রেজি. নং- ১৯৬, ডিএ নং- ৬৪৩৪

শুক্রবার ১৪ আগস্ট ২০২০, ৩০শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

০৪:২৪ পূর্বাহ্ণ

শিরোনাম
◈ মধ্যনগরে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করে ভিডিও প্রচার করায় ৫ যুবক গ্রেফতার ◈ চরফ্যাসনে গৃহবধুকে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন, থানায় সমঝোতা ◈ বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা একজন শিক্ষাবান্ধব প্রধানমন্ত্রী ◈ উলিপুরে গুনাইগাছে ১১৫ জন দুস্থ নারীর মাঝে ফুট প্যাকেজ বিতরণ ◈ নীলফামারীতে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে সরকারী বরাদ্দের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ ◈ হাজার বছর নয়-সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙ্গালি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান —পুলিশ সুপার, নওগাঁ ◈ লালমনিরহাটে বার্তা বাজার এর ৭ম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত ◈ রূপগঞ্জে জালিয়াতি করে কোটি টাকার সম্পত্তি আত্মসাতের চেষ্টা ◈ কুড়িগ্রামে বিআরটিসি বাস ও প্রাইভেটকার মুখোমুখি সংঘর্ষে  নিহত ৪ ◈ সিরাজগঞ্জে অটোরিকশা চালককে শ্বাসরোধ করে হত্যা

হাজারো শিশুর ঘাম ও রক্তে ভেজা শৈশবের উপহার ‘ডার্ক চকলেট’

প্রকাশিত : ০৪:২৬ AM, ২৫ নভেম্বর ২০১৯ Monday ৫৫৪ বার পঠিত

আলোকিত সকাল রিপোর্ট :
alokitosakal

চকলেট ছাড়া তো ছোটদের চলেই না! শুধু ছোটরা কেন? বড়রাও এটি খেতে খুব পছন্দ করে। আজকাল যেকোনো উপলক্ষ মানেই চকলেট আদান প্রদান। আবার বিশেষ করে একটি দিনও পালন করা হয় ‘চকলেট দিবস’ হিসেবে। বিশেষত ডার্ক চকলেট স্বাস্থ্য সচেতনদের পছন্দের শীর্ষে। কখনো প্রেমিক তার প্রেয়সীর মান ভাঙায় ডার্ক চকোলেটের বিনিময়ে, কখনো বা ছোট্ট শিশুর মুখে তার বাবা হাঁসি আনে ডার্ক চকোলেট দিয়ে। নামটা তো ডার্ক চকোলেট, কিন্তু এর পেছনের গল্পটা?

হ্যাঁ, গল্পটা নামের চেয়েও অনেক বেশি আঁধারে বেষ্টিত! আপনি জানেন কি এতো ইয়াম্মি চকলেটের গন্ধটাও অনেকের জীবনের জন্য এক অভিশাপ? না, তাদের একদমই ইচ্ছে নেই এই চকোলেটের সংস্পর্শে থাকার। বরং তারা পালাতে চায় ওই তথাকথিত চকলেটি দুনিয়া থেকে! আফ্রিকার ১ দশমিক ৮ মিলিয়ন শিশু পালাতে পারে না তাদের বিভৎস শৈশব থেকে! তাদের শৈশবের বলিদানই হলো ডার্ক চকলেট! আইভরি কোস্ট আর ঘানা। পশ্চিম আফ্রিকার এই দু’টি দেশে পৃথিবীর ৭০ শতাংশ কোকো (ডার্ক চকলেটের মূল উপাদান) চাষ করা হয়।

