রেজি. নং- ১৯৬, ডিএ নং- ৬৪৩৪

রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৪ঠা আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

১২:৫১ পূর্বাহ্ণ

শিরোনাম
◈ কবিতা : ইতি – মোঃ সাইফুল ইসলাম  ◈ রায়পু‌রে চোরাই মোটরসাই‌কেল উদ্ধার, মূল হোতার খোঁ‌জে পু‌লিশ ◈ হাঁটাবান্ধব পরিবেশ ও আধুনিক গণপরিবহন ব্যবস্থা নিশ্চিত করার দাবি ◈ ভূঞাপুরে শতভাগ বিদ্যুতায়নের এলাকায় লাইন জোড়াতালি-জরাজীর্ণ ◈ উলিপুরে বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিটের আগুনে পুড়ে গরুর মৃত্যু ◈ কালিহাতীতে জয়কালি মন্দিরের কিচেন ব্লক ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন ◈ বাংলাদেশের জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির উদ্যেগে সরিষাবাড়ী উপজেলা যুবদলের প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত ◈ গোপালপুরে ইজিবাইকের চাকায় পিষ্ট হয়ে শিশুর মৃত্যু ◈ রামগঞ্জে মাদ্রাসা ছা‌ত্রের পা‌য়ে শিকল বে‌ধে নির্যাত‌নের অ‌ভি‌যোগ মাদ্রাসা শিক্ষ‌কের বিরু‌দ্ধে ◈ ঘাটাইলে কাশতলা জামে মসজিদ ও রাস্তা পুনঃ র্নির্মাণ কাজের উদ্বোধন

১১৬ বছর ধরে আলো ছড়াচ্ছে স্কুলটি

প্রকাশিত : ০২:১৯ AM, ২৮ নভেম্বর ২০১৯ বৃহস্পতিবার ১৮৫ বার পঠিত

আলোকিত সকাল রিপোর্ট :
alokitosakal

দীর্ঘ ১১৬ বছর ধরে সুনামের সঙ্গে শিক্ষার আলো ছড়িয়ে যাচ্ছে ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রায়পুরা আরকেআরএম উচ্চ বিদ্যালয়। এ বিদ্যালয়ের অনেক শিক্ষার্থী দেশের বিভিন্ন উচ্চপর্যায়ে কর্মরত ছিলেন এবং এখনো আছেন। ১৯০৩ সালে রায়পুরা থানার প্রাণকেন্দ্রে প্রতিষ্ঠিত হয় রায়পুরা আর কে আর এম উচ্চ বিদ্যালয়টি। তৎকালীন সময়ে এ এলাকার দুইজন জমিদার অর্থাৎ তাত্তাকান্দা নিবাসী রাজ কিশোর পাল চৌধুরী এবং হাসিমপুরের রাধা মোহন পাল চৌধুরীর অর্থায়ন এবং তাদের উইল করা জমির ওপর রায়পুরা কড়ের পাড়ে বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। এই দুইজন জমিদারের নামের প্রথম অক্ষর দিয়ে বিদ্যালয়ের নামকরণ করা হয়। রাজ কিশোরের জ.ক এবং রাধা মোহনের জ.গ অর্থাৎ রাজ কিশোর রাধা মোহন (আর কে আর এম) নামে প্রতিষ্ঠানের নামকরণ হয়।

বিদ্যালয়টি তখনকার কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বীকৃতিপ্রাপ্ত ছিল। ১৯৬২ সালে বিদ্যালয়টি কুড়ের পাড় থেকে তাত্তাকান্দা কাঁকন নদীর তীরে স্থানান্তর করা হয়। চর এলাকার শিক্ষার্থীদের নৌপথে যাতায়াতের সুবিধার্থে বর্তমান স্থানে স্থানান্তরিত করা হয়েছিল। প্রতিষ্ঠাকালীন সময়ে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব পালন করেন নলিনী ঘোষ।

রায়পুরা থানায় তৎকালে আর কোনো শিক্ষা প্রতিষ্ঠান না থাকায় বর্তমান বিদ্যালয়ের স্থানে আবাসিক হল ছিল। দূর-দূরান্তের অনেক ছাত্রছাত্রী আবাসিক হলে থেকে লেখাপড়া করতো। বিদ্যালয়টি তার ঐতিহ্য ধরে রেখে বর্তমানের পর্যায়ে এসেছে। এই বিদ্যালয়ের অনেক শিক্ষার্থী দেশের বিভিন্ন উচ্চপর্যায়ে কর্মরত ছিলেন এবং এখনো আছেন।

তাদের মধ্যে স্থপতি শামীম সিকদার, সিলেট শাহ্জালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের প্রধান (সাবেক) প্রফেসর ড. সফিউদ্দিন আহম্মদ, সাবেক আইজি প্রিজন ও স্বরাষ্ট্রসচিব প্রয়াত মাঈনউদ্দিন খোন্দকার, কৃষক সমিতির সাবেক সভাপতি বাম রাজনীতিবিদ মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক প্রয়াত ফজলুল হক খোন্দকার, রায়পুরা কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ প্রয়াত প্রিন্সিপাল আব্দুল হালিম, প্রফেসর মোসলেহউদ্দিন, আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন চিত্রশিল্পী শাহাবউদ্দিন আহম্মদ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা আফজাল হোসাইন, আওয়ামী যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা মো. হারুন অর রশিদ, রায়পুরা পৌরসভার সাবেক মেয়র আব্দুল কুদ্দুছ মিয়া, বর্তমান মেয়র মো. জামাল মোল্লা, উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ইউনূছ আলী ভূইয়া প্রমুখ।

প্রধান শিক্ষক মো. ফজলুল হক ফকির বলেন, শিক্ষার্থীদের মানসম্মত শিক্ষা প্রদানে আমরা নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছি।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি Alokito Sakal'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyalokitosakal@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

Alokito Sakal'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

এই বিভাগের জনপ্রিয়

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। Alokito Sakal | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, Design and Developed by- DONET IT