রেজি. নং- ১৯৬, ডিএ নং- ৬৪৩৪

মঙ্গলবার ০৯ মার্চ ২০২১, ২৫শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

০৬:১৯ পূর্বাহ্ণ

শ্রীনগরে এক ভুয়া দলিল লেখকের সন্ধান!

প্রকাশিত : ০৬:০৪ PM, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২১ মঙ্গলবার ৯২ বার পঠিত

আলোকিত সকাল রিপোর্ট :
alokitosakal

আরিফুল ইসলাম শ্যামল, শ্রীনগর (মুন্সীগঞ্জ) প্রতিনিধি : শ্রীনগরে মো. বিপুল আহমেদ নামে এক ভুয়া দলিল লেখকের সন্ধান পাওয়া গেছে। বিপুল নিজেকে শ্রীনগর সাব-রেজিষ্ট্রী অফিসের দলিল লেখক হিসেবে পরিচয় দিয়ে বিভিন্ন সময়ে মানুষের সাথে প্রতারনা করে আসছে বলে অভিযোগ উঠেছে। বিপুল উপজেলার কোলাপাড়া ইউনিয়নের কাদুরগাঁও গ্রামের মৃত লাল মিয়ার ছেলে। সে গত ৪/৫ বছর যাবত নিজেকে এলাকায় দলিল লেখক হিসেবে পরিচয় দান করছেন।

অনুসন্ধানে জানা যায়, এই পেশায় বিপুল আহমেদের কোন লাইসেন্স না থাকলেও তিনি এখন শ্রীনগর সাব-রেজিষ্ট্রি অফিস পাড়ায় দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন। নিজের নামে তৈরী করেছেন ভিজিটিং কার্ড। সেখানেও নিজেকে একজন দলিল লেখক হিসেবে উপস্থাপন করেছেন। ওই ভিজিটিং কার্ডে নিজের ব্যক্তিগত ২টি চেম্বারের ঠিকানাও রয়েছে। সরেজমিনে খোঁজ খবর নিয়ে, সেখানে তার কোন চেম্বার পাওয়া যায়নি! ভিজিটিং কার্ডে এই পেশায় কোন লাইসেন্স নম্বর উল্লেখ করেননি তিনি। তবে বিপুলকে মাঝে মধ্যেই দেখা যায় সাব-রেজিষ্ট্রী অফিস পাড়ায় দলিল লেখক রাজু, লিটনসহ অন্যান্য দলিল লেখকের অফিসে বসে থাকতে। জানা যায়, আর্থিক কিছু সুবিধা বিনিময়ের মাধ্যমে বিভিন্ন অফিসে বসে বিপুল সুকৌশলে জমি রেজিষ্ট্রী করতে আসা বিভিন্ন মানুষকে ম্যানেজ করে কাজ ভাগিয়ে নেন। নাম প্রকাশে অনুচ্ছিুক কয়েকজন ভূক্তভোগী জানায়, বিপুল আহামেদের সাথে শ্রীনগর সাব-রেজিষ্ট্রার অফিসারের ভাল সম্পর্ক রয়েছে এমন কথা বলে সে বিভিন্ন পাওয়ার দলিলের কাজ নেয়। পরে ওই পাওয়ার বলে ওই সব জমি উচ্চ দামে একাধিক ব্যক্তির সাথে বায়নাপত্র করে থাকেন। এছাড়াও পর্চা, দলিল উঠানো, নামজারী করাসহ বিভিন্ন জমিজমা সংক্রান্ত বিষয়ে কাজ করে দেওয়ার নাম করে মানুষের কাছ থেকে অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছেন তিনি।

বিপুল আহামেদের কাছে এবিষয়ে জানতে তার দলিল লেখার লাইসেন্স না থাকার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ভিজিটিং কার্ড করে কয়েক জনকে দিয়েছি মাত্র। দলিল লেখক না হয়েও ভিজিটিং কার্ডে মিথ্যা তথ্য দেওয়াটা কি প্রতারনা নয়, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি কোন সুদত্তর দিতে পারেননি।
দলিল লেখক সমিতির সভাপতি মো. মাজাহার মোক্তারের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিপুলের কোন লাইসেন্স নেই। এধরনের প্রতারনার বিরুদ্ধে খুব শীঘ্রই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এব্যাপরে শ্রীনগর সাব-রেজিষ্ট্রার রেহানা বেগম জানান, বিপুলের সাথে অমার কোন সম্পর্ক নেই, আমি তাকে দলিল লেখকের সহকারী হিসেবে চিনি।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি Alokito Sakal'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyalokitosakal@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

Alokito Sakal'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

এই বিভাগের জনপ্রিয়

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। Alokito Sakal | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, Design and Developed by- DONET IT