রেজি. নং- ১৯৬, ডিএ নং- ৬৪৩৪

শনিবার ৩১ অক্টোবর ২০২০, ১৬ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

০১:১৩ পূর্বাহ্ণ

শিরোনাম
◈ শেরপুর প্রেসক্লাব নেতৃবৃন্দের সাথে ইংল্যান্ডের কাউন্সিলর মর্তুজার মতবিনিময় ◈ রাজশাহীর দূর্গাপুর থানার ওসি খুরশিদা বানুর তৎপরতায় আইন-শৃঙ্খলার উন্নতি ◈ নতুন দায়িত্বে নূরে আলম মামুন ◈ ভাষা সৈনিকের নাতি শুভ্র’র খুনীরা যতই শক্তিশালী হোক তারা রেহাই পাবে না…..গৃহায়ন ও গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী শরীফ আহমেদ ◈ ২ টাকার খাবারের কার্যক্রম এবার ফুলবাড়ীয়া উপজেলায় ◈ রাজশাহীতে মানবাধিকার রক্ষাকারী নেটওয়ার্ক সভা ◈ রায়পু‌রে পুকু‌রে প‌ড়ে দুই শিশুর করুন মৃত‌্যু ◈ পরিবারের নিরাপত্তা চেয়ে কাতার প্রবাসীর সংবাদ সম্মেলন ◈ মহানবী (সাঃ)এর ব্যাঙ্গ চিত্র প্রদর্শনের প্রতিবাদে,মধ্যনগরে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত ◈ পত্নীতলায় আমণের বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা

মেহেরপুরে ফাঁদ পেতে অবাধে পাখি শিকার করে বিক্রি

প্রকাশিত : ০৮:৫৭ PM, ৮ অক্টোবর ২০২০ Thursday ১০১ বার পঠিত

আলোকিত সকাল রিপোর্ট :
alokitosakal

সাব্বির হোসেন, মেহেরপুর প্রতিনিধিঃ
মেহেরপুর জেলায় প্রতিদিন বিভিন্ন প্রজাতির শিকার করা সংখ্যায় প্রায় এক হাজার পাখি বিক্রি হচ্ছে। প্রকৃতির প্রাণ এসব পাখি অবাধে শিকার ও বিক্রি করলেও প্রশাসনের কোন নজরদারি নেই।আশ্বিন শিতের ইমেজ শুরু হোক আর না হোক মেহেরপুরের খাল বিলে মাছ শিকার করতে আশা পাখিরা শিকারে পরিণত হচ্ছে। পেশাদার পাখি শিকারিদের পাতা ফাঁদে এবং শখের শিকারিদের গুলিতে প্রাণ হারাচ্ছে প্রকৃতির প্রাণ পাখি। পরিবেশ ও জীববৈচিত্র রক্ষায় পাখি শিকার নিষিদ্ধ হলেও মেহেরপুর সদরসহ জেলার তিন উপজেলার খাল-বিল, নদীতে অবাধে চলছে পাখি শিকার। স্থানীয়দের অভিযোগ, সঠিক নজরদারি এবং সচেতনতার অভাবে বাড়ছে পাখি শিকার। এতে নষ্ট হচ্ছে জীববৈচিত্র।

স্থানীয়রা জানান, নদী-নালা ও বিভিন্ন জলাশয়ের পানি কমতে শুরু করেছে। এ সময় জলাশয় ও আমন ধানের জমিতে মাছ ও পোকা খেতে ভিড় জমানো বিভিন্ন প্রজাতির পাখি শিকারিদের জালে ধরা পড়ছে। ফাঁদে ধরা পাখি স্থানীয় হাটবাজারে ফেরি করে বিক্রি করতে দেখা যায়। গত সোমবার মেহেরপুর জেলা শহরের বড়বাজার এক পাখি বিক্রেতাকে অবাধে ঝুড়িভর্তি বক বিক্রি করতে দেখা যায়। পাখি বিক্রেতা হবিবর জানান- ধলার বিলে এসব পাখি শিকারীদের জালে ধরা পড়ছে। তিনি সেই শিকারিদের কাছ থেকে কিনে এনে বিক্রি করছেন। পাখি শিকার ও বিক্রি এটা যে দ-নীয় অপরাধ, তাও তিনি জানেন তবে জীবীকার প্রয়োজনেই বাধ্য হয়ে বিক্রি করছেন বলে দাবি করেন। তিনি জানান ধলার বিলপাড়ের মানুষ প্রতিদিন অন্তত এক হাজার করে বক ফাঁদে ধরা পড়ছে। ওই পাখি তারমতো অনেকেই কিনে বিভিন্ন গ্রাম ও শহরে ফেরি করে বিক্রি করছেন।

