রেজি. নং- ১৯৬, ডিএ নং- ৬৪৩৪

বুধবার ১৭ আগস্ট ২০২২, ২রা ভাদ্র ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

০৭:১২ অপরাহ্ণ

হাবীবুল্লাহ বাহার ইউনিভার্সিটি কলেজের উদ্যোগে বিজয় র‌্যালি ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত : 08:16 PM, 16 December 2019 Monday 1,096 বার পঠিত

আলোকিত সকাল রিপোর্ট :
alokitosakal

শহিদুল ইসলাম

মহান বিজয় দিবস ২০১৯ উপলক্ষে হাবীবুল্লাহ বাহার ইউনিভার্সিটি কলেজের উদ্যোগে বিজয় র‌্যালি ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয় গত ১৫ ডিসেম্বর। ১৫ ডিসেম্বর সকালে কলেজ কর্তৃপক্ষ ও কলেজ ছাত্রলীগের উদ্যোগে এক বিশাল বিজয় র‌্যালি বের হয়। বিজয় র‌্যালির নেতৃত্ব দেন অত্র কলেজের অধ্যক্ষ ড. আবদুল জব্বার মিয়া ও কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি মাহফুজ আহমেদ সুমন এবং সাধারণ সম্পাদক সৈকত চৌধুরী। বিজয় র‌্যালিতে হাজারখানেক ছাত্র-শিক্ষক-কর্মচারী উপস্থিত ছিলেন। এই র‌্যালি কলেজের আশেপাশের রাজপথ ঘুরে আবার কলেজে এসে শেষ হয়। বর্ণাঢ্য এই র‍্যালি সাধারণ মানুষের নজর কাড়ে। র‌্যালির শুরুতে বক্তব্য রাখেন কলেজ অধ্যক্ষ ড. আবদুল জব্বার মিয়া। তিনি বলেন, বিজয়ের মাসে এই আয়োজন আমরা এবারই প্রথম করলাম, যার উদ্যোক্তা জনপ্রিয় ছাত্রনেতা মাহফুজ আহমেদ সুমন। এই আয়োজনের মাধ্যমে আমরা মুক্তিযুদ্ধের সকল শহীদ ও মুক্তিযোদ্ধাদের আত্মত্যাগকে শ্রদ্ধার সাথে স্মরন করতে চাই। মুক্তিযোদ্ধাদের কারণে আমরা স্বাধীন দেশ পেয়েছি। আমরা স্বাধীনভাবে চলতে পারি এবং বাংলা ভাষায় কথা বলি। আর মুক্তিযোদ্ধাদের এই আত্মত্যাগের কথা স্মরণ করা এবং বর্তমান প্রজন্মকে মুক্তিযোদ্ধাদের ত্যাগ এবং বিজয় দিবসের তাৎপর্য অনুধাবন করাতে আমরা এই আয়োজন করেছি। আমাদের কলেজের ছাত্রলীগের সভাপতি মাহফুজ আহমেদ সুমন ও সাধারণ সম্পাদক সৈকত চৌধুরী অনেক শ্রম দিয়ে এই র‌্যালি করতে সাহায্য – সহযোগিতা করেছে। ধন্যবাদ কলেজ ছাত্রলীগকে।

এরপর বক্তব্য রাখেন কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি মাহফুজ আহমেদ সুমন। তিনি বলেন, বিজয় দিবস আসলেই বুকটা কেমন জানি করে। ভিতরে খুব আবেগ কাজ করে। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর নেতৃত্বে ৩০ লক্ষ শহীদ ও ২ লক্ষ মা-বোনের সম্ভ্রমের বিনিময়ে আমরা একটা স্বাধীন সার্বভৌম দেশ পেয়েছি। এবং দীর্ঘ ৯ মাস যুদ্ধ করার পর আমরা বিজয় ছিনিয়ে এনেছি পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর কাছ থেকে।

ছোটবেলা থেকে বিজয় দিবস আসলে খুব খুশি হতাম। কেন জানি চোখে একটু পানি চলে আসতো যখন বিজয় দিবসের তাৎপর্য অনুধাবন করি। আমরা যদি আজ স্বাধীন না হতাম, আমরা যদি পাকিস্তানিদের দখলে থাকতাম তাহলে কেমন হতো? এসব ভাবনা কাজ করে।

 

আমরা ভাগ্যবান যে আমরা একজন বঙ্গবন্ধু পেয়েছিলাম যিনি আমাদের দেশটা স্বাধীন করতে জীবনের সব সুখ বিলিন করে দিয়েছিলেন। সব শেষে বলতে চাই, এখানে আগত সবাইকে অনেক ধন্যবাদ। আমরা হাবীবুল্লাহ বাহার ইউনিভার্সিটি কলেজকে অনেকদূর এগিয়ে নিতে চাই। কিন্তু আমাদের কলেজ কর্তৃপক্ষ ও আমাদের একার পক্ষে তা সম্ভব নয়। তোমরা আমরা সবাই মিলে এই প্রাণের কলেজকে এগিয়ে নিতে হবে।

এরপর বিজয় র‌্যালি বের হয় কলেজ প্রাঙ্গন থেকে। দুপুরে শুরু হয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। বিজয় দিবস নিয়ে গান, কবিতা, নাচ এর আয়োজন করা হয়। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান শুরুর পর মঞ্চে আসেন কলেজ গভর্নিং বডির চেয়ারম্যান ও স্থানীয় সংসদ সদস্য জনাব রাশেদ খান মেনন এম.পি।

ছাত্রদের উদ্দেশ্যে শুভেচ্ছা বক্তব্যে জনাব রাশেদ খান মেনন এমপি বলেন, ১৯৭১ সালে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর ডাকে সাড়া দিয়ে এদেশের সর্বস্তরের মানুষ মহান মুক্তিযুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়ে ৯ মাসের রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের মাধ্যমে ৩০ লাখ শহীদের রক্তের বিনিময়ে এদেশের স্বাধীনতা ছিনিয়ে আনেন। আজকে তরুন প্রজন্মকে মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস জানতে হবে। আমাদের নেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নের্তৃত্বে ক্ষুধা-দারিদ্র-বৈষম্যহীন উন্নত রাষ্ট্র গড়ে তুলতে হবে। তিনি সুন্দর আয়োজন করার জন্য অধ্যক্ষ মহোদয় ও ছাত্রলীগকে ধন্যবাদ দেন। সাধারণ ছাত্র-ছাত্রীরাও কলেজ কর্তৃপক্ষ এবং কলেজ ছাত্রলীগকে ধন্যবাদ জানিয়েছে এমন অনন্য সুন্দর আয়োজনের জন্য।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি Alokito Sakal'কে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

Alokito Sakal'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

© ২০২২ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। Alokito Sakal | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, Design and Developed by- DONET IT