রেজি. নং- ১৯৬, ডিএ নং- ৬৪৩৪

সোমবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৩ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

০৮:২৬ পূর্বাহ্ণ

সেতুর অপেক্ষায় ২০ বছর

প্রকাশিত : ১২:৩০ PM, ১৯ অক্টোবর ২০১৯ Saturday ১৩৩ বার পঠিত

আলোকিত সকাল রিপোর্ট :
alokitosakal

গুরুদাসপুর (নাটোর) প্রতিনিধি :

নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলার নন্দকুঁজা নদীতে একটি সেতুর জন্য ২০ বছর ধরে অপেক্ষা করছেন এলাকাবাসী। তারপরও মিলছে না সেতু। অবশেষে এলাকাবাসীর চাঁদার টাকায় তৈরি বাঁশের সাঁকো দিয়েই পার হতে হচ্ছে নদী।

স্থানীয়রা জানান, গুরুদাসপুর উপজেলার নন্দকুঁজা নদীর পশ্চিম অংশে এ সাঁকোটি গুরুদাসপুর-সিংড়া উপজেলাকে বিভক্ত করেছে। উভয়পাশের মানুষের পারাপারের জন্য নেই কোনো সেতু। এলাকাবাসীর উদ্যোগে নির্মিত সাঁকোতেই ১০ গ্রামের মানুষ ঝুঁকি নিয়ে পারাপার হন। সেতু না থাকায় ঝুঁকিপূর্ণ সাঁকোর ওপর নির্ভর করে স্কুল-কলেজগামী ছাত্র-ছাত্রীদের চলাচল করতে হয়। দীর্ঘদিন ধরে এভাবেই পারাপার হয়ে আসছে সীমান্তবর্তী এ দুই উপজেলার মানুষ।

সরিজমিন গিয়ে দেখা যায়, নন্দকুঁজা নদীর গুরুদাসপুর অংশের ওয়াবদা বাজারে বসেছে হাট। সপ্তাহে দুদিন এ হাটে দুই উপজেলার হাজার মানুষের সমাগম হয়। গুরুদাসপুর অংশে শ্যামপুর, কুঠিপাড়া, চন্দ্রপুর, ঠাকুরপাড়া, ময়মনসিংহ পাড়া এবং সিংড়া অংশের মাটিকোবা, শালিখা, চামারি, মণ্ডলপাড়া, টলটলিপাড়ার মানুষরা এ সাঁকো দিয়ে প্রতিদিন যাতায়াত করে। সেতু পরিচালনা কমিটির ক্যাশিয়ার আকতার হোসেন বলেন, ছোট বেলা থেকে কেবল শুনে আসছি এখানে একটি সেতু হবে। কিন্তু তা হচ্ছে না। আমাদের ছেলে-মেয়েদের স্কুল-কলেজে যাতায়াত, চলাফেরা, হাটে পন্য আনা নেওয়া অনেক কষ্ট হয়। অসুস্থ রোগীকে সময়মত হাসপাতালে নেওয়া সম্ভব হয়ে উঠে না। তাই আমরা চাঁদার টাকায় সাঁকোটি তৈরি করেছি।

সেতু পরিচালনা কমিটির সভাপতি মো. শাজাহান আলী বলেন, এ এলাকায় সেতু না হওয়ায় আমারা পিছিয়ে যাচ্ছি। চলাচলের জন্য এক লাখ ৪৭ হাজার টাকা এবং ৫০০ বাঁশ সংগ্রহ করে সেতুটি নির্মাণ করা হয়েছে। তারপরও প্রতি বছর সংস্কার করতে ব্যয় হয় দেড় লক্ষাধিক টাকা।

নাজিরপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শওকত রানা লাবু বলেন, ওই জায়গাতে সেতু নির্মাণ প্রয়োজন। সেতু নির্মাণের প্রস্তাব সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠানো হয়েছে।

গুরুদাসপুর উপজেলা প্রকৌশলী আ. ন. ম ওয়াহিদুজ্জামান বলেন, সরেজমিন পরিদর্শন করে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি Alokito Sakal'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyalokitosakal@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

Alokito Sakal'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।




এই বিভাগের জনপ্রিয়

© ২০২০ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। Alokito Sakal | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, Design and Developed by- DONET IT