রেজি. নং- ১৯৬, ডিএ নং- ৬৪৩৪

শনিবার ২৮ নভেম্বর ২০২০, ১৪ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

১০:৩৮ পূর্বাহ্ণ

শিরোনাম
◈ ধামইরহাটে সোনার বাংলা সংগীত নিকেতনের বার্ষিক বনভোজন ◈ ধামইরহাটে ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন ◈ পত্নীতলায় করোনা সচেতনতায় নারীদের পাশে তথ্য আপা ◈ ফুলবাড়ীয়া ২ টাকার খাবার ও মাস্ক বিতরণ ◈ কাতারে ফেনী জেলা জাতীয়তাবাদী ফোরামের দোয়া মাহফিল ◈ হাসিবুর রহমান স্বপন এমপির রোগ মুক্তি কামনায় মিলাদ ও দোয়া অনুষ্ঠিত ◈ দৈনিক আলোকিত সকালের ষ্টাফ রিপোর্টার আশাহীদ আলী আশার ৪৩তম জন্মদিন পালিত ◈ সাবেক সেনা কর্মকর্তা ও ফুটবলার রফিকুল ইসলাম স্মরণে দোয়া ও মিলাদ আজ ◈ লক্ষ্মীপুর জেলার শ্রেষ্ঠ ও‌সির পুরস্কার পে‌লেন ও‌সি আবদুল জ‌লিল ◈ কাতার সেনাবাহিনীর বিপক্ষে বাংলাদেশের পরাজয়
এফডিআই বেড়েছে ৫১%

২০১৮-১৯ অর্থবছর

প্রকাশিত : ০৭:০৪ AM, ৩ নভেম্বর ২০১৯ Sunday ১২৪ বার পঠিত

আলোকিত সকাল রিপোর্ট :
alokitosakal

বিদেশি বিনিয়োগকারীদের আগ্রহ কিছুটা হলেও বেড়েছে। অভ্যন্তরীণ বড় বাজার সরাসরি বিদেশি বিনিয়োগ (এফডিআই) টানছে। এক বছরের ব্যবধানে মোট ও নিট উভয় হিসাবেই এফডিআই বেড়েছে ৫০ শতাংশের বেশি। ২০১৮-১৯ অর্থবছরে দেশে রেকর্ড ৪৯৪ কোটি ৫৮ লাখ ডলারের বিনিয়োগ এসেছে। নিট হিসাবে এর পরিমাণ ৩৮৯ কোটি ডলার। এই পরিমাণ এফডিআই এর আগে কোনো অর্থবছরে আসেনি। এফডিআই নিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ প্রতিবেদনে এ তথ্য রয়েছে।

অর্থনীতিবিদ ও ব্যবসায়ীরা বলেছেন, অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপন, সহজে ব্যবসা করার (ডুয়িং বিজনেস) সূচকে উন্নয়নের উদ্যোগ, সরকারের ধারাবাহিকতা ও স্থিতিশীল রাজনৈতিক পরিবেশের কারণে বিনিয়োগকারীদের আগ্রহ বেড়েছে।

বিশ্বব্যাংকের ঢাকা অফিসের উপদেষ্টা জাহিদ হোসেন সমকালকে বলেন, গত অর্থবছরে কয়েকটি কোম্পানির সুনির্দিষ্ট ক্ষেত্রে বড় বিনিয়োগ এসেছে। সব ক্ষেত্রে বড় মাপের এফডিআই আকর্ষণে যেসব উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে, সেগুলো এখনও বাস্তবায়ন হয়নি। এজন্য বলা ঠিক হবে না যে, পরিবেশগত উন্নয়নের ফলে এফডিআই বেড়েছে। তবে অর্থনৈতিক অঞ্চলগুলো চালু হলে এবং ইজ অব ডুয়িং বিজনেস সূচকের অগ্রগতি হলে এফডিআই আরও বাড়বে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২০১৮-১৯ অর্থবছরে দেশে মোট এফডিআই এসেছে ৪৯৪ কোটি ৫৮ লাখ ডলার। এ সময়ে দেশ থেকে বিদেশি বিনিয়োগ ফেরত গেছে ১০৫ কোটি ৬৮ লাখ ডলার, যা মোট বিনিয়োগের ২১ দশমিক ৩৭ শতাংশ। বিদেশি কোম্পানিগুলো মূলধন প্রত্যাবাসন, বিনিয়োগ তুলে নেওয়া, মূল কোম্পানি ও আন্তঃকোম্পানি ঋণ দেওয়া বাবদ এসব অর্থ ফেরত নিয়ে গেছেন। ফলে নিট বা প্রকৃত এফডিআই দাঁড়িয়েছে ৩৮৮ কোটি ৮৯ লাখ ৯০ হাজার ডলার, যা আগের অর্থবছরের চেয়ে ৫০ দশমিক ৭১ শতাংশ বেশি। ২০১৭-১৮ অর্থবছরে মোট এফডিআই এসেছিল ৩২৯ কোটি ডলার। ওই অর্থবছরে ফেরত গেছে ৭০ কোটি ৯৬ লাখ ডলার, যা মোট এফডিআইয়ের ২১ দশমিক ৫৭ শতাংশ। ফলে নিট এফডিআই ছিল ২৫৮ কোটি ডলার।

