রেজি. নং- ১৯৬, ডিএ নং- ৬৪৩৪

শনিবার ২২ জানুয়ারি ২০২২, ৯ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

০২:৪৬ অপরাহ্ণ

শিরোনাম
◈ আ’লীগ নেতা সৈয়দ মাসুদুল হক টুকুর পিতার ২১ তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ ◈ ঘাটাইল আশ্রয়ন প্রকল্প পরিদর্শনে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের পরিচালক ◈ শীতার্তদের মুখে হাসি ফোটালেন সিদ্ধিরগঞ্জ মানব কল্যাণ সংস্থা ◈ হরিরামপুরে স্বামীর দ্বিতীয় বিয়ে বন্ধে স্ত্রীর অনশন ◈ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গরীব-দুঃখীদের পাশে রয়েছেন সাবেক সিনিয়র সচিব সাজ্জাদুল হাসান… ◈ কালিগঞ্জের কৃষ্ণনগর করোনা এক্সপার্ট টিমের কম্বল বিতরণ ◈ পেইড পিয়ার ভলান্টিয়ারদের চাকরী স্থায়ীকরণের দাবিতে মানববন্ধন ◈ ফুলবাড়ীতে শীতার্তাদের মাঝে ডিয়ার এক্স টিমের শীতবস্ত্র বিতরণ ◈ রানীরবন্দর রুপালী ব্যাংক লিঃ ব্যবস্থাপকের বিদায় ও বরণ ◈ শার্শায় বাইক ছিনতাই করে চালককে হত্যায় জড়িত ৩ আসামী আটক

