রেজি. নং- ১৯৬, ডিএ নং- ৬৪৩৪

মঙ্গলবার ১৮ মে ২০২১, ৪ঠা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

০৪:৪৫ অপরাহ্ণ

শ্রীনগরে হস্তশিল্পের তৈরী সামগ্রী বিক্রি

প্রকাশিত : ০৬:৩৪ PM, ১ মে ২০২১ শনিবার ৫১ বার পঠিত

আলোকিত সকাল রিপোর্ট :
alokitosakal

আরিফুল ইসলাম শ্যামল : হস্তশিল্পের তৈরীকৃত বিভিন্ন সামগ্রী বিক্রি করে আয় করছেন জাহাঙ্গীর বেপারী (৪৭)। আদি যুগের বাঁশ ও বেতের তৈরী ঐতিহ্যবাহী চালন, চাঙ্গারী, ওরা, কুলা, দোলনা, মাছ ধরার পলো, চাইসহ বিভিন্ন ধরনের সামগ্রী বিকিকিনিকেই তার আয়ের প্রধান উৎস। প্রতিদিনই সকাল বিকাল এক এলাকা থেকে অন্য এলাকায় ঘুরে ঘুরে ভ্যান গাড়িতে এসব সামগ্রীর পসরা সাজিয়ে ফেরী করে দাপিয়ে বেড়ান তিনি। মানুষের কাছে বাঁশ এবং বেতের তৈরী ঐতিহ্যবাহী এসব পণ্যের কদর থাকায় বিক্রি করে ভালই কামাই হচ্ছে তার। এমনটাই জানান মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলার বাঘড়া গ্রামের বাসিন্দা জাহাঙ্গীর বেপারী। সে ওই এলাকার মো. জুলমত বেপারীর পুত্র।

দেখা গেছে, শ্রীনগর উপজেলাসহ বিভিন্ন এলাকার রাস্তাঘাটের মোড়ে কিংবা মহল্লায় ও পাড়ায় পাড়ায় ভ্যান গাড়িতে সাংসারিক কাজেকর্মে ব্যবহারযোগ্য গ্রাম বাংলার জনপ্রিয় বিভিন্ন সাইজের নানা ধরণের হস্তশিল্প সামগ্রী নিয়ে ঘুরে বেড়াতে। এখনও এসব জিনিসের ব্যাপক চাহিদা তার ভাসমান দোকানে পণ্য কিনতে ভিড় জমায় স্থানীয়রা। তবে কালের বিবর্তণে আধুনিকতার ছোঁয়ায় প্লাষ্টিক ও স্টীলের যুগে হারিয়ে যেতে বসেছে এসব হস্তশিল্প সামগ্রী। এর পরেও হাতের তৈরী ঐতিহ্যবাহী এসব সামগ্রী বিভিন্ন হাট বাজারে এখনও বিক্রি হচ্ছে। এর চাহিদা হয়ত কখনই শেষ হবেনা। এরই ধারাবাহিকতায় জাহাঙ্গীর বেপারীও ঐতিহ্যবাহী হস্তশিল্পের তৈরী সামগ্রী কেনা বেচার ব্যবসাটি ধরে রেখেছেন।

জানা গেছে, গত ৮ বছর আগে অল্প পূজীতে ব্যবসা শুরু করেন জাহাঙ্গীর বেপারী। ১ সন্তানের জনক জাহাঙ্গীর বেপারী এই ব্যবসা করেই পরিবার পরিজন নিয়ে তার সংসার ভালই চলছে। মাসে ২ বার টাঙ্গাইল ও ফরিদপুর গিয়ে পাইকারীভাবে নানা প্রকার হস্তশিল্পের তৈরী মালামাল সংগ্রহ করেন। নিজ বাড়িতে রেখেই সপ্তাহের ৪-৫ দিন অত্র এলাকায় ফেরী করে বিক্রি করেন। প্রতি মাসে এই ব্যবসা থেকে ১৫-২০ হাজার টাকা পর্যন্ত আয় করতে পারছেন।

জাহাঙ্গীর বেপারীর সাথে আলাপ হলে তিনি বলেন, ভ্যানে করে বিভিন্ন স্থান ঘুরে ফেরী করে মানুষের পছন্দের হস্তশিল্প সামগ্রী বিক্রি করেন তিনি। যত বিক্রি তত আয়। এখনও মানুষের কাছে বাঁশ ও বেতের তৈরী এসব জিনিসপত্রের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। তার কাছে ১০০ থেকে ৭০০ টাকা দামের হস্তশিল্পের তৈরীকৃত পণ্য রয়েছে জানান তিনি।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি Alokito Sakal'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyalokitosakal@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

Alokito Sakal'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

এই বিভাগের জনপ্রিয়

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। Alokito Sakal | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, Design and Developed by- DONET IT