গত অর্থবছরে নিট বিনিয়োগের মধ্যে ১১৯ কোটি ৫২ লাখ ডলার এসেছে মূলধনি পুঁজি হিসেবে। মুনাফা থেকে ফের বিনিয়োগ হয়েছে ১৩৬ কোটি ৩৫ লাখ ডলার। আর নিজেদের অন্য কোম্পানি থেকে ঋণ হিসেবে এসেছে ১৩০ কোটি ডলার। বিদ্যুৎ খাতে বিনিয়োগ হয়েছে ১২১ কোটি ৭৮ লাখ ডলার, যা একক খাত হিসেবে সবচেয়ে বেশি। এ ছাড়া খাদ্য খাতে ৮৩ কোটি ডলার, ব্যাংক খাতে ৩০ কোটি ডলার, বস্ত্র খাতে ২৬ কোটি ২৬ লাখ, টেলিযোগাযোগ খাতে ২২ কোটি ২৭ লাখ এবং অন্যান্য খাতে ১০৬ কোটি ডলারের বিনিয়োগ এসেছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত অর্থবছরে সবচেয়ে বেশি বিনিয়োগ এসেছে চীন থেকে। দেশটি থেকে বিদ্যুৎসহ বিভিন্ন খাতে ১১৬ কোটি ডলারের বিনিয়োগ এসেছে। নেদারল্যান্ডসের উদ্যোক্তারা নিয়ে এসেছেন ৮০ কোটি ডলারের বিনিয়োগ, যার ৭৩ কোটি ডলার বিনিয়োগ হয়েছে খাদ্য খাতে। আর যুক্তরাজ্যের উদ্যোক্তারা বিনিয়োগ করেছেন ৩৬ কোটি ডলারের। সিঙ্গাপুর থেকে বিনিয়োগ এসেছে ২৫ কোটি ডলার, যুক্তরাষ্ট্র থেকে ১৯ কোটি, হংকং থেকে ১৩ কোটি, নরওয়ে থেকে ১৩ কোটি, ভারত থেকে ১১ কোটি, শ্রীলংকা থেকে ৯ কোটি ও জাপান থেকে ৭ কোটি ডলারের বিনিয়োগ এসেছে। গত জুন শেষে দেশে বিদেশি বিনিয়োগের স্থিতি দাঁড়িয়েছে এক হাজার ৮৬৮ কোটি ডলার।

এ বিষয়ে অ্যামচেমের সাবেক সভাপতি আফতাব উল ইসলাম সমকালকে বলেন, বাংলাদেশ বর্তমানে ৭ থেকে ৮ শতাংশের জিডিপি প্রবৃদ্ধির দেশগুলোর মধ্যে অন্যতম। যে কারণে বিশ্বে বাংলাদেশের ইতিবাচক ভাবমূর্তি তৈরি হয়েছে। এ ছাড়া বাংলাদেশে এক দশক ধরে রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা রয়েছে। নতুন মধ্যবিত্ত শ্রেণি তৈরি হচ্ছে। এসব কারণে বিদেশি বিনিয়োগকারীদের কাছে বাংলাদেশে এখন আকর্ষণীয় জায়গা। তবে সুশাসনের অগ্রগতি হলে এবং বড় বিদেশি বিনিয়োগকারীদের সঙ্গে রাজস্ব বোর্ডের কর-সংক্রান্ত জটিলতা নিরসন হলে এফডিআই আরও বাড়বে।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি Alokito Sakal'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyalokitosakal@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

Alokito Sakal'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।




© ২০২০ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। Alokito Sakal | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, Design and Developed by- DONET IT