পুলিশের সহায়তায় নয় বছর পর বাবা মায়ের কোলে ফিরল রানু খাতুন

প্রকাশিত : ১১:২৪ PM, ৩ ডিসেম্বর ২০২১ শুক্রবার ৬৪ বার পঠিত

আলোকিত সকাল রিপোর্ট :
alokitosakal

ধর্মপাশা (সুনামগঞ্জ) প্রতিনিধি: বাবা মায়ের কোলে নয় বছর পর ফিরে এল তাদের হারানো মেয়ে রানু খাতুন (১৯)। এ যেন সিনেমাকে হার মানিয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে সুনামগঞ্জ জেলার মধ্যনগর উপজেলার দক্ষিণ বংশীকুন্ডা ইউনিয়নের তেলীগাঁও গ্রামে। হারিয়ে যাওয়ার দীর্ঘ নয় বছর পর মধ্যনগর থানা পুলিশের সহায়তায় মেয়ে রানু খাতুনকে(১৯) খুঁজে পেলেন মনসুর ও রাজিয়া খাতুন দম্পতি।
পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, মোঃ মনসুর আলী ও রাজিয়া খাতুন দম্পতির দুই ছেলে ৫ মেয়ের মধ্যে রানু খাতুন তৃতীয়। জীবিকার তাগিদে ২০১২ সালে একই গ্ৰামের সাহার বানু নামের এক মহিলার মাধ্যমে ঢাকার রূপনগর থানা এলাকার শহিদুল মিয়ার বাসায় কাজের জন্য দেয়া হয়। তখন রানু খাতুনের বয়স ছিল মাত্র ৯ বছর।এরপর সেখানেই বেশকিছু কাজ করেন রানু খাতুন। রানুর বাবা ঢাকায় তাকে (রানু) দেখতে গেলে শহীদুল ইসলামের জানায় রানু চুরি করে বাসা থেকে চলে গেছে। পরে রূপনগর থানায় বাসার মালিক একটি চুরির মামলা করেন।এ খবর শুনে মনসুর আলী মানসিক ভাবে ভেঙে পড়েন। একদিকে মেয়ে না পাওয়া আন্যদিকে চুরির মামলা। দিশেহারা হয়ে পড়েন রানুর বাবা। কিছুদিন পর মনসুর আলী রূপনগর থানা ঢাকায় শহীদুলের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু আইনে একটি অপহরণ মামলা দায়ের করেন। মামলাটি এখনও চলমান।
পুলিশ সূত্রে জানা যায়, রানু তার পরিচয় সঠিকভাবে বলতে পারত না। হারিয়ে যাওয়ার পর ঢাকার রাস্তায় ঘুরে বেড়ায় সে। পরে ঢাকার মিরপুরের ইমরান আহমেদের বাসায় গৃহ পরীচিকার কাজ নেয় সে। সেখানে দীর্ঘদিন ধরে থাকছে রানু।এইভাবে কেটে যায় দীর্ঘ নয় বছর। বাসার মালিকের এক আত্মীয় রানু খাতুনকে তার বাবা মায়ের কাছে ফেরানোর জন্যে যিনি নিরলসভাবে কাজ করেছেন সেই ন্যাশনাল ডিজিটাল ল্যান্ড জয়নিং প্রজেক্টের গবেষক ড.এস এম আলাউদ্দিন রানুর কাছে তার পরিচয় ও ঠিকানা জানতে চাইলে সঠিকভাবে সে তা বলতে পারত না।ঠিকানা বললে শুধু বলত মধ্যিনাগর ও চট্টগ্রামের নাম।অবশেষে ড. আলাউদ্দিন অনেক খোঁজাখুঁজি করে সুনামগঞ্জের মধ্যনগর থানার সন্ধান পান। ইন্টারনেট ঘেঁটে ড. আলাউদ্দিন মধ্যনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার (ওসি) ফোন নম্বর সংগ্রহ করেন। রানুর পরিচয় নিয়ে ড. আলাউদ্দিন মধ্যনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নির্মল দেবকে ফোনে বিস্তারিত জানান। পরে মধ্যনগর থানা পুলিশ দক্ষিণ বংশীকুন্ডা ইউনিয়নের তেলীগাঁও গ্রামে রানুর বাবার খোঁজ পায়।মনসুর আলীর ও রাজিয়া খাতুন দম্পতির মেয়ে এই রানু।মধ্যনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নির্মল দেব রানুর পরিচয় নিয়ে কথা বলেন ড. আলাউদ্দিনের সাথে।অবশেষে ফোনে যোগাযোগ করে রানুর বাবা মনসুর আলীকে ঢাকার মিরপুরে ইমরান আহমেদের বাসায় পাঠানো হয়। দীর্ঘ নয় বছর বাবা মনসুর আলী ঢাকার মিরপুরে ওই বাসায় গিয়ে তার মেয়েকে চিনতে পারেন এবং মেয়ে বাবাকে চিনতে পারে। কয়েক দিন বাবা মেয়ে ঢাকায় থাকেন। শুক্রবার ৩ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় মনসুর আলী তার মেয়ে রানুকে নিয়ে মধ্যনগর থানায় আসেন। মেয়ে ফিরে পেয়ে বাবা মনসুর আলী ড. আলাউদ্দিন ও মধ্যনগর থানার ওসি নির্মল দেবকে কৃতজ্ঞতা জানান।
রানু খাতুনের বাবা মোঃ মনসুর আলী বলেন,মেয়েকে খুঁজে পাবো কল্পনাও করিনি। মেয়ে হারানো যে কত কষ্টের, তা বোঝানো যাবে না। বহু দিনের বুকের কষ্ট আজ দূর হলো।’
রানু খাতুন বলেন, আমার খুশিটা বুঝানো যাবে না। আমি অনেক বেশি খুশি। কখনও ভাবতেও পারিনি কেউ আমাকে খুঁজে এনে দিবে। আমার শেষ ইচ্ছা এটাই ছিল।
ড.এস এম আলাউদ্দিন জানান, আমি যখন জানতে পারছি মেয়েটার বাবা মায়ের খোঁজ নেই। তখন তার সাথে কথা বলে তার পরিবারের কাছে পৌঁছে দেওয়ার সাহায্য করেছি মাত্র। রানু খাতুন তার বাবা মায়ের কাছে পৌঁছাতে আমিও খুব আনন্দিত। তিনি মধ্যনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নির্মল দেবকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান।
মধ্যনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নির্মল দেব বলেন, দীর্ঘদিন পর হলেও একজন ভাল লোকের মাধ্যমে এই মেয়েটি তার পিতা মাতার সন্ধান পেয়েছে। এই কার্যক্রমে মধ্যনগর থানা পুলিশ অংশগ্রহণ করতে পেরে আমরাও খুব খুশি।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি Alokito Sakal'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyalokitosakal@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

Alokito Sakal'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

এই বিভাগের জনপ্রিয়

© ২০২২ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। Alokito Sakal | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, Design and Developed by- DONET IT