রেজি. নং- ১৯৬, ডিএ নং- ৬৪৩৪

মঙ্গলবার ২৭ জুলাই ২০২১, ১২ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

০২:০২ পূর্বাহ্ণ

মাস্ক পরেননা তারা!

প্রকাশিত : ০৫:১০ PM, ২৭ এপ্রিল ২০২১ মঙ্গলবার ৬০ বার পঠিত

আলোকিত সকাল রিপোর্ট :
alokitosakal

করোনা সংক্রমণ রোধে রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশে ৫ এপ্রিল থেকে প্রথম দফায় সাত দিনের ‘লকডাউন’ ঘোষণা করে সরকার। সেই সাত দিনের লকডাউনে জনগণের উদাসীনতা দেখেই ১৪ এপ্রিল থেকে ‘সর্বাত্মক লকডাউন’ ঘোষণা করা হয়। তা বৃদ্ধি করে ২৮ এপ্রিল পর্যন্ত চলার কথা থাকলেও করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে না আসায় চলমান ‘সর্বাত্মক লকডাউন’ ৫ মে পর্যন্ত বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। এ বিষয়ে আজ মঙ্গলবার জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে প্রজ্ঞাপন জারি করা হতে পারে। করোনা ভয়াবহ আকার ধারণ করলেও মাস্ক পরতে অনিহা প্রবনতা বেশির ভাগ মানুষের মধ্যে লক্ষ্য করা গেছে। মাস্ক না পরার বিষয়ে নানা জনের নানা অজুহাত। কেউ বলেন মাস্ক পরতে ভালো লাগে না। কেউ মাস্ক পকেটে রেখেছেন, আবার কেউ বাসায় রেখে আসছেন। কারো আছে পকেটে, অবার অনেকের কাছে মাস্ক থাকলেও তাদের থুতনিতে ঝুলতে দেখা যায়।

রাজধানীর বিভিন্ন এলাকার দোকান, খাবারের হোটেল ও অস্থায়ী বিক্রেতাদেরও মাস্ক পরতে দেখা যায়নি। এমনকি দু-একজন বাদে বেশিরভাগ ক্রেতাদের মাস্ক পরতে দেখা যায়নি। পাড়া মহল্লায় গাদাগাদি করে মানুষজন বাজার করছে। প্রয়োজনে অপ্রয়োজনে ঘুরাঘুরি করছে। মূলত সঠিক তদারকির অভাবে এমনটা হচ্ছে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। মাস্ক পরার বিষয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পক্ষ থেকেও বার বার সতর্ক করা হচ্ছে। কিন্তু কে শোনে কার কথা।

ভ্যানগাড়িতে করে পাঞ্জাবি পাজামা বিক্রির সময় দেখা যায় ভ্যানের চারপাশে ক্রেতাদের উপস্থিতি। সেখানেও একজনের মুখে মাস্ক থাকলেও কারো মুখেই মাস্ক নেই। এমনকি বিক্রেতার মুখেও মাস্ক ছিলো না। আনারস বিক্রি করছেন মো. রুবেল হোসেন ও মো. জসিম তাদেরও মাস্ক পরতে দেখা যায়নি। এই দোকানে সোমবার ইফতারের পূর্বে দেখা যায় উপচে পড়া ভিড়, কিন্তু এসময় বেশিরভাগ ক্রেতাদের মুখেই মাস্ক ছিলোনা। এক সবজি বিক্রেতার মুখে মাস্ক নেই তা জানতে চাইলে তিনি বলেন, করোনা যদি হয় কোনও মাস্ক ঠেকাতে পারবে না। আর যদি না হয় কোনও কিছুতেই হবে না।

ইফতারির পূর্ব মুহুর্তে এক খাবার হোটেলে ইফতার বিক্রি করছেন পাঁচ থেকে ছয়জন কর্মকর্তা তাঁদের কারো মুখেই মাস্ক নেই। এই হোটেলের এক কর্মকর্তার নাম মো. শাহীন। তিনি হালিম পার্সেল করছেন। তার মুখে মাস্ক নেই, মাস্ক কেন নেই জানতে চাইলে তিনি বলেন, মাস্ক পরা আসলেই উচিত। তিনি বলেন, মাস্ক বাসায় রেখে আসছি। গোসল করার সময় গোসল খানায় রেখে আসছি। আনতে ভুলে গেছি।

কেনাকাটা করতে আসা আল আমিন বলেন, মাস্ক পরে দম বন্ধ হয়ে আসে। ঠিকমত কথা বলা যায় না, বললেও আরেকজন তা বোঝে না। এজন্য নামাইয়া রাখছি। রাস্তায় মাস্ক ভ্যানগাড়িতে সবজি বিক্রি করছেন মো. বেলাল। জানতে চাইলে তিনি বলেন, বাসায় রেখে আসছি।

মাস্ক কেন পরছেন না জানতে চাইলে হাটের কর্মচারী মো. রাব্বি বলেন, মাস্ক পরে থাকলে ঘাম মুখের ভিতরে ঢুইকা গেছে মনে হয়। মাস্ক পইরা কতক্ষণ থাকুন যায়? রাস্তায় মাস্ক ছাড়া ঘোরাফেরা করছিলেন মো. ফারুক। জানতে চাইলে তিনি বলেন, সারাদিন বাসায় ছিলাম। বিকেলে বন্ধুরা সবাই বের হতে বলল। তাই বের হলাম। কিছুক্ষণ আড্ডা দিয়ে চলে যাবো।

অনেক ক্রেতাকে এ নিয়ে জিজ্ঞাসা করলেই তারা রেগে গিয়ে বলেন, আমি মাস্ক পরব কি না, সেটা আমার সিদ্ধান্ত। আপনি বলার কে? বয়স্ক এক ক্রেতার মুখে মাস্ক না থাকার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি মাস্ক পড়ি, কিন্তু এখন বাসায় রেখে আসছি।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি Alokito Sakal'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyalokitosakal@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

Alokito Sakal'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। Alokito Sakal | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, Design and Developed by- DONET IT