ঢাকা ১০:৫৮ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২২, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

গোপনাঙ্গের যত্নে করণীয়

flower shop led by young woman smiling

শরীরের গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ হচ্ছে গোপনাঙ্গ।গোপনাঙ্গ খুবই স্পর্শকাতর জায়গা আর সেখানে সাবানের মতো ক্ষার ব্যবহার করা একদমই ঠিক নয়।

গোসলের সময় প্রতিদিন ইন্টিমেট ওয়াশ ব্যবহার করুন। স্বস্তি পাবেন। এছাড়াও সহবাসের আগে ও পরে অবশ্যই ইন্টিমেট ওয়াশ ব্যবহার করবেন। সেই সঙ্গে সংক্রমণ এড়াতে ব্যাগে রাখবেন টয়লেট স্প্রে।

অনেকেই বাজার চলতি বিভিন্ন প্রসাধনীর উপর ভরসা করেন। সেক্ষেত্রে প্রাথমিকভাবে পরিষ্কার থাকলেও গোপনাঙ্গের মতো সংবেদনশীল স্থানে রাসায়নিক উপাদান মিশ্রিত প্রসাধনী ব্যবহার না করাই ভালো। ঐ স্থানের ত্বকে র‍্যাশ বা চুলকানির মতো বিভিন্ন সমস্যা দেখা দিতে পারে। ভ্যাজাইনার মাধ্যমেই ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া প্রবেশ করে নারীর শরীরে। এছাড়াও অনেকের যোনিপথ খুব শুষ্ক থাকে। কারণ ভ্যাজাইনা অপরিষ্কার থাকলে কিংবা সাবান ব্যবহার করলে তার অম্লত্ব-ক্ষারত্বের ব্যালেন্স (pH level) নষ্ট হয়। যৌনাঙ্গ নিয়মিত পরিষ্কার রাখা খুবই জরুরি। যৌনস্বাস্থ্য বিধি মেনে না চললে দেখা দেয় নানা সমস্যা। এর মধ্যে অন্যতম হল ইউরিনারি ট্র্যাক্ট ইনফেকশন। আজ তাই নারীদের জন্য রইল কিছু টিপস।

গোপনাঙ্গ যেন শুকনো থাকে
গোপনাঙ্গ ভেজা থাকলে সেখান থেকে কিন্তু নানা রকম সমস্যা হয়। নানা রকম ছত্রাক আক্রমণের সুযোগ পেয়ে যায়। এছাড়াও ঐসব অংশ ঢাকা থাকার জন্য ঘাম বেশি হয়। তাই এই সব জায়গা নিয়মিত ধুয়ে শুকিয়ে নেবেন।

ডায়েট মেনে চলতে হবে
গোপনাঙ্গ ঠিক রাখতে পি এইচ ব্যালেন্স খুব জরুরি। আর এর জন্য কিন্তু ডায়েট মেনে চলতেই হবে। যদি অ্যাসিড কিংবা হজমের সমস্যা থাকে তাহলে ভ্যাজাইনাল ইনফেকশন বেশি হয়। সেই সঙ্গে দুর্গন্ধও বের হয়। আর তাই এই সব মশলাদার খাবার একেবারেই এড়িয়ে চলুন। ফল, টকদই, শাকসবজি বেশি করে খান। শরীরের রোগ-প্রতিরোধ ক্ষমতা ঠিকমতো গড়ে তোলা জরুরি।

বেশি করে পানি খান
শরীর যতো বেশি আর্দ্র রাখতে পারবেন ততো ভালো। এতে ভ্যাজাইনা সুস্থ থাকে আর বেশি করে পানি খেলে ইউরিন ইনফেকশনও এড়িয়ে চলা যায়।

খুব টাইট পোশাক নয়
অনেকেই খুব টাইট পোশাক পরেন। বিশেষত স্কিন ফিটিংস জিন্স। এতে শরীর অনেক বেশি চাপা থাকে। স্বচ্ছন্দ্যে ঘোরা ফেরা করা যায় না। ঘাম বেশি হয়। আর এই ঘাম থেকেই তৈরি হয় ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া।

ভ্যাজাইনাল ইনফেকশন থেকে দূরে থাকুন
যৌনরোগ নিয়ে কোনো লজ্জা নয়। কারণ এখন আপনি এড়িয়ে গেলে পরবর্তীতে পড়তে পারেন গুরুতর সমস্যায়। যদি ভ্যাজাইনা থেকে দুর্গন্ধ বের হয় কিংবা ভ্যাজাইনাল ডিসচার্জের রং বদলে যায় তাহলে অবশ্যই স্ত্রী রোগ বিশেষজ্ঞের কাছে যান। এছাড়াও ঐ অংশ নিয়মিত পরিষ্কার রাখতে হবে। ধুতে হবে। এটি কিন্তু আপনার যৌনাঙ্গ সুস্থ রাখবে। কিছু বেসিক জিনিস সব নারীর মেনে চলা উচিত। তবেই শরীর থাকবে সুস্থ।

Tag :
জনপ্রিয়

তিতাসে বর্তমান ও সাবেক চেয়ারম্যান সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে নিহত-১, আহত-১৫

