমিটির ওই সভা শেষে সংবাদ সম্মেলনে মন্ত্রী বলেন, আমরা রাজনীতি করি আমাদের সন্তানদের জন্য। যে কাজ তাদের কল্যাণ হবে না, সেটি আমরা করতে পারি না। এসএসসি পরীক্ষার সময়ে রাজনৈতিক কর্মসূচি পালন করলে সেটি পরীক্ষার্থীদের জন্য ব্যাঘাত ঘটবে। সেটি থেকে সকল রাজনৈতিক ব্যক্তিদের বিরত থাকতে হবে। আমাদের শিক্ষার্থীরা আগামী দিনের ভবিষ্যৎ। তাদের মঙ্গলের জন্য সকল রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড থেকে সকল দলকে বিরত থাকতে আহ্বান জানান তিনি। এ সময় শিক্ষার্থীদের চাইতে রাজনীতি বড় নয় বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

উল্লেখ্য, করোনায় পেছানোর পরও এবার এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা ১৯ জুন থেকে শুরু হওয়ার কথা ছিল। তবে সিলেট ও সুনামগঞ্জসহ কয়েকটি অঞ্চলে ভয়াবহ বন্যা শুরু হওয়ায় ১৭ জুন পরীক্ষা স্থগিতের ঘোষণা আসে।