প্রতিদিনই মালি, বুরকিনা, ফাসো ইত্যাদি প্রতিবেশি দেশ থেকে হাজার হাজার শিশু পাচার করা হয় আইভরি কোস্ট আর ঘানাতে। চকলেট ফার্মে কাজ করানোর জন্য তাদের কিনে আনা হয়। কখনো খাবার বা পড়াশোনার লোভ দেখিয়ে এদের কিনে পাচার করা হয়। জানেন কি এদের শৈশবের মূল্য ওদের পরিবারের কাছে মাত্র কয়েক ডলার? কাজের ধরন? সকাল ৬টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত এই শিশুগুলো অমানুষিক পরিশ্রম করে। খাদ্য হিসেবে পায় সস্তা সেদ্ধ ভুট্টা আর কলা। রাতে শেকল দিয়ে বেঁধে দরজা জানালাহীন কাঠের আস্তাবলে ফেলে রাখা হয় যাতে তারা পালাতে না পারে।

এই অত্যাচার থেকে কেউ পালানোর চেষ্টা করলে তার কপালে জোটে বেধড়ক মার আর যৌন হয়রানি। মার খেয়ে বা ধর্ষণে কেউ মরে গেলে তার শরীরটা ছুঁড়ে দেয়া হয় নদীতে বা কুকুরের মুখে। মায়া ভালোবাসার ছিটেফোঁটাও নেই সেখানে। রয়েছে শুধু নৃশংসতা। সেই রক্ত যেন শুকিয়ে কালো হয়ে আছে পৃথিবী জোড়া ফ্রীজে রাখা ডার্ক চকোলেটে। কোকো ফিল্ডের পোকা, সাপ, বিচ্ছুর কামড়ে অনেক শিশুই মারা যায়, অবশ্য তাতে মালিকদের কিছু যায় আসে না। দারিদ্রতাই তাদের সুযোগ নেয়ার কৌশল। ৫ থেকে ১২ বছর বয়সী বাচ্চাদের তো কোনো মজুরি দেয়া হয় না। বড় কোম্পানিগুলো চুপ থাকবে সস্তায় কোকো পাওয়ার আশায়। ইন্টারন্যাশনাল লেবার ল’ সেখানে উপহাস মাত্র।

কোকো ফার্মের ৪০ শতাংশ মেয়ে শিশু। তাদের বয়ঃসন্ধি আসে ফার্মেই। সেখানকার মালিক, শ্রমিক, ঠিকাদার এমনকি পুলিশের যৌন চাহিদা মেটাতে হয় ওদের। যৌন রোগ আষ্টেপৃষ্টে ধরে কোমল শরীরে। পঁচে গলে যায় শৈশব। স্বপ্নেও পোকা আসে, ভয়ঙ্কর সব পোকা। খুবলে খায় চকোলেটি হৃদয়! এই শিশুগুলোর হাতে তুলে দেয়া হয় ম্যাশেটি। এটি এমন এক ছুড়ি যা দিয়ে একটি শিশুকে কয়েক মিনিটে কিমা করা সম্ভব। এই ছুড়িগুলোই শিশুদের হাতে দেয়া হয় কোকোবিন পেড়ে বস্তায় রাখার জন্য।

কারো আঙুল কাটে, কারো শরীরের বিভিন্ন স্থানে হয় গভীর ক্ষত। ১০০ কেজি বস্তা ওদের পিঠে চাপানো হয়। বিশ্রামের জন্য থামলেই চাবুকের আঘাত। কি ভাবছেন? মধ্যযুগের কোনো বর্বতার কাহিনী এটা? না। এটা আমাদেরই বিশ্বায়ন, ফেসবুক, ইত্যাদির তথাকতিত আধুনিক পৃথিবীর এক কাহিনী। এই যুগেই ক্রীতদাস প্রথা চলছে এখনো। যেখানে মানবতা দাঁত বের করে উপহাস করে! আর এই গভীর অন্ধকার থেকেই বের হয় আমার আপনার প্রিয় ডার্ক চকোলেট!

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি Alokito Sakal'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyalokitosakal@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

Alokito Sakal'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।




© ২০২০ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। Alokito Sakal | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, Design and Developed by- DONET IT