গোপনাঙ্গের যত্নে করণীয়

প্রকাশের সময় : ১০:৫৬:১১ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৮ সেপ্টেম্বর ২০২২

শরীরের গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ হচ্ছে গোপনাঙ্গ।গোপনাঙ্গ খুবই স্পর্শকাতর জায়গা আর সেখানে সাবানের মতো ক্ষার ব্যবহার করা একদমই ঠিক নয়।

গোসলের সময় প্রতিদিন ইন্টিমেট ওয়াশ ব্যবহার করুন। স্বস্তি পাবেন। এছাড়াও সহবাসের আগে ও পরে অবশ্যই ইন্টিমেট ওয়াশ ব্যবহার করবেন। সেই সঙ্গে সংক্রমণ এড়াতে ব্যাগে রাখবেন টয়লেট স্প্রে।

অনেকেই বাজার চলতি বিভিন্ন প্রসাধনীর উপর ভরসা করেন। সেক্ষেত্রে প্রাথমিকভাবে পরিষ্কার থাকলেও গোপনাঙ্গের মতো সংবেদনশীল স্থানে রাসায়নিক উপাদান মিশ্রিত প্রসাধনী ব্যবহার না করাই ভালো। ঐ স্থানের ত্বকে র‍্যাশ বা চুলকানির মতো বিভিন্ন সমস্যা দেখা দিতে পারে। ভ্যাজাইনার মাধ্যমেই ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া প্রবেশ করে নারীর শরীরে। এছাড়াও অনেকের যোনিপথ খুব শুষ্ক থাকে। কারণ ভ্যাজাইনা অপরিষ্কার থাকলে কিংবা সাবান ব্যবহার করলে তার অম্লত্ব-ক্ষারত্বের ব্যালেন্স (pH level) নষ্ট হয়। যৌনাঙ্গ নিয়মিত পরিষ্কার রাখা খুবই জরুরি। যৌনস্বাস্থ্য বিধি মেনে না চললে দেখা দেয় নানা সমস্যা। এর মধ্যে অন্যতম হল ইউরিনারি ট্র্যাক্ট ইনফেকশন। আজ তাই নারীদের জন্য রইল কিছু টিপস।

গোপনাঙ্গ যেন শুকনো থাকে
গোপনাঙ্গ ভেজা থাকলে সেখান থেকে কিন্তু নানা রকম সমস্যা হয়। নানা রকম ছত্রাক আক্রমণের সুযোগ পেয়ে যায়। এছাড়াও ঐসব অংশ ঢাকা থাকার জন্য ঘাম বেশি হয়। তাই এই সব জায়গা নিয়মিত ধুয়ে শুকিয়ে নেবেন।

ডায়েট মেনে চলতে হবে
গোপনাঙ্গ ঠিক রাখতে পি এইচ ব্যালেন্স খুব জরুরি। আর এর জন্য কিন্তু ডায়েট মেনে চলতেই হবে। যদি অ্যাসিড কিংবা হজমের সমস্যা থাকে তাহলে ভ্যাজাইনাল ইনফেকশন বেশি হয়। সেই সঙ্গে দুর্গন্ধও বের হয়। আর তাই এই সব মশলাদার খাবার একেবারেই এড়িয়ে চলুন। ফল, টকদই, শাকসবজি বেশি করে খান। শরীরের রোগ-প্রতিরোধ ক্ষমতা ঠিকমতো গড়ে তোলা জরুরি।

বেশি করে পানি খান
শরীর যতো বেশি আর্দ্র রাখতে পারবেন ততো ভালো। এতে ভ্যাজাইনা সুস্থ থাকে আর বেশি করে পানি খেলে ইউরিন ইনফেকশনও এড়িয়ে চলা যায়।

খুব টাইট পোশাক নয়
অনেকেই খুব টাইট পোশাক পরেন। বিশেষত স্কিন ফিটিংস জিন্স। এতে শরীর অনেক বেশি চাপা থাকে। স্বচ্ছন্দ্যে ঘোরা ফেরা করা যায় না। ঘাম বেশি হয়। আর এই ঘাম থেকেই তৈরি হয় ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া।

ভ্যাজাইনাল ইনফেকশন থেকে দূরে থাকুন
যৌনরোগ নিয়ে কোনো লজ্জা নয়। কারণ এখন আপনি এড়িয়ে গেলে পরবর্তীতে পড়তে পারেন গুরুতর সমস্যায়। যদি ভ্যাজাইনা থেকে দুর্গন্ধ বের হয় কিংবা ভ্যাজাইনাল ডিসচার্জের রং বদলে যায় তাহলে অবশ্যই স্ত্রী রোগ বিশেষজ্ঞের কাছে যান। এছাড়াও ঐ অংশ নিয়মিত পরিষ্কার রাখতে হবে। ধুতে হবে। এটি কিন্তু আপনার যৌনাঙ্গ সুস্থ রাখবে। কিছু বেসিক জিনিস সব নারীর মেনে চলা উচিত। তবেই শরীর থাকবে সুস্থ।