রেজি. নং- ১৯৬, ডিএ নং- ৬৪৩৪

শনিবার ০৮ আগস্ট ২০২০, ২৪শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

০৩:৫০ অপরাহ্ণ

২০ নিত্যপণ্যের দাম অসহনীয়

প্রকাশিত : ০২:৩৩ AM, ২৮ নভেম্বর ২০১৯ Thursday ১৫২ বার পঠিত

আলোকিত সকাল রিপোর্ট :
alokitosakal

চাল, ডাল, আটা, তেল, ডিম, পেঁয়াজ, লবণ, শীতকালীন সবজিসহ ২০টি নিত্যপণ্যের মূল্য অসহনীয় উল্লেখ করে দাম নিয়ন্ত্রণে রাখতে সরকারকে তাগিদ দিয়েছে কনজ্যুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব)। বুধবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ তাগিদ দেয়ার পাশাপাশি ভোক্তা স্বার্থ ও অধিকার রক্ষায় স্বতন্ত্র মন্ত্রণালয় অথবা বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে পৃথক বিভাগ প্রতিষ্ঠার দাবি করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন ক্যাব সভাপতি গোলাম রহমান। এ সময় সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট হুমায়ূন কবির ভূঁইয়া, সহ-সভাপতি এসএম নাজের হোসাইন, মুন্সীগঞ্জ জেলা সভাপতি জাহাঙ্গীর সরকার প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

গোলাম রহমান বলেন, বেশকিছু নিত্যপণ্যের মূল্য ঊর্ধ্বমুখী। দাম বৃদ্ধি শুরু সেপ্টেম্বরে পেঁয়াজ দিয়ে। এরপর একে একে চাল, ডাল, ময়দা, আটা, সয়াবিন তেল, ডিমসহ নানা পণ্যের মূল্য বৃদ্ধি পাচ্ছে। শীতকালীন সবজির দাম এখনও সাধারণ মানুষের ক্রয় ক্ষমতার বাইরে। কয়েকদিন আগে লবণের দাম হঠাৎ করে অস্বাভাবিকভাবে বাড়ে যায়।

যদিও লবণের দাম এখন অনেকটাই নিয়ন্ত্রিত। কিন্তু পেঁয়াজের সংকট পুঁজি করে অতি মুনাফা লোভী ব্যবসায়ী গোষ্ঠী আমদানিকারক, আড়তদার, মজুদদার এবং খুচরা ব্যবসায়ী সিন্ডিকেট অস্বাভাবিক মূল্য বৃদ্ধি করে ভোক্তাদের পকেট থেকে শত কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। সরকারি উদ্যোগের পরও পেঁয়াজের সরবরাহ পরিস্থিতির তেমন উন্নতি হয়নি। মূল্য এখনও ক্রেতাদের ক্রয় ক্ষমতার বাইরে। অক্টোবরে সরকার সরাসরি আমদানির মাধ্যমে বাজারে পেঁয়াজ সরবরাহ বাড়ালে মূল্য পরিস্থিতির অতটা অবনতি হতো না।

ক্যাব সভাপতি বলেন, ‘গত ১ মাস ধরে চালের মূল্য ক্রমান্বয়ে বাড়ছে। ঢাকায় কেজি প্রতি ২ থেকে ৮ টাকার অধিক মূল্যে বিক্রি হচ্ছে চাল। সয়াবিনের দাম ২ থেকে ৪ টাকা বেড়েছে। গত সপ্তাহের তুলনায় ডিমের দাম ডজনে বেড়েছে ২০ টাকা পর্যন্ত। ডাল, আটা, ময়দা ইত্যাদি পণ্যের দামও বাড়ছে।’ এসব পণ্যের দাম নিয়ন্ত্রণে ব্যবস্থা গ্রহণের তাগিদ দিয়ে তিনি বলেন, ‘প্যাকেটজাত ও বস্তাজাত পণ্যের সর্বোচ্চ বিক্রয় মূল্য নির্ধারণ করে তা গায়ে লেখা বাধ্যতামূলক করা হলে ভোক্তারা উপকৃত হবে।’

তিনি বলেন, ‘দেখেশুনে মনে হয় বিভিন্ন ব্যবসায়ী সিন্ডিকেট ও স্বার্থান্বেষী মহল পণ্য মূল্য অস্থিতিশীল করে লাভবান হওয়ার পাশাপাশি সরকারকে বিব্রতকর পরিস্থিতিতে ফেলার চেষ্টা করছে। আন্তর্জাতিক বাজারে পণ্যের মূল্য স্থিতিশীল। তাই দেশের বাজারে মূল্য স্থিতিশীল রাখার ক্ষেত্রে সরকারের নজরদারি বৃদ্ধির কোনো বিকল্প নেই। এক্ষেত্রে প্রতিযোগিতা কমিশনের কার্যক্রমও দৃশ্যমান হওয়া দরকার।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি Alokito Sakal'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyalokitosakal@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

Alokito Sakal'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।




© ২০২০ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। Alokito Sakal | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, Design and Developed by- DONET IT