রেজি. নং- ১৯৬, ডিএ নং- ৬৪৩৪

শনিবার ১৬ নভেম্বর ২০১৯, ১লা অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম
◈ ফেসবুকের কাছে ১২৩ জনের তথ্য চেয়েছে সরকার ◈ আজ দুবাই যা‌চ্ছেন প্রধানমন্ত্রী ◈ ব্রেক করার যথেষ্ট ‘সময় ও জায়গা’ পেয়েছিলেন চালকরা ◈ দেশকে এগিয়ে নিতে প্রয়োজন সাংস্কৃতিক গণজাগরণ: পররাষ্ট্রমন্ত্রী ◈ মূল্য সমাচার ও আমাদের নির্ভরশীলতা! ◈ রাণীশংকৈলে দোকান ও প্রতিষ্ঠান কর্মচারী ইউনিয়নের ত্রি-বার্ষিক নির্বাচন সম্পূর্ণ ◈ ট্রেন দুর্ঘটনা:মানিকছড়িতে আজকের প্রজন্মের দোয়া মাহফিল ◈ বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ আখতারুজ্জামান চৌধুরী বাবু পরিষদ ইউ. এ. ই. কেন্দ্রীয় কমিটির স্মরণ সভা ◈ গাজীপুরে দুই স্বর্ণের দোকানে ডাকাতির ◈ ভেদরগঞ্জ পৌরসভার প্রাণকেন্দ্র গুলোতে ময়লার ভাগাড় দেখার কেউ নেই

সড়ক আইন প্রয়োগে আরও ৭ দিন সময়: ওবায়দুল কাদের

প্রকাশিত : ০৮:০৪ অপরাহ্ণ, ৭ নভেম্বর ২০১৯ বৃহস্পতিবার ৫১ বার পঠিত

অনলাইন নিউজ ডেক্স :
alokitosakal

সড়ক পরিবহন আইন প্রয়োগে আর ৭ দিন সময় দিলেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। ওই সময়ে ব্যাপক সচেতনতামূলক কার্যক্রম চালাতে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষকে (বিআরটিএ) নির্দেশ দেন তিনি।

বৃহস্পতিবার বিআরটিএ’র সদর কার্যালয়ে কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময়ের পর সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ তথ্য জানান।

অপর এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, আইন সংশোধন নিয়ে পরিবহন মালিক ও শ্রমিক নেতাদের সঙ্গে এ ধরনের কোনো কথা হয়নি।

সংশ্লিষ্টরা জানান, নতুন আইন প্রয়োগ না হওয়া পর্যন্ত এর অধীনে মামলা হবে না। আইনটি গত ১ নভেম্বর থেকে কার্যকরের ঘোষণা দিয়েছিল সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ। ওইদিনই আইন প্রয়োগে সাতদিন সময় দিয়েছিলেন মন্ত্রী। বৃহস্পতিবার ওই সময়সীমা শেষ হয়েছে। এদিন মন্ত্রী আইন প্রয়োগে আরও সাতদিন সময় বাড়িয়ে দিলেন।

এ বিষয়ে বৃহস্পতিবার ওবায়দুল কাদের বলেন, প্রথমে সাতদিন সময় দিয়েছিলাম। আরও সাতদিন বাড়িয়ে দিচ্ছি। এ সময়ে ব্যাপক প্রচারণার কর্মসূচি নিতে হবে। তিনি বলেন, বিধিমালা প্রণয়ন শেষ পর্যায়ে রয়েছে। এটির কাজ দ্রুত শেষ করা হবে।

আইন প্রণয়নের এক বছরের বেশি সময় পার হলেও বিধিমালা প্রণয়নের ব্যর্থতা কার- এমন প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, আমি ছয় মাস অসুস্থ ছিলাম। আইন পাসের পর পরিবহন শ্রমিকরা বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি তৈরি করেছিল। তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিলে রাস্তায় জনদুর্ভোগ হয়। আমরা যাব কোথায়। তবুও আস্তে আস্তে আইনটি সহনীয় হবে। তিনি বলেন, বিআরটিএর দায়িত্বে যারা ছিল সেখানে পরিবর্তন আনা হয়েছে, জনবলেও পরিবর্তন আনা হয়েছে।

মন্ত্রী বলেন, আমরা প্রথম কয়েকদিন শাস্তি না দিয়ে সতর্ক করছি। সবাইকে আইন সম্পর্কে, শাস্তি সম্পর্কে, সড়কে শৃঙ্খলা আইন সম্পর্কে সচেতনতা তৈরি করতে হবে। এ ক্ষেত্রে গণমাধ্যমেরও ভূমিকা রয়েছে।

ঢাকার সড়কে বিশৃঙ্খলা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ঢাকার সড়কের শৃঙ্খলা ফেরানোর কাজ ডিটিসিএর। আমরা নগরের শৃঙ্খলা ফেরাতে কিছু সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম। সিটি কর্পোরেশন কাজও শুরু করেছিল। ডেঙ্গুর প্রকোপ বেড়ে যাওয়ায় সিটি কর্পোরেশনের কর্মীরা এডিস মশা নিয়ন্ত্রণে ব্যস্ত হয়ে পড়ায় এ কাজে ধীরগতি আসে। আমি শিগগিরই আবারও ডিটিসিএর বৈঠক করব।

বিআরটিএ’র কার্যক্রম সম্পর্কে ওবায়দুল কাদের বলেন, এখানে বাধা আছে, চ্যালেঞ্জ আছে। এ সব অতিক্রম করতে দরকার সততা, সাহস ও কমিটমেন্ট। স্টেকহোল্ডারদের মানিয়ে আইন কার্যকর করতে হবে। আবার অন্যায় আবদার গ্রহণ করা যাবে না। সৎ থাকা মানে দুর্ব্যবহার নয়, সবাইকে বুঝিয়ে ব্যবস্থা নিতে হবে। আইনের বাস্তবায়নে বাধা থাকবে। কারণ কঠোর শাস্তির ব্যবস্থা আছে। শাস্তির ভয় না থাকলে শৃঙ্খলা আসবে না। এখন লাইসেন্স নবায়নের হিড়িক পড়েছে। স্বচ্ছতার সঙ্গে কাজ করতে হবে বিআরটিএকে।

তিনি বলেন, বিআরটিএর মিরপুর, ইকুরিয়া ও চট্টগ্রামে দালালের বদনাম আছে। কুমিল্লা, সিলেটসহ অন্য অফিসেও আছে। কর্মকর্তাদের যোগসাজশ না থাকলে দালাল ঢুকতে পারে না। শর্সের ভেতরে ভূত আছে। অপকর্মকারীদের বদলি করেও অনেকে সৎ পথে আসেনি। তাই এখন মনে হয় এদের বাদ দিতে হবে। কোনো তদবির প্রশ্রয় দেয়া যাবে না।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি Alokito Sakal'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyalokitosakal@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

Alokito Sakal'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।




© ২০১৯ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। Alokito Sakal | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, Design and Developed by- DONET IT