প্রতিদিন শিকারীদের সংখ্যা বাড়ছে। পাখি ধরার নিত্য নতুন কৌশলও উদ্ভাবন হচ্ছে। বিভিন্ন ফাঁদ, বন্দুক অচেতন ঔষধ সহ বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করা হচ্ছে পাখি শিকারে। শহর থেকে গ্রামে সর্বত্র চুপিসরে বেচাকেনা হচ্ছে অতিথি পাখি। অভিনব কৌশলে শিকারীরা পাখি বিক্রি করছে খোদ শহরেও। এমনকি আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী সংস্থা, সাংবাদিক ব্যবসায়ী সহ বিভিন্ন পেশাজীবীরা গোপনে কিনছে পাখি। যা সভ্য সমাজের জন্য কাম্য নয়। বিশেষজ্ঞদের মতে এসব পাখি খেয়ে মানব দেহে বার্ডফ্লু ছড়িয়ে পড়তে পারে। যদিও পাখি রান্না করে খেলে বয়েলের কারনে বার্ডফ্লু ছড়ায় না। পাখি শিকার ও নিধন বন্ধের আইন থাকলেও এর কার্যকরী ভূমিকা না থাকায় পাখি শিকারীদের তৎপরতা বন্ধ করা যাচ্ছে না বলে সাধারন মানুষদের অভিযোগ। সমাজ কর্মি মাহবুবুল হক মন্টু জানান একশ্রেণির লোভী মানুষ এলাকার বিভিন্ন খাল-বিলে নানাভাবে পাখি শিকার করে স্থানীয় হাট-বাজারে বিক্রি করছে। ভোররাত থেকে তারা পাখি শিকার করে। আমাদের জীববৈচিত্র টিকিয়ে রাখার জন্য পাখি বাঁচিয়ে রাখা জরুরি।

মেহেরপুর জেলা বার্ড ক্লাবের সভাপতি এম এ মুহিত বলেন, প্রকৃতির ভারসাম্য রক্ষায় অতিথি পাখি শিকার বন্ধে সামাজিক আন্দোলন আজ বেশি প্রয়োজন। কঠোর আইন থাকা সত্ত্বেও আইন প্রয়োগকারী সংস্থা তা প্রয়োগ করছে না। তিনি এ ব্যাপরে সুশীল সমাজকে এগিয়ে আসার আহবান জানান।
পাখি শিকার রোধের বিষয়ে জানতে চাইলে মেহেরপুর জেলা বন কর্মকর্তা মোহাম্মদ জাফরুল্লাহ জানান, লোকবল সংকটের কারণে সবদিকে নজর দেওয়া সম্ভব হয় না। তাছাড়া সরকারিভাবে পরিবহন সুবিধাও নেই। তারপরও পাখি শিকার বন্ধে আমরা চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।

জেলা প্রশাসক ড. মোহাম্মদ মুনসুর আলী জানান, পাখি শিকার জীববৈচিত্রের জন্য ক্ষতিকর। এ বিষয়ে নিয়মিত অভিযান চলছে। কোনও শিকারি হাট-বাজারে যাতে পাখি বিক্রি করতে না পারে সে বিষয়ে নজরদারি আছে।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি Alokito Sakal'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyalokitosakal@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

Alokito Sakal'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।




এই বিভাগের জনপ্রিয়

© ২০২০ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। Alokito Sakal | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, Design and Developed by- DONET IT